ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ |

 
 
 
 

শিশু জিনিয়াকে অপহরণের দায়ে কথিত সাংবাদিক লুপা গ্রেপ্তার

গ্লোবালটিভিবিডি ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৯, ২০২০

ছবিঃ সংগৃহীত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকা থেকে অপহরণের সাত দিন পর ফুল বিক্রেতা পথশিশু জিনিয়াকে (৯) উদ্ধার করে আদালতের নির্দেশে তার মায়ের জিম্মায় তুলে দিয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। গত সোমবার দিবাগত রাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার আমতলা এলাকা থেকে জিনিয়াকে উদ্ধার করা হয়। সেই সাথে অপহরণকারী নূর নাজমা আক্তার লুপা তালুকদার (৪২) নামে কথিত এক সাংবাদিককেও গ্রেপ্তার করে ডিবির রমনা জোনাল টিম।

ডিবি সূত্র জানায়, পথশিশু জিনিয়াকে অসৎ উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। গ্রেপ্তার লোপাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মঙ্গলবার দু'দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। এ দিন তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় অপহরণের ঘটনায় শাহবাগ থানায় করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে লোপাকে সাত দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করে পুলিশ। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম নিভানা খায়ের জেসি দু'দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

জিনিয়াকে তার মায়ের জিম্মায় দেন ঢাকা মহানগর হাকিম ইলিয়াস মিয়া। ঢাবি শিক্ষার্থী কিংবা টিএসসি কেন্দ্রিক যাদের আনাগোনা তারা সবাই জিনিয়ার সঙ্গে পরিচিত। ছোট বেলা থেকেই সে মা সেনুয়া বেগমের সঙ্গে টিএসসিতে থাকে। ফুল বিক্রি করে মায়ের সংসারে অর্থের জোগান দিত জিনিয়া। তার নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে সব মহলে আলোচনার ঝড় ওঠে, আর তাৎক্ষণিকভাবে তৎপর হন পুলিশ সদস্যরা। পুলিশের ধারাবাহিক প্রচেষ্টায় সাত দিন পর তাকে সুস্থ ও স্বাভাবিক অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

জিনিয়ার মা সেনুয়া বেগম জানান, কয়েক বছর আগে জিনিয়ার বড় বোনও নিখোঁজ হয়েছিল। দেড় বছর পর খোঁজ মিলেছিল তার। বাবা হারানো তিন মেয়েকে নিয়ে ফুল বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করেন জিনিয়ার মা। গত ১ সেপ্টেম্বর দুইজন নারীর সঙ্গে চটপটি খেয়েছে জিনিয়া। পরে জিনিয়াকে সব ফুল বিক্রি করার জন্য বলেছিলেন তার মা। এর কিছুক্ষণ পর থেকে জিনিয়াকে আর পাওয়া যাচ্ছিল না। হারানো মেয়েকে পেয়ে গতকাল আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন জিনিয়ার মা।

এদিকে, সাংবাদিক নামধারী লুপা তালুকদার অসৎ উদ্দেশ্যে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে জিনিয়াকে অপহরণ করেন জানিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগের যুগ্ম পুলিশ কমিশনার মো. মাহবুব আলম বলেন, জিনিয়ার মা গত ২ সেপ্টেম্বর জিনিয়ার নিখোঁজ বিষয়ে শাহবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এর সূত্র ধরে গোয়েন্দা রমনা বিভাগ ছায়া তদন্ত শুরু করে। প্রাথমিক তদন্ত ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষ্য মতে জানা যায়, দুইজন নারী জিনিয়াকে ফুচকা খাওয়ায় এবং টিএসসি এলাকায় তাকে নিয়ে ঘোরাফেরা করে। পরে জিনিয়াকে ফুসলিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায় তারা।

পুলিশের এই যুগ্ম কমিশনার বলেন, জিনিয়াকে অপহরণের অভিযোগে সেখান থেকেই লুপা তালুকদারকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার লুপা তালুকদার জানিয়েছেন, অসৎ উদ্দেশ্যে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে জিনিয়াকে অপহরণ করেছিলেন তিনি।

গোয়েন্দা পুলিশের রমনা বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মিশু বিশ্বাস জানান, গত ১ সেপ্টেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এলাকা থেকে লুপা তালুকদার নামে এক নারী তাকে নানা প্রলোভন দেখিয়ে নিয়ে যায়। পরে নারায়ণগঞ্জে তার বোনের বাসায় রাখে। সেখানে থেকেই জিনিয়াকে উদ্ধার করা হয়। সে বর্তমানে সুস্থ এবং স্বাভাবিক আছে। লুপা নিজেকে একটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যমের সাংবাদিক হিসেবে পরিচয় দেয়। কিন্তু সেই সংবাদ মাধ্যমের কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি।

এএইচ/জেইউ


oranjee