ঢাকা, শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ |

 
 
 
 

চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রতিদিন ৩০০ ট্রাক সবজি যাচ্ছে ঢাকাসহ বড় শহরে

গ্লোবালটিভিবিডি ৩:৩৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৬, ২০১৯

ছবি সংগৃহীত

রকিব হোসেন, চুয়াডাঙ্গা: শীত এখনো জেঁকে বসেনি। তবে, বাজারে এসেছে শীতের সবজি। চুয়াডাঙ্গার মাঠে মাঠে সবজি নিয়ে ব্যস্ত গ্রামের কৃষক। জেলায় উৎপাদিত বেশিরভাগ সবজি চলে যাচ্ছে দেশের বড় শহরগুলোতে। ভাল দামও পাচ্ছেন কৃষকরা।

এভাবে প্রতিদিন প্রায় ৩০০ ট্রাক সবজি যাচ্ছে দেশের বড় জেলাগুলোতে। বিশেষ করে ঢাকা, বরিশাল, যশোর, খুলনার বাজারে। বেশি সবজি যাচ্ছে ঢাকার কারওয়ান বাজারে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এ বছর আট হাজার ৫৯০ হেক্টর জমিতে শীতের সবজি চাষের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই প্রায় ৬ হাজার হেক্টর জমিতে সবজি চাষ করা হয়েছে। সবজি চাষাবাদ এখনো অব্যাহত রয়েছে। কৃষক মাঠে ব্যস্ত রয়েছেন শীতের সবজি নিয়ে। কেউ সবজি তুলে বিক্রি করছেন। কেউবা পরিচর্যা করা নিয়ে ব্যস্ত।

চুয়াডাঙ্গার গাড়াবাড়িয়া গ্রামের সবজিচাষী শরীফ উদ্দীন হাসু জানান, শীতের সবজির মধ্যে তুলনামুলকভাবে ফুলকপি ও বাধাকপি ট্রাকযোগে যাচ্ছে জেলার বাইরে। চুয়াডাঙ্গার বাজারে একটি বাধাকপি বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকায়, ঢাকায় বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকায়। চুয়াডাঙ্গায় একটি ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ১৫ টাকায়, ঢাকায় একটি ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকায়। পরিবহণ খরচ বাদ দিয়েও কৃষকদের জেলার বাইরে নিয়ে বিক্রি করে লাভ হচ্ছে বেশি। এজন্য কৃষকরা শীতের বিভিন্ন ধরণের সবজি জেলার বাইরে নিয়ে যাচ্ছেন।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গাড়াবাড়িয়া, বেলগাছি, মাখালডাঙ্গা ও হানুরবাড়দী গ্রামের কয়েকজন কৃষকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সবজি হিসেবে তারা বাধাকপি, ফুলকপি, শীম, বেগুন, মুলা, ওলকপি, ধনেপাতা, লালশাক, পালনশাক, বরবটি, ঢেড়স, গাজর ও টমেটো চাষ করেছেন। কেউ বা পরিচর্যা করছেন সবজিক্ষেতের। সবজি চাষে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভাল দাম পাওয়া যায় বলে কৃষকেরও আগ্রহ থাকে শীতের সবজি নিয়ে। এ বছর দাম ভাল পাওয়া যাচ্ছে। স্থানীয় বাজারের চেয়ে বড় শহরগুলোতে ভাল দাম থাকায় ক্ষেতের সবজি জেলার বাইরে নিয়ে যাওয়ার প্রতি আগ্রহ কৃষকদের।
কৃষকরা জানান, জেলার চার উপজেলার বেশিরভাগ গ্রামেই এখন সবজি চাষ হয়ে থাকে। এখন মাঠে মাঠে শীতের সবজি। বেশিরভাগ ক্ষেত থেকে সবজি তোলা শুরু হয়েছে। যার বেশিরভাগই চলে যাচ্ছে জেলার বাইরে, বড় শহরে।

বেলগাছি গ্রামের কৃষক আজিজ হোসেন বলেন, গ্রামের বেশিরভাগ জমির শীতের সবজি কিনে নিয়েছেন ঢাকার ব্যাপারিরা। ব্যাপাারিদের কাছ থেকে কৃষকরা ফসলের দাম আগেই নিয়ে নিয়েছেন। এখন সেইসব ব্যাপারিরা ট্রাক এনে সবজি নিয়ে যাচ্ছেন ঢাকায়। যেসব কৃষক আগে তাদের ক্ষেতের সবজি বিক্রি করেননি, তারাও এখন সবজি নিয়ে ঢাকা, বরিশালে যাচ্ছেন।

চুয়াডাঙ্গার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ পরিচালক সুফি মোঃ রফিকুজ্জামান বলেন, আগাম শীতের সবজির চাষ করেছিলেন যেসব কৃষক তাদের সবজি ক্ষেত থেকে তুলে বিক্রি উপযোগী হয়েছে। বিক্রিও শুরু হয়ে গেছে। ধারণা করা হচ্ছে আগামি মৌসুমে সবজি চাষ আরো বাড়বে।

এএইচ


oranjee