ঢাকা, শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ |

 
 
 
 

আমেরিকা প্রবাসী কবি আলেয়া চৌধুরী মারা গেছেন

গ্লোবালটিভিবিডি ১২:৫৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০৪, ২০২০

ছবিঃ সংগৃহীত

আমেরিকা প্রবাসী বাংলাদেশী কবি আলেয়া চৌধুরী (৫৯) মারা গেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। ৩ আগস্ট রাতে নিউইয়র্কের রকল্যান্ডে তাঁর অ্যাপার্টমেন্ট থেকে তাঁকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় বলে জানা গেছে। আলেয়া চৌধুরী অবিবাহিত ছিলেন। তিনি নিউইয়র্কে একাই থাকতেন। তাঁর দেশে এক ভাই আছেন। তাঁর পরিবারের কেউ আমেরিকায় নেই।

কবির পারিবারিক স্বজন শাহরিয়ার সালাম বলেন, দেশ থেকে আলেয়া চৌধুরীর ভাই তাঁকে ফোন করে পাচ্ছিলেন না। প্রান্তিক শহর রকল্যান্ডে তাঁর কাছাকাছি থাকেন একটি প্রযুক্তি কোম্পানির প্রধান শামসুল আলম। শামসুল আলমের পরিবারের সঙ্গে কবি আলেয়া চৌধুরীর যোগাযোগ ছিল। দেশ থেকে উদ্বিগ্ন ভাইয়ের ফোন পেয়ে ৩ আগস্ট সন্ধ্যার পর শামসুল আলম কবি আলেয়া চৌধুরীর অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্সে যান। কোন অ্যাপার্টমেন্টে আলেয়া চৌধুরী থাকতেন তা জানতেন না শামসুল আলম। এ কারণে কমপ্লেক্সের তত্ত্বাবধায়কের সাহায্য নিয়ে অ্যাপার্টমেন্টের তালা ভেঙে দেখা যায়, বাথরুমে আলেয়া চৌধুরীর মৃতদেহ পড়ে আছে। পরে পুলিশকে খবর দেয়া হয়।

নিউইয়র্কে আলেয়া চৌধুরী সংগ্রামী নারী হিসেবে পরিচিত ছিলেন। ১৯৬৯-এ গ্রাম্য পঞ্চায়েতের অমানবিক বিচারে ক্ষুব্ধ হয়ে তিনি গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে আসেন। ঢাকায় এসে আলেয়া চৌধুরী হকারের কাজ নেন। খবরের কাগজ বিলি করে জীবিকা নির্বাহ শুরু করে চাঞ্চল্যকর খবরের শিরোনাম হয়েছিলেন তিনি। 'মাত্র ১৩ বছর বয়সে পেশাগত গাড়িচালক হওয়ার প্রচেষ্টা' দৈনিক বাংলার লোক-লোকালয় পাতায় সাংবাদিক হেদায়েত হোসাইন মোরশেদের কলাম তাঁর পরিচিতি বাড়িয়ে দেয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁকে সেলাই মেশিন দিয়ে সাহায্য করতে চেয়েছিলেন কিন্তু তিনি তা না নিয়ে নারীদের গাড়িচালক পেশায় স্বীকৃতি দিয়ে আইন পাস করার প্রস্তাব রেখেছিলেন।

আলেয়া চৌধুরীর জন্ম ১৯৬১ সালে কুমিল্লার উত্তর চর্থা গ্রামে। মা আম্বিয়া খাতুন, বাবা সুলতান আলম চৌধুরী। অভাবের কারণে তিনি শিক্ষা গ্রহণ করতে পারেননি। একজন স্বশিক্ষিত নারী তাঁর মেধা, মনোবল ও প্রতিভাকে সঙ্গী করে জীবনের কণ্টকময় পথ পাড়ি দিয়েছেন। ঢাকার আজিমপুর এতিমখানার পাশে অবস্থিত দৈনিক আজাদ পত্রিকা অফিসের খেলাঘরে তিনি প্রথম স্বরচিত কবিতা পড়েন। এরপর ১৯৭০ সালে বেগম পত্রিকায় তাঁর লেখা কবিতা প্রকাশিত হয়। ১৯৭৩ সালে তাঁর প্রথম কবিতার বই 'জীবনের স্টেশনে' পদ্মা প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয়।

১৮ বছর বয়সে ইরান ও জার্মানি ভ্রমণ করেন তিনি। ২০ বছর বয়সে মাছ ধরার নৌকায় সমুদ্র পাড়ি দিয়ে মার্কিন মুল্লুকে স্থায়ী হন। সেখানেও তাঁর কবিতাকে তিনি প্রতিবাদের হাতিয়ার হিসেবে তুলে ধরেন।

এএইচ/জেইউ

 


oranjee