ঢাকা, রবিবার, ৩ জুলাই ২০২২ | ১৮ আষাঢ় ১৪২৯ | ৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

হবিগঞ্জে নিম্নাঞ্চলের প্রায় আড়াই শ’ পরিবার পানিবন্দি

হবিগঞ্জে নিম্নাঞ্চলের প্রায় আড়াই শ’ পরিবার পানিবন্দি

ছবিঃ সংগৃহীত

হবিগঞ্জের কুশিয়ারা নদীঘেঁষা নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নে নিম্নাঞ্চলের প্রায় আড়াই শ’ পরিবার পানিবন্দি অবস্থায় মানবেতর জীবনযাপন করছে। এখানকার ছয় গ্রামের ৫৩টি পরিবার নিকটস্থ বন্যা আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান নিয়েছে। 

মঙ্গলবার (২৫ মে) বিকেল পর্যন্ত কুশিয়ারা নদীর পানি বিপৎসীমার ১০৩ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল বলে জানা গেছে।  

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ ধরে টানা বৃষ্টি ও উজানের পাহাড়ি ঢলে কুশিয়ারাসহ অন্যান্য নদ-নদীর পানি ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে।
ফলে আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠায় রয়েছেন দীঘলবাক ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের মানুষ। এই ইউনিয়নের রাধাপুর, ফাদুল্লাহ, মাধবপুর, গালিমপুর, পাহাড়পুর, আউশকান্দি ইউনিয়নের পারকুল অংশে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ দেবে যাওয়ায় মেরামতে ফেলা হচ্ছে বালুভর্তি ব্যাগ। রাত জেগে বাঁধ পাহারা দিচ্ছেন এলাকাবাসী। 

মাধবপুর, পশ্চিম মাধবপুর ও গালিমপুর বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। প্লাবিত হয়েছে পাকা সড়ক ও মাধবপুর-গালিমপুর বাজার। লোকালয়ে বন্যার পানি আসায় তিনটি গ্রামের প্রায় আড়াই শ পরিবার পানিবন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। গালিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বন্যা আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান নিয়েছে ৫৩টি পরিবার। অনেকেই বাড়িঘরে হাঁটুপানি থাকা সত্ত্বেও গরু, হাঁস, মুরগি ছেড়ে আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে চাচ্ছেন না।  

এদিকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশ্রয়কেন্দ্রে ৫০০ কেজি চাল প্রদান করা হয়েছে বলে জানা যায়।  

এএইচ