ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯ | ১ শ্রাবণ ১৪২৬

 
 
 
 

বগুড়া জেলা বিএনপি কার্যালয়ের তালা ভেঙে নিয়ন্ত্রনে নিলো নয়া কমিটি

গ্লোবালটিভিবিডি ৪:১২ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০১৯

ফাইল ছবি

বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ায় বিএনপির ৩১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন করেছেন দলটির মহাসচিব এমন খবরের ছড়িয়ে পড়ার পর এই ‘কমিটি’ বাতিলের দাবিতে জেলা বিএনপির একাংশের নেতাকর্মীরা বুধবার রাত ৮টার দিকে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা জেলা বিএনপি অফিসে তালা দেয় এবং অফিসের সামনে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে। নেতৃবৃন্দ সদ্য ঘোষিত আহবায়ক কমিটিকে অবৈধ আখ্যায়িত করে এবং কমিটির আহবায়ক ও যুগ্ম-আহবায়কদেরকে অবাঞ্চিত ঘোষনা করেন।
এর প্রেক্ষিতে ১৫ মে বুধবার রাত ১১টায় সদ্য ঘোষিত আহবায়ক কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক এ্যাড. সাইফুল ইসলাম ও ফজলুল বারী তালুকদার বেলালের নেতৃত্বে শতাধিক নেতাকর্মী শহরের নবাববাড়ি সড়কে জেলা বিএনপি অফিসের সামনে অবস্থান নেন। এসময় নেতাকর্মীরা প্রধান গেটের তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে কিছু সময় কাটান। এসময় উপস্থিত নেতাকর্মীদেরকে ১৬ মে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় দলীয় কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে আহবায়ক কমিটি দলীয় কর্মকান্ড শুরু করা হবে বলে নয়া কমিটির যুগ্ম আহবায়ক এ্যাড.সাইফুল ইসলাম জানান।

দলীয় সূত্র জানায়, সাবেক সাংসদ গোলাম মোহাম্মদ সিরাজকে আহ্বায়ক এবং দলের বিলুপ্ত জেলা কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম ও একই কমিটির সহ-সভাপতি ফজলুল বারী তালুকদার বেলালকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে কেন্দ্র থেকে বুধবার বগুড়া বিএনপির ৩১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তা অনুমোদন করেন।

বগুড়া বিএনপি ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, আহ্বায়ক কমিটি গঠনের এ খবর বুধবার সন্ধ্যায় ছড়িয়ে পড়লে দলের বিলুপ্ত জেলা কমিটির সভাপতি সাইফুল ইসলামের অনুসারী নেতাকর্মীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। রাত ৮টার দিকে তারা শহরের নবাববাড়ি সড়কে দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপির দলীয় পদবী স্থগিত করা শাহ্ মেহেদী হাসান হিমুর নেতৃত্বে একদল নেতাকর্মী বিএনপির কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে কার্যালয়ের সামনে আগুন জ্বালিয়ে সাবেক সাংসদ গোলাম মোহাম্মদ সিরাজের কুশপুত্তলিকা দাহ করে বিক্ষোভকারীরা চলে যান।


এদিকে বগুড়ায় মেয়াদোত্তীর্ণ বিএনপির পুনর্গঠন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই আভ্যন্তরীণ বিরোধ চলে আসছে। ওই বিরোধের জের ধরে গত ২৯ এপ্রিল দুই গ্রুপে পাল্টাপাল্টি আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। এক পক্ষে নেতৃত্বে ছিলেন দলের তৎকালীন জেলা সভাপতি সাইফুল ইসলাম এবং অপর পক্ষে ছিলেন সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট একেএম মাহবুবর রহমান।
বগুড়া বিএনপি’র পুনর্গঠন নিয়ে দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি আহ্বায়ক কমিটি গঠনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৪ মে বগুড়া জেলা বিএনপির কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। ওইদিন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে শিগগিরই আহ্বায়ক কমিটি গঠনের কথাও জানানো হয়েছিল।

এদিকে, বগুড়া বিএনপি’র নতুন এ আহ্বায়ক কমিটিতে সদ্য সাবেক সভাপতি সাইফুল ইসলাম ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু গ্রুপের পাল্টা পাল্টি ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটির আহ্বায়কদের কাউকে রাখা হয়নি। তবে লালু গ্রুপের যুগ্ম আহ্বায়ক ফজলুল বারী তালুকদার বেলাল যুগ্ম আহ্বায়ক হয়েছেন বলে জানিয়েছে জেলা বিএনপি শীর্ষ নেতা জয়নাল আবেদীন চাঁন।
অন্যদিকে গত ১৫ মে বুধবার সকালে নতুন আহ্বায়ক কমিটির কথা প্রচার হলে বগুড়ায় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝে ব্যাপক আলোচনা এবং সমালোচনা শুরু হয়। আহবায়ক ও যুগ্ম আহ্বায়কদের নাম শোনার পর অনেকেই হতবাকও হয়েছেন। আবার তাদের সমর্থকরা খুশি হয়েছেন। অনেকে বলেছেন, বগুড়ায় বিএনপির রাজনীতিতে যাদের অবদান কম তাদের দিয়েই আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ২২ জানুয়ারি গঠিত বগুড়া জেলা বিএনপির কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে অনেক আগেই। ভবিষ্যতে এর কর্তৃত্ব ও নেতৃত্ব নিয়ে অনেকদিনের গ্রুপিং এর গুঞ্জন শোনা গেলেও তা প্রকাশ্য রূপ নেয়। একদিকে জেলা বিএনপির সদ্য সাবেক সভাপতি সাইফুল ইসলাম ও অন্যদিকে সাবেক এমপি, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু। যারা নির্বাচনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হবেন না এমন মুরব্বী নেতাদের মাধ্যমে ১০ দিনের মধ্যে আহ্বায়ক কমিটির তালিকা কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশ থাকলেও সাইফুল গ্রুপ গত ২৯ এপ্রিল দুপুরে শহরের নবাববাড়ি সড়কে দলীয় কার্যালয়ে নির্বাহী কমিটির সাধারণ সভা ডেকে সদ্য সাবেক সভাপতি সাইফুল ইসলামকে আহ্বায়ক ও সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁনকে সদস্য সচিব করে ৪৫ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা দেয়।

ওই সভায় বয়কট করা হয় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হেলালুজ্জামান তালুকদার লালুকে। ফলে কেন্দ্রে নির্দেশ মেনে ওইদিন সন্ধ্যায় শহরের সুত্রাপুরে তারেক রহমানের বাসভবনে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট একেএম মাহবুবর রহমানকে আহ্বায়ক ও সাবেক সহ-সভাপতি ফজলুল বারী তালুকদার বেলালসহ চার জনকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে ৩১ সদস্যের পাল্টা আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে জেলা বিএনপি’র ত্যাগী নেতাকর্মীরা। দুই গ্রুপের নেতারা নিজেদের কমিটিকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানের নির্দেশিত ও অপর কমিটিকে এখতিয়ার বিহীন অবৈধ বলে দাবি করেন। এ ঘটনায় বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মী এবং সমর্থকরা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েন।

এর আগে গত ২৫ এপ্রিল ঢাকায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বগুড়া বিএনপির পুনর্গঠন প্রক্রিয়া নিয়ে আয়োজিত সভায় সাবেক সাংসদ গোলাম মোহাম্মদ সিরাজের সঙ্গে অশোভন আচরণ করায় তৎকালীন দলের জেলা কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পরিমল চন্দ্র দাস এবং প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক শাহ্ মেহেদী হাসান হিমুর পদ-পদবী স্থগিত করা হয়। এর প্রতিবাদেও ওইদিন রাতেই দলের জেলা কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয় এবং পরদিন সাবেক সাংসদ সিরাজের কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। অবশ্য ২৬ এপ্রিল রাতে আবার দলীয় কার্যালয় খুলে দেওয়া হয়।
এ প্রসঙ্গে তবে বিলুপ্ত জেলা কমিটির অন্যতম সহ-সভাপতি আলী আজগর হেনা বলেন, ‘দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান যাদেরকে যোগ্য মনে করেছেন তাদের দিয়েই আহ্বায়ক কমিটি গঠন করেছেন। আমরা মনে করি এই কমিটি খুব দ্রুততার সঙ্গে তৃণমূল থেকে পুনর্গঠনের মাধ্যমে বগুড়ায় বিএনপিকে ঢেলে সাজানোর মধ্য দিয়ে আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার আন্দোলনকে বেগবান করতে সক্ষম হবেন।’

এদিকে জেলা বিএনপি’র নয়া কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক এ্যাড. সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘যারা অফিসের সামনে আগুন জ্বালায় এবং তালা দেয় তারা দুষ্কৃতিকারী, দলের কেউ না।’ তবে এখন থেকে প্রতিনিয়ত দলীয় কর্মকা-গুলো সকল স্তরের নেতাকর্মীদের নিয়েই পরিচালনা করা হবে।

এ প্রসঙ্গে সদ্য ঘোষিত বগুড়া জেলা বিএনপি’র নয়া কমিটির আহবায়ক সাবেক সাংসদ গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ বলেন, বড় দলে একটু আধটু বিভাজন থাকাটাই স্বাভাবিক। তবে সকল বিভেদ মিটিয়ে বগুড়ায় একটি সংগঠিত বিএনপি দল তৈরী করে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনার আন্দোলন বেগবান করবো ইনশাল্লাহ।

 

ডিসিএস/আরকে


oranjee

আরও খবর :