ঢাকা, শনিবার, ৪ এপ্রিল ২০২০ | ১২ চৈত্র ১৪২৬

 
 
 
 

বেতনভাতা পাচ্ছেন না কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীরা

গ্লোবালটিভিবিডি ৫:১৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৩, ২০২০

ছবি সংগৃহীত

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে সর্বপ্রথম ১৯৬৮ সালে কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠানটি অনেক চড়াই উৎরাই পার করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হয়ে অনার্স ও মাস্টার্স পর্যন্ত কোর্স চালু করে। পাশাপাশি কারিগরি বোর্ডের স্বীকৃতি পেয়ে শিক্ষার্থীরা কারিগরি শাখায় ভর্তি হয়ে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হচ্ছেন।

আজ সেই প্রতিষ্ঠানের মানুষ গড়ার কারিগরেরা করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দ্রব্যমূল্যোর উর্ধগতির এই দু:সময়ে গত ফেব্রুয়ারী মাসের বেতনভাতা থেকে বঞ্চিত হয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

এই মহা দুর্যোগের সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১৭২ জন শিক্ষক-কর্মচারী এখনো ফেব্রুয়ারী মাসের বেতন-ভাতা পাননি বলে অভিযোগ করেছেন। প্রতিষ্ঠানের ১৭২ জন শিক্ষক কর্মচারীদের মধ্যে মাত্র ৫০ জন শিক্ষক কর্মচারী এমপিওভুক্ত। যে সকল শিক্ষক কর্মচারী নন এমপিও ভুক্ত, তাঁদের বেতনভাতা প্রতিষ্ঠান জন্মলগ্ন থেকে প্রদান করে আসছিল। প্রতিষ্ঠানটি বর্তমানে কুষ্টিয়া জেলার মধ্যে সর্ববৃহত বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,তাদের রয়েছে প্রচুর পরিমাণ গচ্ছিত অর্থ। সেই অর্থ দিয়েই পূর্বে থেকেই সকল শিক্ষকদের বেতনভাতা, বাড়িভাড়াসহ বিভিন্ন ধরনের ভাতা প্রদান করা হয়ে থাকে। কিন্তু হঠাৎ করে এই দুর্যোগের মুহূর্তে বেতনভাতা আটকে যাওয়ার ফলে তাঁরা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। অথচ এ পরিস্থিতিতে কুষ্টিয়ার বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক কর্মচারীদের অগ্রীম বেতন ভাতা প্রদানের সংবাদ পাওয়া গেছে।

কলেজের দিবা প্রহরী শাহাবুদ্দিন বলেন, আমাদের কলেজের ফান্ডের সমস্যা নেই। আমরা অল্প বেতনে সংসার চালাই। এখন যদি এই স্বল্প বেতনও না পাই, তাহলে কিভাবে চলবো? কলেজের নৈশ প্রহরী বলেন, রাত জেগে কলেজ পাহারা দিই, তারপরেও যদি বেতন না পাই, তাহলে আমাদের কি উপায় হবে? কলেজের পিয়ন রাশেদুল আক্ষেপ করে বলেন, স্যাররা যখন যা বলেন, আমরা করে দিই, মাস গেলে পয়সা পাব সে আশায় বসে থাকি।

অন্যদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কলেজের একাধিক শিক্ষক বলেন, আমাদের প্রতিষ্ঠান ফান্ড থেকেই কয়েক যুগ থেকে বেতন ভাতা দেয়া হচ্ছিল, কিন্তু এই দুর্যোগের মধ্যে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির বাজারে হঠাৎ করেই আমাদের বেতন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বর্তমানে আমরা দিশেহারা।

প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষক কর্মচারীরা কলেজের বর্তমান নবনিযুক্ত সভাপতি কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসকের প্রতি পূর্বের নিয়ম মতো কলেজের ফান্ড থেকে সকল শিক্ষক কর্মচারীদের বেতনভাতা প্রদানের জন্য জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহণ করার অনুরোধ জানিয়েছেন।

এএইচ


oranjee

আরও খবর :