ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯ | ১ শ্রাবণ ১৪২৬

 
 
 
 

পাটকল শ্রমিকদের অনাহারে দিন কাটছে রমজানে!

গ্লোবালটিভিবিডি ৩:১৪ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০১৯

ছবি সংগৃহিত

খুলনা প্রতিনিধি: বৈশাখের দাবদাহে টানা ১১ দিনের কর্মসূচিতে অনেকটাই নাকাল অনাহারী শ্রমিকরা। তেমনি তিন মাস মজুরি না পেয়ে মানবেতর জীবনযাত্রায় শ্রমিক পরিবার। বিজেএমসি ও মন্ত্রণালয়ের গতি শ্লথ। ১৮ মে মজুরি কমিশন না বসালে কঠোর কর্মসূচি শ্রমিক সংগঠনের।

বকেয়া পাওনাসহ ৯ দফা দাবিতে খুলনা-যশোর অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের শ্রমিকরা কর্মবিরতির পাশাপাশি ৩ ঘন্টা রাজপথ-রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি পালন করছে। বৃহস্পতিবার (১৬ মে) ভোর ৬টায় স্ব স্ব কর্মস্থলে না যেয়ে পাটকলের প্রায় অর্ধলাখ শ্রমিক আন্দোলনের টানা ১১ দিনে এ কর্মসূচি পালন করে।

পাট খাতে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ, বকেয়া মজুরি-বেতন পরিশোধ, মজুরি কমিশন কার্যকর ও প্রতি সপ্তাহের মজুরি প্রতি সপ্তাহে প্রদানসহ ৯ দফা দাবিতে পাটকল শ্রমিক লীগের ডাকে দীর্ঘদিন শ্রমিকরা রাজপথে আন্দোলন করছে। বৃহস্পতিবার কর্মবিরতির ১১ তম দিনে ভোর ৬টায় শ্রমিকরা নিজ নিজ কর্মস্থলে না যেয়ে এ কর্মসূচি পালন করে।

এর আগে গতকাল বুধবার বেলা সাড়ে ৩টায় ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, খালিশপুর, দৌলতপুর, স্টার, আলীম, ইস্টার্ন, কার্পেটিং ও জেজেআইর শ্রমিকরা থালা হাতে নিয়ে স্ব স্ব মিল গেটে সমবেত হয়। পরে বিকেল ৪টায় বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে নতুন রাস্তা মোড়, আটরা ও রাজঘাটের খুলনা-যশোর মহাসড়কে অবস্থান করে। পাওনার দাবিতে শ্রমিকরা মহাসড়ক ও রেললাইনের ওপর বিক্ষোভ করতে থাকে। এ সময় শ্রমিকরা রাজপথে জামাতের সাথে আসরের নামাজ আদায় করে। পরে আন্দোলনকারীরা মহাসড়কের সকল যান ও রেললাইনে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত রাজপথ-রেলপথ অবরোধ কর্মসূচিতে অংশ নেয়।

ফলে নতুন রাস্তা, আটরা ও নওয়াপাড়া শিল্প এলাকার প্রায় এক কিলোমিটার সড়কজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে চরম দুর্ভোগে পড়ে যাত্রীরা। ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, খালিশপুর, দৌলতপুর ও দিঘলিয়ার স্টার জুট মিলের শ্রমিকরা খালিশপুর নতুন রাস্তা মোড়, আটরা শিল্প এলাকার আলীম, ইস্টার্ন জুট মিলের শ্রমিকরা আলীম মিল গেট খুলনা-যশোর মহাসড়ক এবং নওয়াপাড়ার কার্পেটিং ও জেজেআইর শ্রমিকরা রাজঘাট শিল্প এলাকায় অবরোধ স্থানেই বসে ইফতার করেন। পরে পৃথক ৩ স্থানে খুলনা-যশোর মহাসড়কে মাগরিবের নামাজ পড়ে অবরোধ শেষ করে আন্দোলনকারীরা। অবরোধ চলাকালে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন পাটকল শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সরদার মোতাহার উদ্দীন, শ্রমিক নেতা মোঃ মুরাদ হোসেন, মোঃ সোহরাব হোসেন, সাহানা শারমিন, হুমায়ুন কবির, আবু দাউদ দ্বীন মোহাম্মদ, সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহীম হেমায়েত উদ্দীন আজাদী, আবু জাফর, মোঃ পান্নু মিয়া, খলিলুর রহমান, মোঃ তরিকুল ইসলাম, পাটকল শ্রমিক লীগ নেতা মাহমুদুল হাসান, এস এম আজম, আবু হানিফ, আব্দুল মজিদ বকুল, মোঃ সেলিম শিকদার, সরদার আলী আহম্মেদ, মোঃ সাহিদুল ইসলাম সাহিদ, আইয়ুব আলী, বেলায়েত হোসেন ও আবু হানিফ। আটরা ও নওয়াপাড়া শিল্প এলাকার আলীম, ইস্টার্ন, কার্পেটিং, জেজেআই মিলের শ্রমিকদের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সিবিএ-নন সিবিএ ও পাটকল শ্রমিক লীগের নেতারা এ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন।

এদিকে পাট মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বিজেএমসি রাষ্ট্রায়ত্ত ২৬ পাটকলের শ্রমিক ও কর্মচারীদের বকেয়া মজুরি-বেতনের সঠিক হিসাবে চেয়েছেন। শ্রমিক ও কর্মকর্তাদের পৃথক পৃথকভাবে তালিকা তৈরি করে তা মন্ত্রণালয়ে প্রেরনের জন্যও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে । প্লাটিনাম জুবিলী জুট মিলের প্রকল্প প্রধান মঈনুল করিম জানান, শ্রমিক ও কর্মচারীদের কয়টা মজুরি ও বেতন বকেয়া রয়েছে তা জানতে বিজেএমসি কর্তৃপক্ষ টেলিফোন করেছে। পাওনাদার শ্রমিকদের মজুরির ও কর্মকর্তাদের বেতনের হিসাব শ্রমিক, কর্মচারী-কর্মকর্তাদের পৃথক পৃথকভাবে নামের তালিকা করে তা দ্রুত বিজেএমসিতে প্রেরণেরও নির্দেশ দিয়েছেন বলেও জানান প্লাটিনামের প্রকল্প প্রধান।

শ্রমিক পরিবারে হাহাকার চলছে বলে জানান পাটকল শ্রমিক লীগের খুলনাঞ্চলের সভাপতি মো: মুরাদ হোসেন। তিনি আরও জানান, চুক্তি অনুযায়ী মজুরি কমিশন কার্যকর না করলে ১৮ মে বিজেএসসি শ্রমিক কার্যালয়ে বৈঠক করে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করবে তারা।

 

এমএকে/আরকে


oranjee

আরও খবর :