ঢাকা, শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২৩ | ১৩ মাঘ ১৪২৯ | ৫ রজব ১৪৪৪

মুক্তিপণের জন্য শিশু আয়াতকে অপহরণ করে হত্যা!

মুক্তিপণের জন্য শিশু আয়াতকে অপহরণ করে হত্যা!

ছবি: সংগৃহীত

চট্টগ্রামের ইপিজেড থানাধীন বন্দরটিলা এলাকা থেকে নিখোঁজ শিশু আয়াতের খণ্ডবিখণ্ড লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজের ১০ দিন পর শুক্রবার ইপিজেডের আকমল আলী রোড এলাকা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

সিসিটিভি ফুটেজে শনাক্ত করে আবিরকে বৃহস্পতিবার আটক করা হয়েছে। 

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পিবিআই চট্টগ্রাম মেট্রোর পুলিশ সুপার নাঈমা সুলতানা। তিনি বলেন, মুক্তিপণের জন্য শিশু আয়াতকে অপহরণ করে আবির আলী নামের তাদের এক সাবেক ভাড়াটিয়া। সিসিটিভি ফুটেজে শনাক্ত করে আবিরকে বৃহস্পতিবার আটক করা হয়েছে। সে হত্যার কথা স্বীকার করেছে।

তিনি আরও বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আবির জানিয়েছে, মুক্তিপণের উদ্দেশ্যে ঘটনার দিন বিকেলে আয়াতকে অপহরণের চেষ্টা করে সে। এ সময় চিৎকার করলে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। পরে ওই শিশুর লাশ নদীতে ফেলে দেয়া হয়।

আয়াত চট্টগ্রাম নগরীর ইপিজেড থানার বন্দরটিলা ওয়াজ মুন্সিবাড়ি এলাকার বাসিন্দা সোহেল রানা ও সাহিদা আক্তার তামান্না দম্পতির মেয়ে। আয়াত স্থানীয় তালিমুল কোরআন নুরানি মাদরাসার হেফজখানার ছাত্রী ছিল।

শুক্রবার পিবিআই জানায়, ১৫ নভেম্বর আয়াতের বাবা ইপিজেড থানায় মেয়ে নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। এ ঘটনায় কয়েক দিন আগে সন্দেহভাজন আবির আলীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। আবির জানায়, মুক্তিপণ আদায়ের জন্য শিশুটিকে অপহরণের পর হত্যা করে সে। এরপর লাশ ছয় টুকরা করে সাগরে ভাসিয়ে দেয়। 

এর আগে ১৫ নভেম্বর বিকেল সাড়ে ৩টায় নগরীর ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডের নয়ারহাট বিদ্যুৎ অফিসের সামনে থেকে নিখোঁজ হয় সে। একইদিন রাতে ইপিজেড থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করেন আয়াতের বাবা সোহেল রানা।

এএইচ