ঢাকা, শনিবার, ৪ এপ্রিল ২০২০ | ১২ চৈত্র ১৪২৬

 
 
 
 

স্বাধীনতা দিবসে জনশূন্য ঢাকা শহর

গ্লোবালটিভিবিডি ১০:৪৭ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২৬, ২০২০

ছবি- সংগৃহীত

বাংলাদেশে কত হরতাল, অবরোধ, ধর্মঘট হয়েছে কিন্তু এমনটি হয়নি কখনো এবং স্বাধীনতা দিবসে এমন ঢাকা শহর এর আগে কেউ দেখেনি হয়তো। রাস্তায় মানুষ নেই, গাড়িও চলছে না। ছোট-বড় শপিংমল, মার্কেট, হোটেল রেস্টুরেন্ট, সরকারি-বেসরকারি অফিস, আদালতও বন্ধ।

এ মুহূর্তে ঢাকা শহর ঘুরে হাতের কড়া গুণে বলে দেয়া যাবে রাস্তায় কত লোক আছে। রমনা পার্কে নিয়মিত প্রাতঃভ্রমণকারী অবসরপ্রাপ্ত একজন সরকারি কর্মকর্তা বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) সকাল সাড়ে ৭টায় শাহবাগ মোড়ের সামনে দাঁড়িয়ে করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে প্রায় জনশূন্য রাজধানী ঢাকা সম্পর্কে ঠিক এভাবেই তাঁর প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছিলেন।

তিনি এও বলছিলেন, ‘স্বাধীনতা দিবসের আনন্দ কেড়ে নিয়েছে অদৃশ্য ভাইরাস করোনা। প্রতি বছর মহান স্বাধীনতা দিবস অর্থাৎ ২৬ মার্চের সকালে শাহবাগে লোকে লোকারণ্য থাকে। আজ মানুষ নেই বললেই চলে।’

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে সরকার আজ থেকে আগামী ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি ছুটির ঘোষণা দিয়েছে। গণপরিবহনসহ সব ধরনের পরিবহন চলাচল বন্ধ রেখেছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাজধানীসহ দেশের মানুষকে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করার নির্দেশ দিয়েছে।

অন্যান্য বছর মহান স্বাধীনতা দিবসের কাক ডাকা ভোর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস, সোহরাওয়ার্দী ও রমনা পার্কে নারী, পুরুষ ও শিশুর ঢল নামে। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, উচ্চস্বরে দেশাত্মবোধক গান বাজে। আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে ওঠেন সবাই। কিন্তু আজ মাইকের কোনো শব্দ নেই। নেই মানুষের পদচারণা। মারাত্মক ছোঁয়াচে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের ভয়ে নিজেরাই সচেতন হয়ে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন। সরকারিভাবেও প্রয়োজন ছাড়া ঘরেই অবস্থান করতে বলা হয়েছে।

দেশে গতকাল (২৫ মার্চ) পর্যন্ত ৩৯ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। রোগতত্ত্ববিদ ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখলে এ রোগটি ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়তে পারে। সে কারণেই স্বাধীনতা দিবসের প্রায় সব অনুষ্ঠান বাতিল করে সরকার।

আরকে/জেইউ


oranjee