ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ |

 
 
 
 

ভাত খাবেন কতটুকু কিভাবে, সুস্থ সুন্দর থাকবেন যেভাবে

গ্লোবালটিভিবিডি ৯:৫০ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০

এখনকার সময়ে ওজন কমাতে অনেকেই নিয়মিত ভাত খাওয়া থেকে বিরত থাকছেন। অনেকে আবার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে ভাত খুব কমই খাচ্ছেন। শরীরে শর্করা'র পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতেই ভাতের সাথে আমাদের এমন দূরত্ব বজায় রেখে চলার স্বভাব তৈরি হয়েছে। যদিও পুষ্টিবিদদের মতে, যেহেতু এশিয়ার মানুষ হাজার হাজার বছর ধরে ভাত খেতে অভ্যস্ত। তাই তা থেকে একেবারে মুখ ফিরিয়ে থাকাটাও বোকামি বলা যায়।

তাই বলে অসুখ-বিসুখের ভয়? ভাত বাদ দেওয়ার যে চল আজকাল শুরু হয়েছে, এক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় কালো চাল খেলে বরং হার্টের রোগ আর ক্যানসার ঠেকিয়ে রাখার পথে অনেকটা এগিয়ে থাকা সম্ভব হবে। জানেন কি, কালো চালে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট থাকে। তাই, ইদানীং ডায়াবেটিস রোগীদেরও নিশ্চিন্তে এই চাল নিয়ন্ত্রিত মাপে খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

পুষ্টি বিজ্ঞানের তথ্য মতে, কালো চালে ক্যালোরির পরিমাণ যেমন কম থাকে তেমনি মেলে পর্যাপ্ত পরিমাণে উদ্ভিজ্জ প্রোটিন। ফ্ল্যাভনয়েড ফাইটোনিউট্রিয়েন্টের কারণে নানা রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতাও মেলে এই কালো চাল থেকে। এর মধ্যে ফাইবার যতটা আছে, সাদা বা লাল চালের তুলনায় তা অনেকটাই বেশি। কালো চাল অক্সিডেটিভ স্ট্রেসের মাত্রা কমায়। লিভার ও হার্টকে সুস্থ রাখতে পারে। এতে থাকা অ্যান্থোসায়ানিন যে কোনও ফ্রি রাডিক্যালের ক্ষয় রোধ করে শরীরকে সুস্থ রাখে। গ্লুটেনমুক্ত হওয়ায় বাড়তি মেদ জমার ভয়ও একেবারেই থাকে না।

কালো চাল রান্নার কিছু বিষয় জেনে নিন-

এই চাল রান্নার সময় চালের পরিমাণের দ্বিগুণ পানি দিন। ফেনটুকু ঝরিয়ে ভাত খেতে চাইলে পানি দিতে হবে আরও বেশি।

কালো চালের ভাত রান্না হতে আধ ঘণ্টার মতো সময় লেগে যায়। তাই আগের রাত থেকে ভিজিয়ে রাখুন চাল। এভাবে সময় অনেক কম লাগবে।

এই কালো চাল দিয়ে পায়েস বানিয়ে খেলেও একই পুষ্টিগুণ পাবেন। কালো চালে বানানো পায়েস বেগুনি রং  ধারণ করে।

 

তথ্যসূত্রঃ আনন্দবাজার পত্রিকা

জেইউ


oranjee