ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯ | ৬ ভাদ্র ১৪২৬

 
 
 
 

ভিন্ন কৌশলে খুলনায় কোরবানির পশুর হাটে ব্যাপারিরা

গ্লোবালটিভিবিডি ৩:৩০ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০৯, ২০১৯

সংগৃহীত ছবি

এম এ কবির, খুলনা : প্রতি বছর কোরবানির পশুর ব্যাপারিদের লোকসান যাওয়ায় এ বছর শুরুতেই নতুন কৌশল অবলম্বন করছেন পশু ব্যবসায়ীরা। শুরুতেই দাম কমতে পারে- এমন আশ্বাস হাটে গেলেই শোনা যাচ্ছে। আর এটাকে নতুন কৌশল হিসেবে ব্যবহার করছে তারা। তাদের ধারণা প্রথম থেকেই যদি বলা হয় যে গরুর দাম কমবে, তাহলে ক্রেতারা একটু দেরি করেই কিনতে চাইবে। পরবর্তীতে হঠাৎ করে দাম বেড়ে যাবে। শেষের দুই এক দিনে এমনটাই আশা করছেন খুলনার গরুর হাটে আসা গরুর বেপারিরা। এমনটাই বললেন খুলনারপশু ব্যবসায়ী অসিত কুমার বিশ্বাস।

তিনি বলেন, এ বছর দাম কমে যাবে, কিন্তু আমরা এ বছর নতুন কৌশল অবলম্বন করেছি মিডিয়াসহ সব জায়গায় প্রচার হচ্ছে গরুর দাম এ বছর কমে যাবে। আসলেই কমার কোনো সম্ভাবনা নেই। তবে শেষ দিকে দাম বেড়ে যাবে। এই দাম কমার সংবাদ শুনে সকলেই প্রথম দিকে গরু কিনবে না। আর এটাকে পুঁজি করে গরুর দাম বাড়িয়ে দেবে ব্যাপারীরা।

অপরদিকে ক্রেতা রহমান মুন্স, ইব্রাহিম শেখ, ইসলাম মুন্সী বলেন, এ বছর আমরা মিডিয়াসহ সব জায়গায় শুনতেছি গরুর দাম কমে যাবে। আর এজন্যই গরু একটু দেরিতে কিনব বলে ঘুরছি। তবে পরবর্তীতে যদি হঠাৎ করেই দাম বেড়ে যায় তাহলে যে বিপদে পড়বো এটা মিথ্যা নয়।

তার বাস্তব চিত্র মেলে খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) পরিচালিত জোড়াগেট কোরবানির পশুর হাটে। বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দিনে মাত্র সাতটি গরু বিক্রি হয়েছে। রাত ১০টা পর্যন্ত হাসিল আদায় হয়েছে ১৯ হাজার ৮শ ৫০ টাকা।

সহকারী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) মোস্তাফিজুর রহমান বেলন, পুরো হাট পর্যাপ্ত আলো দিয়ে রাখা হয়েছে। যাতে করে বেপারি ও ক্রেতারা হাটে এসে চলাচলে কোনো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না হয়। তবে হাট লোক সমাগম প্রচুর। তবে গরু বিক্রি হচ্ছে কম। কারণ এখন ক্রেতারা হাট ঘুরে ঘুরে গরুর দাম দেখছে। আগামী ২/১ দিনের মধ্যে পশু কেনাকাটা জমে উঠবে বলে তিনি জানান। এছাড়া পুরো হাটটি নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা। মামুর আস্তানা পর্যন্ত সিসি ক্যামেরার আওতায় রয়েছে।

এদিকে কাউন্সিলর ও কর্মকর্তাদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত। জাল টাকা সনাক্তকরণ মেশিন নিয়ে ব্যাংক কর্মকর্তারা ছিল ব্যস্ত। তবে গতকাল পর্যন্ত কোনো জাল টাকা তারা পায়নি বলে জানান। কালিয়ার গরু হাট দখল করে নিয়েছে। পরিচ্ছন্ন কর্মীরা দিন রাত ছুটছে। সব মিলিয়ে হাটের পরিবেশ বিগত দিনের চেয়ে অনেক ভালো বলে মন্তব্য করেন বাজার সুপার সেলিমুর রহমান।

এমএকে/এমএস


oranjee