ঢাকা, রবিবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২০ | ১২ মাঘ ১৪২৬

 
 
 
 

আবারো বাড়ছে দেশি পেঁয়াজের দাম

গ্লোবালটিভিবিডি ২:৩৭ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৫, ২০১৯

ফাইল ছবি

আবারো বাজারে বাড়ছে দেশি পেঁয়াজের দাম। ব্যবসায়ীদের দাবি, সরবরাহ কম থাকায়, কেজিপ্রতি বেড়েছে ৮ থেকে ১০ টাকা। তবে আমদানি করা পেঁয়াজের সরবরাহ ধীরে ধীরে বাড়ছে, কমছে দামও।

রাজধানীর বাজারে গত দুই দিনের তুলনায় ৮-১০ টাকা বেড়ে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২১০ টাকায়। ভারতীয় পেঁয়াজ ১৯০, মিয়ানমারের ১৭৫, মিশর ও চীন থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকায়।

অতিসম্প্রতি কয়েকটি দেশ থেকে আমদানি হয়েছে পেঁয়াজ, দেশি পেঁয়াজও উঠেছে বাজারে। এরপরও দাম আবারও আড়াইশ'র কাছাকাছি। রাজধানীসহ দেশের বেশ কিছু জেলায় খুচরা বাজারে ২৪০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। এদিকে, দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে খোলা বাজারে বিক্রির পাশাপাশি বাজারে নজরদারি বাড়ানোর তাগিদ ক্ষুব্ধ ক্রেতাদের।

পেঁয়াজ আমদানির পাশাপাশি বাজারে দেশি পেঁয়াজ আসায় সপ্তাহখানেক আগে কমতে শুরু করেছিল দাম। তবে আবারো দাম বাড়ছে দেশি পেঁয়াজের। রাজশাহীতে খুচরা বাজারে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৪০ থেকে ২৫০ টাকায় ,আমদানি করা পেঁয়াজের দাম ২০০ থেকে ২১০ টাকা। পাবনাতে দেশি পেঁয়াজ খুচরায় বিক্রি হচ্ছে ২২০ থেকে ২৪০ টাকায়।

চার দিন আগেই নীলফামারীর বিভিন্ন উপজেলায় প্রতি কেজি পেঁয়াজ খুচরায় বিক্রি হচ্ছিল ১৮০ থেকে ১৯০ টাকায়। তবে এখন দাম বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৩০ থেকে ২৪০ টাকা। দামের এমন অস্থির ওঠানামায় ক্ষুদ্ধ ক্রেতারা।

চট্টগ্রামে গত সপ্তাহে খুচরা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল ১৫০ টাকা। তবে সকাল থেকে দাম বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায়। অন্যদিকে রাঙ্গামাটিতে বাজার থেকে প্রায় উধাও হয়ে গেছে পেঁয়াজ। ব্যবসায়ীরা বলছেন, দামের এমন ওঠানামায় ঝুঁকি এড়াতে বিক্রি বন্ধ রেখেছেন তারা।

দেশের সব জেলায় টিসিবির মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রির কথা থাকলেও অনেক ক্ষেত্রেই তা মানা হচ্ছে না। তিন পার্বত্য জেলার পাশাপাশি লক্ষ্মীপুর মেহেরপুর, শেরপুর, সুনামগঞ্জ, পঞ্চগড়সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় খোলা বাজারে মিলছে না পেঁয়াজ। এ নিয়ে ক্ষুদ্ধ সাধারণ মানুষ।

বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ স্বাভাবিক না হলে পেঁয়াজের দাম কমবে না, বলছেন বিক্রেতারা। তবে ক্রেতারা বলছেন, বাজার মনিটরিং জোরদার করা না গেলে নিয়ন্ত্রণে আসবে না দাম।

এমএস


oranjee