ঢাকা, রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৭ আশ্বিন ১৪২৬

 
 
 
 

রাজশাহীতে পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে চাষীরা

গ্লোবালটিভিবিডি ৬:৪৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৫, ২০১৯

সংগৃহীত ছবি

মীর তোফায়েল হোসেন ছন্দ, রাজশাহী: সোনালী আঁশের সেই সোনালী দিন আর নেই। দিন দিন আগ্রহ হারাচ্ছে পাট চাষীরা। দিনরাত পরিশ্রম করে পাট উৎপাদন করেও ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেন না তারা।

উৎপাদিত পাট বাজারে বিক্রি করে অনেককেই অপেক্ষা করতে হয় টাকার জন্য। একদিকে সার, বীজ, কিটনাশকের দাম বাড়ছে আর অন্যদিকে বাড়ছে পাট শ্রমিকের মজুরি। সবমিলিয়ে নাকাল অবস্থা পাট চাষীদের। উৎপাদন খরচ তুলে আনতে কঠিন এক পরিস্থিতির মুখোমুখি হচ্ছে তারা। পাট শিল্পকে বাঁচাতে সরকারি সহযোগিতা চান কৃষকরা।

গত বছর পাটের ন্যায্য মূল্য পায়নি পাট চাষীরা, তারপরও এ বছর আশায় বুক বেঁধেছিলো এই অঞ্চলের কৃষকরা কিন্তু এবারও সেই আশার গুড়ে বালি। লাভ তো দূরের কথা উৎপাদন খরচ তুলে আনতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে কৃষকদের।

এদিকে পাট ব্যবসায়ীরা বলছেন, সরকারি বেসরকারি মিলগুলো ঠিকমত পাট না কেনায় বিপাকে পড়েছে তারাও। পূর্বের বকেয়া থাকায় অর্থ সংকটে মাঠপর্যায়ে পাট কেনা এক প্রকার বন্ধই করে দিয়েছে। অন্যদিকে ব্যাংক থেকে নেয়া ঋণ শোধ করতে না পেরে দিশেহারা ব্যবসায়ীরা।

কৃষি বিভাগ বলছে, জেলায় এবার ১৩ হাজার ৮৪৬ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে যা লক্ষ মাত্রার চেয়েও বেশি। এখন পর্যন্ত ৮৩ ভাগ পাট কাটা হয়েছে। ভালো দাম পাওয়ার ক্ষেত্রে কি কি করণীয় তার সকল পরামর্শ কৃষকদের দেওয়া হচ্ছে বলে জানালেন রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মো. শামছুল হক।

কৃষিবিদ ও গবেষকগণ বলছেন, গতানুগতিক পদ্ধতিতে পাট জাগ না দিয়ে রিবোন রেটিং পদ্ধতিতে পাট জাগ দিলে উৎপাদন খরচ কমবে। ফলে কিছুটা হলেও লাভবান হবে কৃষকরা ।

এমটিএইচসি/এমএস


oranjee