ঢাকা, শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ |

 
 
 
 

মহানায়ক উত্তম কুমারের ৯৪তম জন্মদিন আজ

গ্লোবালটিভিবিডি ১১:১১ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৩, ২০২০

ফাইল ছবি

কিংবদন্তী অভিনেতা, সফল প্রযোজক ও পরিচালক, উত্তম কুমারের ৯৪তম জন্মদিন আজ। ১৯২৬ সালের ৩ সেপ্টেম্বর কলকাতায় উত্তম কুমারের জন্ম। ১৯৮০ সালের ২৪ জুলাই চিরবিদায় নেয়ার পরও উত্তম কুমার হয়ে আছেন বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি মহানায়ক।

তাঁর আসল নাম ছিল অরুণ কুমার চট্টোপাধ্যায়। চলচ্চিত্রে পা রেখে নিজের নাম পাল্টে রাখেন উত্তম কুমার। মধ্যবিত্ত পরিবারের হাল ধরার জন্যে গ্র্যাজুয়েশন শেষ না করেই কলকাতা পোর্টে কেরানীর চাকরি শুরু করেন অরুণ কুমার চট্টোপাধ্যায়।

কিংবদন্তী হয়ে ওঠার পথে হাঁটতে হলো অরুণ কুমারকে উত্তম কুমার হয়ে। রূপালি পর্দায় উত্তম কুমারের শুরু ‘মায়াডোর’ নামের একটি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ছবিটি মুক্তির আলো দেখতে পায় না। এর পর প্রথম ছবি হিসেবে ‘দৃষ্টিদান’ মুক্তি পেলেও উত্তমের ওপর খুব বেশি দৃষ্টি পড়লো না কারোরই। ‘বসু পরিবার’ ছবিটি দিয়ে খানিকটা পরিচিতি জোটে। ১৯৫৩ সালে ‘সাড়ে চুয়াত্তর’ ছবি দিয়ে বাংলা চলচ্চিত্রে ঝড় তোলেন উত্তম কুমার। এই ছবির মধ্য দিয়েই বাংলা চলচ্চিত্র পায় তার সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং সফল জুটির দেখা। শুরু হয় উত্তম-সুচিত্রা যুগ।

পঞ্চাশ ও ষাটের দশক মানেই ‘হারানো সুর’, ‘পথে হল দেরী’, ‘সপ্তপদী’, ‘চাওয়া পাওয়া’, ‘বিপাশা’, ‘জীবন তৃষ্ণা’ আর ‘সাগরিকা’-এর মতো কালজয়ী সব ছবির পরিচিত ও আকাঙ্খিত মুখ উত্তম-সুচিত্রা। উত্তম কুমার শুধু যে বাংলা ছবিতে অভিনয় করেছেন তা কিন্তু নয়। এর পাশাপাশি বেশ কয়েকটি হিন্দি চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছিলেন। তাঁর অভিনীত হিন্দি চলচ্চিত্রের মধ্যে ‘ছোটিসি মুলাকাত’, ‘অমানুষ’, ‘আনন্দ আশ্রম’ প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য। উত্তম কুমার অভিনয় করেছেন সত্যজিৎ রায়ের পরিচালনায় ‘নায়ক’ ও ‘চিড়িয়াখানা’-তে ।

উত্তম কুমার নিজেকে পৌরুষদীপ্ত সুঅভিনেতা হিসেবে প্রমাণ করেন ‘এ্যান্টনি ফিরিঙ্গি’ ছবিতে স্বভাবসুলভ অভিনয়ের মধ্য দিয়ে। উত্তমের সেই ভুবন ভোলানো হাসি, প্রেমিকসুলভ আচার-আচরণ বা ব্যবহারের বাইরেও যে থাকতে পারে অভিনয় এবং অভিনয়ের নানা ধরন, মূলত সেটাই তিনি দেখিয়ে দিয়েছিলেন এই ছবিতে।

উত্তমের নাম উচ্চারণের পাশাপাশি সুচিত্রার নাম আসলেও মহানায়ক নিজেই নিজের অভিনয় গুণে চির অম্লান হয়ে আছেন।

এএইচ/জেইউ


oranjee