ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯ | ১ শ্রাবণ ১৪২৬

 
 
 
 

ফারাক্কা দিবস আজ : পদ্মায় বাড়ছে পানি, আগাম বন্যার পূর্বাভাস

গ্লোবালটিভিবিডি ১১:২২ পূর্বাহ্ণ, মে ১৬, ২০১৯

ফাইল ছবি

পাবনা প্রতিনিধি: আজ ১৬ মে ফারাক্কা দিবস। ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের গঙ্গা পানি বণ্টন চুক্তির ২২ বছর পূর্তি। প্রতি বছর এই সময়ে শুকনো মৌসুমে পাকশীর হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টসহ পদ্মা নদীতে তীব্র পানি সংকট থাকলেও এবার পানি বাড়ছে অস্বাভাবিকভাবে।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) কর্মকর্তারা বলছেন, এই পানি বৃদ্ধি পাবনাসহ উত্তর জনপদে আগাম বন্যার পূর্বাভাসেরই ইঙ্গিত দিচ্ছে। হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পানির উচ্চতা বুধবার (১৪ মে) পর্যন্ত ৬ দশমিক ৫৮ মিটার পরিমাপ করা হয়েছে, যা বছরের এই সময়ে এর আগে কখনও দেখা যায়নি। প্রতি বছর এই সময়ে পদ্মায় পানি সংকট থাকলেও এবারের চিত্রটা ভিন্ন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভারতের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী বছরের এই সময়ে পদ্মায় পানির প্রবাহ থাকার কথা সর্বোচ্চ ৩৫ হাজার এবং সর্বনিম্ন ১৫ হাজার কিউসেক। অথচ এখন পদ্মায় পানির প্রবাহ রয়েছে প্রায় ৮০ হাজার কিউসেক। বুধবার (১৪ মে) ৭৯ হাজার কিউসেক পানি পাওয়া গেছে পাকশী পদ্মায়, যা সাম্প্রতিক সময়ে সবচেয়ে বেশি পানি প্রবাহের রেকর্ড।

গত এক মাসের হিসাব অনুযায়ী, এই শুকনো মৌসুমে যেখানে চুক্তির সমপরিমাণ ৩৫ হাজার কিউসেক পানিই পাওয়া যেত না, সেখানে পাকশীর পদ্মায় হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে এ বছর শুস্ক মৌসুমেই পানির পরিমাপ ৫০ থেকে ৮০ হাজার কিউসেক পর্যন্ত ওঠানামা করছে। পাউবোর দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা জানান, এ বছর উজানে অতি বৃষ্টির কারণে পদ্মায় পানি বেড়েছে।

পাউবোর পাবনার নির্বাহী প্রকৌশলী ও উত্তরাঞ্চল পানি বিভাগের পরিমাপক কে এম জহুরুল হক জানান, এ বছরই প্রথম খরা মৌসুমে পদ্মায় প্রায় দ্বিগুণের বেশি পরিমাণ পানি পাওয়া যাচ্ছে। অস্বাভাবিকভাবে পানি বৃদ্ধি আগাম বন্যার পূর্বাভাস দিচ্ছে বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, বর্তমানে বেশি পানি পাচ্ছি। ২০১৬ সালে পদ্মায় এই সময়ে পানি পাওয়া গিয়েছিল ১৫ হাজার ৩০০ কিউসেক, ২০১৭ ও ২০১৮ সালে পানির প্রবাহ মোটামুটি স্বাভাবিক ছিল কিন্তু এ বছর পানি প্রবাহ দ্বিগুণ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দেশের বৃহত্তম ভেড়ামারা গঙ্গা-কপোতাক্ষ (জিকে) সেচ প্রকল্পের আওতায় ৪ লাখ ৮৮ হাজার একর জমিতে সেচ সরবরাহ করার কথা থাকলেও পানির অভাবে গত বছর মাত্র ১ লাখ ১৬ হাজার একর জমিতে সেচ সরবরাহ করা হয়। পানি বাড়ার কারণে এ বছর এই প্রকল্প সচল আছে এবং স্বাভাবিকভাবেই চলছে বলে জানিয়েছেন পাউবো কর্মকর্তারা।

বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলকে মরুকরণ থেকে রক্ষায় ১৯৯৬ সালে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ৩০ বছর মেয়াদি গঙ্গা পানি বণ্টন চুক্তি হয়। সে সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী দেব গৌড় ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই চুক্তি সই করেন। চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশকে ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ মে পর্যন্ত ৩৫ হাজার কিউসেক পানি দেওয়ার কথা ভারতের। কিন্তু চুক্তির পর দু'একবার বাদে বেশিরভাগ সময়ই কম পানি পেয়েছে বাংলাদেশ। পানি সংকটে চাষাবাদসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে মরুময়তা দেখা দেয়। পদ্মার শাখা-উপশাখা নদীগুলোর অবস্থা দাঁড়ায় মরণদশায়।

এর বাস্তব অবস্থা পর্যবেক্ষণ করছে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ কমিশনের (জেআরসি) পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দল। তাদের দাবি, চুক্তি অনুযায়ী এ বছর বেশি পানি পাচ্ছে বাংলাদেশ।

জনৈক নদী গবেষক ও বিশ্লেষক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ বছর ব্যতিক্রম হলেও বেশিরভাগ সময়ই চুক্তি অনুযায়ী পানি পাওয়া যায়নি। শুকনো মৌসুমে ঈশ্বরদীর পাকশী হার্ডিঞ্জ সেতুর উজান ও ভাটিতে পদ্মার পানির স্তর নেমে যাওয়ায় এই অঞ্চলে পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এক সময়ের প্রমত্তা পদ্মা পরিণত হয়েছে ছোট নদীতে। মৃত্যুঘণ্টা বেজেছে এই অঞ্চলের সুতা নদী, কমলা নদী, ইছামতী ছাড়াও আরও অন্তত ১৭টি নদীর। তিনি বলেন, পদ্মা ও এই অঞ্চলের মানুষকে বাঁচাতে গঙ্গা পানি বণ্টন চুক্তি পর্যালোচনা করতে হবে।

পরিবেশবিদ ও সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক শাহনেওয়াজ সালাম বলেন, পানি স্বল্পতার কারণে মরুকরণের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে পদ্মা সংশ্নিষ্ট এলাকা। বিশেষ করে রাজশাহী অঞ্চল ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। পরিবেশ ও জীববৈচিত্র আজ হুমকির মুখে। এসব থেকে রক্ষা পেতে নতুন করে গঙ্গা পানি বণ্টন চুক্তি হওয়া দরকার।


এআইজে/আরকে


oranjee

আরও খবর :