ঢাকা, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ | ১৪ শা‘বান ১৪৪৫

আজ জহির রায়হানের অন্তর্ধান দিবস

আজ জহির রায়হানের অন্তর্ধান দিবস

ফাইল ছবি

আজ চলচ্চিত্রকার, সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক জহির রায়হানের অন্তর্ধান দিবস। ১৯৭২ সালের এ দিনে ঢাকার মিরপুর থেকে নিখোঁজ হন তিনি।

জানা যায, তিনি ভারত থেক ফিরে আসার পর মুক্তিযুদ্ধকালে সংঘটিত বুদ্ধিজীবী নিধনযজ্ঞের তদন্তে ১৯৭২ সালে জহির রায়হানের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছিল। এই কমিটির কার্যক্রম চলাকালেই ওই বছরের ৩০ জানুয়ারি অজ্ঞাত সূত্রের খবর পেয়ে বড় ভাই সাংবাদিক শহীদ বুদ্ধিজীবী শহীদুল্লা কায়সারের সন্ধানে বেরিয়ে আর ফিরে আসেননি জহির রায়হান। তার মৃতদেহটিও পাওয়া যায়নি।

মোহাম্মদ হাবিবুল্লাহ ও সৈয়দা সুফিয়া খাতুন দম্পতির সন্তান জহির রায়হান ১৯৩৫ সালের ১৯ আগস্ট ফেনীর মজুপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পারিবারিক নাম আবু আবদার মোহাম্মদ জহিরুল্লাহ।

জহির রায়হান ১৯৪০ সালে কলকাতা মডেল স্কুলে ভর্তি হন। তার বাবা তখন কলকাতা আলিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক ছিলেন। মডেল স্কুলে তিনি প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। এরপর মিত্র ইনস্টিটিউশন (মেইন) থেকে সপ্তম শ্রেণী পাস করে আলিয়া মাদ্রাসার অ্যাংলো-পার্শিয়ান বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর বাবার সঙ্গে মজুপুরে চলে আসেন। স্থানীয় আমিরাবাদ হাইস্কুল থেকে ১৯৫০ সালে প্রথম বিভাগে ম্যাট্রিক পাস করেন। ১৯৫৩ সালে ঢাকা কলেজ থেকে আইএসসি পাস করেন। ঢাকা কলেজে পড়াশোনার সময় তিনি ভাষা আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত হন। এরপর এক বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতি পড়ে বাংলা বিভাগ থেকে ১৯৫৮ সালে দ্বিতীয় শ্রেণীতে অনার্স পাস করেন। এরপর এমএ-তে ভর্তি হন।

মুক্তিযুদ্ধের কিছুকাল আগে তার নির্মিত ‘জীবন থেকে নেয়া’ চলচ্চিত্র মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর গণহত্যার প্রামাণ্য চলচ্চিত্র ‘স্টপ জেনোসাইড’ নির্মাণ করে সাড়া ফেলেছিলেন তিনি।

এ ছাড়াও ‘কখনো আসেনি’, ‘সোনার কাজল’, ‘কাঁচের দেয়াল’, ‘বাহানা’, ‘বেহুলা’, ‘আনোয়ারা’, ‘সঙ্গম’ প্রভৃতি তার কালজয়ী চলচ্চিত্র। তার রচিত উপন্যাসের মধ্যে ‘হাজার বছর ধরে’, ‘আরেক ফাল্‌গুন’, ‘বরফ গলা নদী’, ‘শেষ বিকেলের মেয়ে’, ‘আর কত দিন’, ‘কয়েকটি মৃত্যু’, ‘তৃষ্ণা’ উল্লেখযোগ্য। ‘সূর্য গ্রহণ’ তার সুপরিচিত গল্পগ্রন্থ।

সাহিত্য ও চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য বিভিন্ন পুরস্কারে ভূষিত হন জহির রায়হান। উল্লেখযোগ্য স্বীকৃতি হলো— আদমজী সাহিত্য পুরস্কার (১৯৬৪, হাজার বছর ধরে), নিগার (কাঁচের দেয়াল, শ্রেষ্ঠ বাংলা ছবি), বাংলা একাডেমি পুরস্কার (১৯৭১, সাহিত্য : মরণোত্তর, ১৯৭২ সালে ঘোষিত), একুশে পদক (১৯৭৭, চলচ্চিত্র : মরণোত্তর) ও স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার (১৯৯২, সাহিত্য : মরণোত্তর)।

দিবসটি উপলক্ষে পারিবারিকভাবে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল ছাড়াও বিভিন্ন সংগঠন নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। অনুষ্ঠানমালায় রয়েছে জহির রায়হানের জীবন ও কর্মের ওপর আলোচনা, প্রামাণ্যচিত্র ও তার নির্মিত চলচ্চিত্র প্রদর্শনী।

এএইচ