ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১ অক্টোবর ২০২০ |

 
 
 
 

করোনাকালে সুন্দরবনে চোরা শিকারীরা মেতেছে হরিণ শিকারে

গ্লোবালটিভিবিডি ১:১২ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

মোঃ এনামুল হক, মোংলা প্রতিনিধি: বিশ্বখ্যাত ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবনের প্রধান আকর্ষণ রয়েল বেঙ্গল টাইগার, চিত্রল হরিণ ও সুন্দরী গাছ। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর নজরদারীতে সম্প্রতি সুন্দরবনের বাঘ ও হরিণের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। হ্রাসও পেয়েছিল সুন্দরী গাছ পাচার। কিন্তু চলমান করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাবে নদ-নদী ও রাস্তাঘাট অনেকটা ফাঁকা থাকার সুযোগ কাজে লাগিয়ে অসাধু লোকজন ও চোরা শিকারীরা সুন্দরবনে মেতে উঠেছে হরিণ শিকার এবং গাছ পাচারে।

সংঘবদ্ধ চোরা শিকারী চক্র হরিণ শিকার করে তার মাংস ও চামড়া বিক্রিসহ জ্যান্ত হরিণ এবং হরিণের চামড়া দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করে চলেছে। আবার ক্ষেত্র বিশেষ কার্য সিদ্ধির জন্য ভিআইপিদের টিপস হিসেবেও হরিণের মাংস, শিং ও চামড়ার রয়েছে বহুল ব্যবহার। চোরা শিকারীদের দমন করা না গেলে বিরল প্রজাতির এই হরিণ অস্তিত্ব সংকটে পড়ার আশংঙ্কা দেখা দিয়েছে।

শুধু বন্য প্রাণীই নয়, বনের সুন্দরী, পশুর গাছ নিধনসহ বিষ দিয়ে মাছ শিকারের মহা উৎসব চলছে বনের অভ্যন্তরের নদী-খালে। সংঘবদ্ধ গাছ চোর, বিষ প্রয়োগকারী দুর্বৃত্ত ও চোরা শিকারীদের তৎপরতা বৃদ্ধি পাওয়ায় সুন্দরবনে রেড এলার্ট জারি করে টহল জোরদার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বন বিভাগ।

সুন্দরবনকে প্রশাসনিক সুবিধার জন্য দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে। বাগেরহাট জেলার শরণখোলা রেঞ্জ ও চাঁদপাই রেঞ্জ নিয়ে পূর্ব সুন্দরবন বিভাগ। আর পশ্চিম সুন্দরবন বিভাগে রয়েছে খুলনা ও সাতক্ষীরা রেঞ্জ এলাকা। এর মধ্যে বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগে মাত্র ৩৬ দিনের ব্যবধানে পুলিশ ও বনরক্ষীরা অভিযান চালিয়ে চোরা শিকারীদের কবল থেকে ২৪টি জীবিত হরিণ, ৭৯ কেজি হরিণের মাংস, নাইলনের দড়ির ৬ হাজার ৬শ' ফুট হরিণ ধরার ফাঁদ উদ্ধার করেছে। এ সময়ে ৭ জন চোরা শিকারীকে আটকসহ তাদের শিকার কাজে ব্যবহৃত ৪ টি ট্রলার ও দুইটি নৌকা জব্দ করা হয়েছে।

সুন্দরবন বিভাগ জানায়, গত ৫ মে  সুন্দরবনে পাথরঘাটার চরদোয়ানী এলাকার শীর্ষ তালিকাভুক্ত চোরা শিকারি মালেক গোমস্তা তার দল নিয়ে অবৈধ পথে পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের শেলারচর-কোকিলমনি এলাকায় ঢুকেছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বন বিভাগ অভিযান চালিয়ে টিয়ারচর থেকে ভোর রাতে হরিণ শিকারকালে তিন চোরা শিকারিকে আটক করে। এ সময় শিকারীদের বনের ভেতর পেতে রাখা হরিণ শিকারের ফাঁদে আটকে থাকা জীবিত ২২টি চিত্রল হরিণ উদ্ধার করা হয়। জব্দ করা হয় ৩০ কেজি হরিণের মাংস, ৭০০ ফুট হরিণ শিকারের ফাঁদ, ৩টি ট্রলার ও ১টি নৌকা। উদ্ধারকৃত ২২টি হরিণ সুন্দরবনে অবমুক্ত করা হয়। উল্লেখ্য, মালেক গোমস্তা বন বিভাগের হাতে আটক হয়ে মাত্র এক মাস আগে কারাগার থেকে ছাড়া পায়। গত ২ মে শরণখোলা রেঞ্জের ডিমের চর থেকে দুপুরে হরিণ শিকারের প্রস্তুতিকালে দুই চোরা শিকারিকে আটক করে বন বিভাগ। এ সময় হরিণ শিকারের জন্য বনের ভেতর পেতে রাখা ১৫শ' ফুট নাইলনের দড়ির ফাঁদ উদ্ধার ও একটি ট্রলার আটক করা হয়।

গত ২৭ এপ্রিল চাঁদপাই রেঞ্জের ঢাংমারি ষ্টেশনের বনরক্ষীরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ঢাংমারি থেকে ৩ কেজি হরিণের মাংসসহ এক চোরা শিকারীকে আটক করে। গত ২৫ এপ্রিল চাঁদপাই রেঞ্জের বাদামতলা খাল এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২ হাজার ৭০০ ফুট নাইলনের দড়ির হরিণ ধরা ফাঁদ উদ্ধার করে বন বিভাগ। এ সময়ে কোন চোরা শিকারিকে আটক করতে পারেনি বন বিভাগ। গত ২৪ এপ্রিল ভোরে সুন্দরবন সংলগ্ন সোনাখালী গ্রামের বাদল মোল্লার পুকুর পাড় থেকে এলাকাবাসী একটি হরিণ ধরে মঠবাড়িয়া থানায় নিয়ে যায়। পুলিশ বনবিভাগকে খবর দিলে তারা মাদী হরিণটি উদ্ধার করে ওই দিন বিকালে পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জ সংলগ্ন বনে অবমুক্ত করে।

এদিকে গত ২৩ এপ্রিল দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শরণখোলা স্টেশন অফিসের বনরক্ষীরা শরণখোলা উপজেলার সোনাতলা গ্রামের জাহাঙ্গীর হোসেনের বাড়ি সংলগ্ন মাঠে কর্কশীটে রাখা পাচারের অপেক্ষায় থাকা ১০ কেজি হরিণের মাংস উদ্ধার করে। তবে কোন পাচারকারীকে আটক করতে পারেনি। গত ২২ এপ্রিল একই উপজেলার শাপল বাজার ইউনিয়নের বলেশ্বর নদী পার হয়ে লোকালয়ে আসার সময় সুন্দরবনের প্রায় বিলুপ্ত প্রজাতির বারকিং ডিয়ার (মায়া হরিণ) দুলাল নামের এক জেলে উদ্ধার করে। বন বিভাগ ওই হরিণটি উদ্ধার করে বিকালে শরণখোলা রেঞ্জ সংলগ্ন বনে অবমুক্ত করে। অপরদিকে গত ১৭ এপ্রিল শরণখোলা রেঞ্জের চান্দেশ্বর এলাকায় বনরক্ষীরা অভিযান চালিয়ে ৭শ' ফুট, ১০ এপ্রিল কচিখালী এলাকায় ৫শ' ফুট এবং গত ২৮ মার্চ একই রেঞ্জের চরখালী এলাকা থেকে ৫শ' ফুট হরিণ ধরার ফাঁদ(নাইলন) জব্দ করে। তবে কোন চোরা শিকারীকে আটক করতে পারেনি।

৩০ মার্চ সুন্দরবন বিভাগ এবং পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে সুন্দরবন থেকে শিকার করে নৌকা যোগে লোকালয়ে ফেরার সময় চাঁদপাই রেঞ্জের সুন্দরবন সংলগ্ন চটেরহাট এলাকার নিত্তিখালী খাল থেকে ৩৬ কেজি হরিণের মাংসসহ এক শিকারিকে আটক করে। এ সময় একটি নৌকা জব্দ করা হয়।

সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকার মৎসজীবী ও বনজীবীরা জানায়, চোরা শিকারীর সংঘবদ্ধ চক্র সুন্দরবনের গভীর অরণ্যের হরিণের আবাসস্থল এলাকায় অবস্থান নেয়। কখনো ট্রলারে, কখনও নৌকায় আবার কখনো বনের গাছে মাচা বেঁধে হরিণের গতি-বিধি লক্ষ্য করে চোরা শিকারীরা। শিকারীরা রাতে বিশেষ করে কৃষ্ণ পক্ষের রাতে জঙ্গলে বেশী হানা দেয়। সুন্দরবনে যে অঞ্চলে কেওড়া গাছ বেশী জন্মে, হরিণের আনা-গোনা সেখানে সবচেয়ে বেশী থাকে। ভোরে অথবা পড়ন্ত বিকেলে কিংবা চাঁদনী রাতে হরিণ চরাঞ্চলে ঘাস খায়। শিকারিরা ও হরিণের এই স্বভাব বুঝে সুন্দরবনে অবস্থান পরিকল্পনা আঁটে এবং জীবন বাজী রেখে চোরা শিকারিরা রাতের আঁধারে গহীন অরণ্যে নামে। সুযোগ বুঝে তারা গুলি করে কিংবা ফাঁদ পেতে হরিণ শিকার করে। হরিণ শিকারের পর গোপন আস্তানায় বসে মাংস তৈরী করা হয়। পরে তা বিক্রি করা হয় সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকাগুলোতে। এক কেজি হরিণের মাংস ৭০০ থেকে ৮০০ টাকায় বিক্রি হয়। সুন্দরবন সংলগ্ন মোংলা, দাকোপ, রায়েন্দা, তাফালবাড়ীয়া, পাথরঘাটা, মঠবাড়ীয়াসহ বনের আশ-পাশ এলাকায় হরিণের মাংস বিক্রি হয় সবচেয়ে বেশী। এছাড়া শিকারিরা জাল দেয়া বা বরফ দেয়া মাংস, জ্যান্ত হরিণ ও হরিণের চামড়া ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করে থাকে। আবার কার্য সিদ্দির জন্য টিপস হিসাবেও হরিণের মাংস বা চামড়ার রয়েছে বহুল ব্যবহার। অনেকে আবার ড্রইংরুমের শোভা বর্ধন করেন হরিণের চামড়া দিয়ে। চোরা পথে হরিণ শিকার এবং মাংস, চামড়া ও জীবস্ত হরিণ পাচারের নেপথ্যে যে সব রাঘোব বোয়াল জড়িত তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনতে না পারলে বিরল প্রজাতির এই হরিণ অস্তিত্ব্ব সংকটে পড়বে বলে আশংঙ্কা করা হচ্ছে।

বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো: বেলায়েত হোসেন বলেন, সুন্দরবন বিভাগসহ প্রশাসনের কঠোর নজরদারীর কারণে ইতিমধ্যে সুন্দরবন থেকে বেশ কিছু হরিণ ও হরিণ ধরার ফাঁদ, হরিণের মাংস উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারের ঘটনায় বন আইনে মামলাও করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে শিকারিদের তৎপরতা বৃদ্ধি পাওয়ায় সুন্দরবনে রেড এলার্ট জারি করে বন বিভাগের টহল জোরদার করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণের মধ্যেও বনরক্ষীরা বনজ সম্পদ ও বন্যপ্রাণী রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে বলেও দাবী করেন তিনি।

এএইচ/জেইউ


oranjee