ঢাকা, সোমবার, ৮ মার্চ ২০২১ |

 
 
 
 

দুবলার চরে এবার সীমিত পরিসরে হচ্ছে রাস পূজা ও পূণ্যস্নান

গ্লোবালটিভিবিডি ১০:১৬ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২৮, ২০২০

ছবি সংগৃহীত

মোঃ এনামুল হক, মোংলা: বঙ্গোপসাগরের পাড়ে সুন্দরবনের দুবলার চরে রবিবার রাস পূর্ণিমার পূজা ও সোমবার পূণ্যস্নান অনুষ্ঠিত হবে। তাই বনবিভাগের কাছ থেকে পাস-পারমিট নিয়ে শনিবার সকাল ৮টা থেকে পূজা ও স্নানের উদ্দেশ্যে দুবলার চরের আলোর কোলে রওনা করেছেন সনাতন ধমার্বলম্বীরা।

এর আগে শুক্রবার বিকেল থেকে মোংলাসহ সংলগ্ন সুন্দরবন ও সাগর উপকূলীয় বিভিন্ন এলাকার সনাতন ধর্মের লোকজন তাদের নৌযান নিয়ে জড়ো হন মোংলার পশুর নদীর চিলা এবং জয়মনিতে। পূর্ব সুন্দরবনের বগি-বলেশ্বর হয়ে দুবলা ও পশুর নদী হয়ে সরাসরি দুবলা, এই দুই পথ দিয়ে বনবিভাগের বেঁধে দেয়া করোনা বিধিনিষেধ মেনে আলোর কোলে যেতে হবে পূণ্যার্থীদের। এছাড়া পশ্চিম সুন্দরবন দিয়েও যাওয়ার জন্য রয়েছে আরো তিনটি পথ। এই পাঁচটি পথের বাঁকে বাঁকে থাকবে বনবিভাগের তল্লাশী ও কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

পূর্ণিমার তিথিতেই ঐতিহ্যবাহী রাস মেলা হয়ে থাকে। প্রতি বছর বাংলা কার্তিক মাসের শেষে বা অগ্রহায়ণের প্রথম দিকের ভরা পূর্ণিমার তিথিতে এ রাস পূজা ও স্নান উদযাপিত হয়ে আসছে। সনাতন (হিন্দু) ধর্মালম্বীরা এ সময় পূর্ণিমার জোয়ারের লোনা পানিতে স্নান করে তাদের পাপ মোচন হবে এমন বিশ্বাস নিয়ে রাস পূজায় যোগ দিয়ে থাকেন।

উল্লেখ্য, করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার সুন্দরবনের দুবলার চরে শত বছরের ঐতিহ্যবাহী রাস উৎসব বা মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। সনাতন (হিন্দু) ধর্মাবলম্বীদের এবার শুধু রাস পূর্ণিমার পূজা ও পুণ্যস্নানে অংশগ্রহণের অনুমতি দিয়েছে বনবিভাগ। এই সময়ে দুবলার চরে যেতে পারবে না কোন পর্যটক ও সনাতন ধর্মের লোকজন ছাড়া অন্য কোন ধর্মের মানুষ। এর আগে ২০১৯ সালে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে রাস পূজা ও পুণ্যস্নান উপলক্ষে কোন মেলা বা উৎসব হয়নি।

পূর্ব সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বলেন, আগামী ২৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় সুন্দরবনের দুবলার চরে রাস পূজা ও ৩০ নভেম্বর সকালে চর সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে পুণ্যস্নানের মধ্য দিয়ে রাস পূজা শেষ হবে।

এএইচ/জেইউ 


oranjee