ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১ অক্টোবর ২০২০ |

 
 
 
 

রাজধানীতে চাকরি দেয়ার নামে অফিসে নিয়ে ধর্ষণ

গ্লোবালটিভিবিডি ১০:৪৫ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৬, ২০২০

ফাইল ছবি

রাজধানীর বাড্ডায় চাকরি দেওয়ার আশ্বাসে অফিসে নিয়ে এক তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধর্ষণে সহযোগিতার অভিযোগে শনিবার জাহিদ হাসান (৪৫) নামে একজনকে প্রগতি সরণির গুলশান কমার্স কলেজ এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এর আগে শুক্রবার ফার্মগেট গ্রিন রোড এলাকা থেকে শহিদুল হক (৪৫) নামে আরেক সহযোগীকে গ্রেফতার করা হয়। প্রধান অভিযুক্ত জসিম এখনো গ্রেফতার হয়নি বলে জানিয়েছেন বাড্ডা থানার এসআই মাসুদুর রহমান।

শনিবার দুপুরে ধর্ষণের শিকার ওই তরুণীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়। ঢামেক সূত্র জানায়, মেয়েটির বাড়ি পটুয়াখালীতে।

জানা যায়, উচ্চমাধ্যমিক পাস করার পর চাকরির উদ্দেশ্যে ৯ দিন আগে বাড্ডা হোসেন মার্কেটের পেছনে ময়নারবাগ এলাকায় তার এক পরিচিতের বাসায় আসে ঐ তরুণী। সেখানে জমিস নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে তার পরিচয় হয়। জসিম তাকে প্রগতি সরণির শেল্টার সিকিউরিটি সার্ভিসেস বিডি লিমিটেডে চাকরি পাইয়ে দেয়ার আশ্বাস দেন। ১৭ জুলাই প্রগতি সরণির গ ৯৭/১ নম্বর ভবনের চারতলার ওই কোম্পানির অফিসে তরুণীকে নিয়ে যান। সেখানে দরজা বন্ধ করে মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন।

এ সময় প্রতিষ্ঠানটির অপারেশন ম্যানেজার শহিদুল হক রুমের দরজা বাইরে থেকে আটকে দেন। ম্যানেজিং ডিরেক্টর জাহিদ হাসানও ধর্ষণে সহায়তা করেন। ওইদিন বেলা আড়াইটার দিকে ধর্ষণের শিকার হওয়া মেয়েটি লজ্জায় কাউকে কিছু না বলে পরিচিতের ওই বাসায় চলে যায়। পরে অন্য একটি অনলাইন শপিংয়ে চাকরি নেয়।

সেখানে চাকরিরত অবস্থায় মেয়েটির কান্না দেখে সহকর্মীরা কারণ জানতে চাইলে একপর্যায়ে সে তাদের ঘটনা খুলে বলে। পরে সহকর্মীরা তাকে নিয়ে ২৪ জুলাই শুক্রবার রাতে বাড্ডা থানায় গিয়ে ঘটনার বিস্তারিত জানান এবং ধর্ষণের অভিযোগে একটি মামলা করেন।

এএইচ/জেইউ


oranjee