ঢাকা, শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ |

 
 
 
 

হায়দারের স্মরণীয় অভিষেকে জয় পেলো পাকিস্তান

গ্লোবালটিভিবিডি ১২:০০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০২, ২০২০

ছবিঃ সংগৃহীত

ইংল্যান্ড সফরটা শেষ পর্যন্ত জয়ের হাসি দিয়ে শেষ করতে পেরেছে পাকিস্তান। মঙ্গলবার রাতে টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষ ম্যাচে ৫ রানে ইংলিশদের হারিয়েছে বাবর আজমের দল। তিন ম্যাচের সিরিজের সমাপ্তি হলো ১-১ সমতায়। পাকিস্তানের করা ৪ উইকেটে ১৯০ রান তাড়া করতে নেমে ১৮৫/৮-এ থামে এউইন মরগানের দল।

শেষ দুই ওভারে ইংলিশদের প্রয়োজন ছিল ২০ রান। তখনো ৪ উইকেট হাতে স্বাগতিকদের। ১৯তম ওভারে অসাধারণ বোলিং ও ফিল্ডিং নৈপুণ্য দেখিয়ে ম্যাচ নিজেদের করে নিতে সহায়তা করেন ওয়াহাব রিয়াজ। ক্রিস জর্ডানকে রান আউট করার পর কট অ্যান্ড বোল্ড করে ফেরান ইংলিশদের জয়ের পথে রাখা অলরাউন্ডার মঈন আলীকে।

ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে ৩২ রানের মধ্যে ফেরেন অধিনায়ক বাবর আজম (২১ রান) ও ফখর জামান (১ রান)।

তৃতীয় উইকেটে অভিষিক্ত হায়দার আলীকে নিয়ে দারুণ জুটি গড়েন অভিজ্ঞ মোহাম্মদ হাফিজ। শতরানের জুটি গড়েন তাঁরা। পাকিস্তানের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে অভিষেকেই ফিফটির দেখা পান ১৯ বছর বয়সী হায়দার। তাঁর ৩৩ বলে ৫৪ রানের ইনিংসটি সাজানো পাঁচ ছক্কা ও দুই চারে।

৪০ ছুঁই ছুঁই মোহাম্মদ হাফিজ দ্বিতীয় ম্যাচে ৩৬ বলে ৬৯ রানের ইনিংস খেলার পর মঙ্গলবারও ব্যাট হাতে আলো ছড়ালেন। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যানকে দলে রাখায় সমালোচনা হয়েছিল অনেক। জবাবটা দিয়েছেন ব্যাট হাতে। শেষ ম্যাচে খেললেন ৫২ বলে ৮৬ রানের চমৎকার ইনিংস। টি-টোয়েন্টিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এটাই পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানদের সর্বোচ্চ রানের ইনিংস।

রান তাড়ায় নেমে ব্যক্তিগত শূন্য রানে ফেরেন জনি বেয়ারেস্টো। দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি তিনে নামা ডেভিড মালান (৭ রান)। আগের ম্যাচে তার অপরাজিত ফিফটিতেই জিতেছিল ইংল্যান্ড। দারুণ ছন্দে থাকা মরগান (১০ রান) কাটা পড়েন রান আউটে। ওপেনার টম ব্যান্টন এক প্রান্তে করছিলেন নান্দনিক ব্যাটিং। দারুণ এক ডেলিভারিতে ব্যান্টনকে (৩১ বলে ৪৬ রান) ফেরান হারিস রউফ।

৬৯ রানে ৪ উইকেট হারানো ইংল্যান্ডকে পথ দেখান বাজে সময়ের মধ্যে দিয়ে যাওয়া মঈন আলী। এই ইংলিশ অলরাউন্ডার অবশ্য শুরুতেই একটা সুযোগ দিয়েছিলেন। স্টাম্পিংয়ের সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেননি রিজওয়ানের জায়গায় এ দিন মাঠে নামা সরফরাজ আহমেদ।

১৯তম ওভারে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন ওয়াহাব রিয়াজ। সেই ওভারেই ফেরেন মঈন (৩৩ বলে ৬১)। হারিস রউফের করা শেষ ওভারের শেষ ২ বলে ১২ রান প্রয়োজন ছিল ইংল্যান্ডের। পঞ্চম বলে ছক্কা হাঁকিয়ে দারুণ কিছুর ইঙ্গিত দেন টম কারান। তবে শেষ বলে ব্যাটই ছোঁয়াতে পারেননি।

টানা দুই ফিফটি হাঁকানো মোহাম্মদ হাফিজ জিতে নেন ম্যাচ ও সিরিজ সেরার পুরস্কার।

এএইচ/জেইউ


oranjee