ঢাকা, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ১ বৈশাখ ১৪৩১ | ৫ শাওয়াল ১৪৪৫

ভাষা আন্দোলনের ৭১ বছরেও স্বীকৃতি পাননি চারণ কবি সামসুদ্দিন

ভাষা আন্দোলনের ৭১ বছরেও স্বীকৃতি পাননি চারণ কবি সামসুদ্দিন

ছবি: গ্লোবাল টিভি

সোহেল রানা বাবু, বাগেরহাট: ‘রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনও করিলিরে ও বাঙালী, তোরা ঢাকা শহর রক্তে ভাসাইলি’ এই গানের রচয়িতা বাগেরহাটের চারণ কবি সামসুদ্দিন শেখ। ৫২’র ২১ ফেব্রুয়ারী রাতে ঢাকাতে বসে এই গান রচনা করেন তিনি। তার এই গান অমর  হয়ে থাকলেও রাষ্ট্রীয়ভাবে ভাষাসৈনিক হিসাবে এখনো কোনো স্বীকৃতি পাননি তিনি। 

বর্তমানে এই কবির পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করছেন। অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটছে তার পরিবারের। বড় ছেলে খোকনের বয়স হলেও এখনো বয়স্ক ভাতা পাননি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলছেন, আমরা তাদের পাশে আছি। বয়স্কভাতা প্রদানের  জন্য দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পাকিস্তান শাসনামলে রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবীতে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি বাঙালীর আন্দোলনে জনরোষে পরিণত হয়। এ সময় ১৪৪ ধারা ভেঙে মিছিলের সময় পাক হানাদারের গুলিতে ঢাকার রাজপথে ছাত্র নিহত হওয়ার ঘটনার (২১শে ফেব্রুয়ারি) রাতেই বাগেরহাটের চারণ কবি সামসুদ্দিন শেখ  “রাষ্ট্রভাষা” নামে রচনা করেন ভাষা আন্দোলনের প্রথম গানটি। কিন্ত ভাষা আন্দোলনের ৭১ বছর পার হলেও কবি সামসুদ্দিন এখনো রাষ্ট্রীয় কোন স্বীকৃতি পাননি ভাষা সংগ্রামী হিসাবে। পরিবারকেও তেমন কোন  সহযোগিতাও করেনি কোনো সরকার। রোগে-শোকে অনাহারে আর অর্ধহারে দিন কাটাচ্ছে পরিবারটি। বড় ছেলে বয়স্ক ভাতার যোগ্য হলেও পাননি কোন ভাতা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার পাশে থেকে বয়স্কভাতা প্রদানের আশ্বাস দিয়েছেন।

বড় ছেলে দেলোয়ার হোসেন খোকন বলেন, খাবারই তো ঠিকমত খেতে পারি না, তা ডাক্তার দেখাবো কি করে?

কবির বড় ছেলে খোকন অসুস্থ থাকায় স্ত্রী শীরিনা বেগম সুপারী বিক্রি করে সংসার চালান। চারণ কবির স্বীকৃতির পাশাপাশি পরিবারটিকে সকল সহযোগিতা প্রদানের দাবী এলাকাবাসীর।
এএইচ