ঢাকা, সোমবার, ১৬ মে ২০২২ | ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ | ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩

টাঙ্গাইলে গারোদের ওয়ানগালা উৎসব পালিত

টাঙ্গাইলে গারোদের ওয়ানগালা উৎসব পালিত

ছবি: গ্লোবাল টিভি

আরিফুল ইসলাম, টাঙ্গাইলঃ গারোদের ঐতিহ্যবাহী সামাজিক উৎসব ওয়ানগালা উৎসব নানা আয়োজনে পালিত হয়েছে। 
রবিবার টাঙ্গাইলের মধুপুর গড়াঞ্চলের বসবাসরত খ্রিষ্ট রাজার মহাপর্ব দিনে পীরগাছা সেন্ট পৌলস্ মিশনের আয়োজনে সেন্ট পৌলস উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ এবং জলছত্র মিশণের আয়োজনে ঘায়রা মিশনারী স্কুল মাঠে দিনব্যাপি অনুষ্ঠান উদযাপিত হয়।

আদিকাল থেকেই গারোদের বিশ্বাস, মানুষের জীবন ও জীবিকার জন্য তার প্রাকৃতিক যা কিছু সম্পদ, সবই দেবতার সৃষ্টি এবং দান। দেবতারা পৃথিবী, সালজং পার্থিব ফসলাদি এবং সুষিমি রোগ নিরাময়কারী ও ঐশ্বর্য প্রদানকারী। তাই দেবতাদের দানকৃত সম্পদ বা ফসলাদি ব্যবহার করার আগে প্রকৃতি ঘনিষ্ঠ গারোরা তাদের উৎপাদিত ফসলাদি সুষিমি, সালজংসহ ওইসব দেবতাদের উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করে। দেবতাদের উৎসর্গ করা ছাড়া গারোরা তাদের ফসল ব্যবহার করে না। ফসল উৎসর্গের এই আনুষ্ঠানিকতাকেই গারো ভাষায় বলা হয় ওয়ানগালা। 

ক্যাথলিকদের ময়মনসিংহ ধর্ম প্রদেশে খ্রিষ্ট রাজার মহাপর্ব উপলক্ষে মধুপুরের দুটি পৃথক স্থানে অভিন্ন  জাঁকজমকপূর্ণ এ অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়। পীরগাছা মিশন কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি ছিলেন আর্চ বিশপ সুব্রত লরেন্স হাওলাদার। পীরগাছা ধর্মপল্লী পাল পুরোহিত ফা. লরেন্স সিএসসি সভাপতিত্ব করেন। 

বক্তৃতা পর্বে অংশ নেন ফাদার শংকর, আশিষ, সিস্টার সুষমা, মধুপুর উপজেলা পরিষদের নারী ভাইস চেয়ারম্যান যষ্ঠিনা নকরেক, গারো নেতা মার্টিন মৃ, সেন্টপৌলস হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক অরুণ মৃ, লিটুশ চিরাণ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের সাংস্কৃতিক পর্বে গারোদের জীবন ঘনিষ্ঠ সংস্কৃতি তুলে ধরা হয়। রুগালা, গোরীরুয়া, গ্রিক্কা, বিসাদিমদিমা, চাম্বিল মেসা, নকগাখা, চাওয়ারী সিকগা ইত্যাদি শিরোনামের অনুষ্ঠিত পার্বিক বিষয়গুলো গারো সংস্কৃতিকে পরিচিত করে তোলে। মধুপুর বনাঞ্চলের গারোদের সর্ববৃহৎ সামাজিক অনুষ্ঠান এই ওয়ানগালার আয়োজনে দেশি-বিদেশি অতিথি ছাড়াও হাজার হাজার লোক সমাগম হয়।

এএইচ