ঢাকা, রবিবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩ | ১৫ মাঘ ১৪২৯ | ৭ রজব ১৪৪৪

ইংলিশদের কাছে ১০ উইকেটের লজ্জায় বিধ্বস্ত ভারত

ইংলিশদের কাছে ১০ উইকেটের লজ্জায় বিধ্বস্ত ভারত

ছবি: সংগৃহীত

ইংলিশদের কাছে ১০ উইকেটে বিধ্বস্ত হয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিলো ভারত। ২৪ বল হাতে রেখে কোনো উইকেটে না হারিয়ে জিতে ফাইনালে চলে গেলো ইংল্যান্ড।

বৃহস্পতিবার অ্যাডিলেড ওভালে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৬৮ রান করে ভারত।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে এসে প্রথম উইকেট হারায় ভারত। ৫ বলে ৫ রান করে ক্রিস উকসের বলে উইকেটের পেছনে জশ বাটলারের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরত যান উদ্বোধনী ব্যাটার লোকেশ রাহুল।

এরপর রোহিতের সঙ্গে ৪৭ রানের জুটি গড়েন কোহলি। ক্রিস জর্ডানের বলে ডিপ মিডউইকেটে ক্যাচ ধরেন শ্যাম কারান। ২৮ বলে ২৭ রান করে ফিরতে হয় রোহিত শর্মাকে।

১০ বলে ১৪ রান করে ফিল সল্টের হাতে ক্যাচ দিয়ে  সূর্য কুমার যাদব ফেরেন আদিল রশিদের বলে। এরপর হার্দিকের সঙ্গে ৬১ রানের জুটি গড়েন কোহলি। তিনি পেয়ে যান চলতি টুর্নামেন্টে নিজের চতুর্থ হাফ সেঞ্চুরির দেখাও। 

৪০ বলে ৫০ রান করে ক্রিস জর্ডানের বলে আদিল রশিদের দুর্দান্ত ক্যাচ হয়ে ফিরতে হয় কোহলিকে। তবে অন্য প্রান্তে বোলারদের নিয়ে ছেলেখেলায় মাতেন পান্ডিয়া। 

ইনিংসের শেষ বলে হিট উইকেট হওয়ার আগে ৪ চার ও ৫ ছক্কায় ৩৩ বলে ৬৩ রান করেন হার্দিক। ইংলিশদের পক্ষে ৪ ওভারে ৪৩ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন জর্ডান।

রান তাড়ায় নেমে শুরু থেকেই ভারতের বোলারদের ওপর আগ্রাসন চালান দুই ইংলিশ ওপেনার বাটলার ও হেইলস। ওভারপ্রতি ১০ রান করে তুলে ভারতকে চেপে ধরে ২০১০-এর বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

পাওয়ার প্লের নির্ধারিত ছয় ওভারে বিনা উইকেট ৬৩ রান তোলে ইংল্যান্ড। ১০.১ ওভারেই দলীয় সংগ্রহ শত রানের কোটা পার করে। বাটলারের অপরাজিত ৪৯ বলে ৮০ আর হেইলসের হার না মানা ৪৭ বলে ৮৬ রানের ইনিংসে ভর করে ১৬ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে ১৭০ রান তুলে নেয় ইংলিশরা।

এএইচ