ঢাকা, সোমবার, ২০ মে ২০১৯ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

 
 
 
 

গ্লোবাল টিভি অ্যাপস

বিষয় :

ঢাকা

  • কলারোয়া উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বাতিল
  • পাবনায় বীজ প্রক্রিয়াকরণ ও সংরক্ষণ শীর্ষক কর্মশালা
  • হাসপাতাল গেটে সাইকেল রাখায় রোগীর বাবাকে পেটালেন ডাক্তার
  • পাবনায় শ্বাশুড়িকে হত্যার অভিযোগ পুত্রবধুর বিরুদ্ধে : পুত্রবধু গ্রেফতার
  • ব্যবসায়ীর ৪ আঙুল কেটে নিলেন ছাত্রলীগ নেতা!
  • পরিচয়পত্র পেল বাংলাদেশে পালিয়ে আসা আড়াই লাখ রোহিঙ্গা : জাতিসংঘ
  • উন্নত জাতি গঠনে সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ : তথ্যমন্ত্রী

আবারো টেকনাফে ‘পুলিশ পরিচয়ে’ তল্লাশির নামে ডাকাতি, জানেনা পুলিশ

গ্লোবালটিভিবিডি ৪:২৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৪, ২০১৯

ছবি- সংগ্রহ

জসিম উদ্দীন জিহাদ,কক্সবাজার: কক্সবাজারের টেকনাফে ‘পুলিশ পরিচয়ে’ তল্লাশির নামে স্বর্ণ অলংকার ও টাকা পয়সাসহ বিভিন্ন দামি আসবাবপত্র লুট করে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সৈয়দ কাশিম নামে এক ব্যাক্তি।

পেশায় পানচাষি সৈয়দ কাশিম গ্লোবাল টিভিকে জানান, বুধবার (১৩ মার্চ) ভোরে একদল অস্ত্রধারী পুলিশ পরিচয়ে তার বাড়িতে ইয়াবা লোকানো আছে বলে প্রবেশ করে প্রথমে মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে বাড়ির লোকজনেকে জিম্মি করে। পরে তল্লাশির নামে ৫ ভরি স্বর্ণ ও নগদ ১ লাখ ১০ হাজার টাকা লুট ও বাড়ির আসবাবপত্র ভাংচুর করে তারা।

তিনি আরো জানান, এক পর্যয়ে বাড়ির লোকেরা চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসতে দেখে পালিয়ে যায় অস্ত্রধারীরা।

স্থানীয় লোকজন জানান, বুধবার ভোরে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের হাবিরছড়ার পানচাষি সৈয়দ কাশিমের বাড়িতে পুলিশ পরিচয় দিয়ে দরজা খুলতে বলা হয়। এসময় বাড়িতে থাকা চাষি সৈয়দ কাশিম দরজা খুলে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অস্ত্রধারীরা ঘরে ঢুকে মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে ঘরের লোকজনকে জিম্মি করে ফেলে। এসময় কাশিম চিৎকার করলে তাকে মারধর করে মাটিতে ফেলে দেয় অস্ত্রধারীরা। পরে তারা ঘরের আলমারিসহ আসবাবপত্র ভাঙচুর করে। আলমারিতে থাকা ৫ ভরি স্বর্ণ ও নগদ অর্থ লুট করে নিয়ে যায়। ডাকাতরা পালিয়ে গেলে পরিবারের সদস্যদের কান্নাকাটি ও চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসেন।

পাঁচজনের অস্ত্রধারী দলটির পরনে কালো জাকেট ও মুখে কালো কাপড় ছিল। এসময় ঘরের বাইরে তাদের আরও অস্ত্রধারী লোকজন ছিল বলে জানান এলাকার লোকজন।

স্থানীয় দোকানদার তৈয়ুব আহমদ বলেন, টেকনাফ সদরে হঠাৎ করে ডাকাতির ঘটনা বেড়ে গেছে। কিছু অস্ত্রধারী লোক পাহাড়ে থাকে। রাত হলে পাহাড় থেকে গ্রামে গ্রামে ঢুকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে এই কাজ করে যাচ্ছে। এতে গোটা এলাকার মানুষ ভয়ে আছে।

এ ব্যাপারে জানতে চেয়ে বার বার ফোন করা টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে পাওয়া যায়নি। পরে পরিদর্শক (তদন্ত) এবিএমএস দোহার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাক্ষী দিতে আমি এ মুহুর্তে বাইরে থাকায় এ বিষয়ে কিছু বলতে পারবো না।

এ ব্যাপারে কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোসাইন গ্লোবাল টিভি অনলাইনকে বলেন, বিষয়টি আপনার কাছে শুনেছি, এ ব্যাপারে খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, এর আগে একই ইউনিয়নের মিঠাপানিরছড়া গ্রামে বেশ কয়েকটি ঘরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।

জেএইজে/এমএস


oranjee

আরও খবর :