ঢাকা, রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯ | ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

 
 
 
 

টিকটক ব্যবহার নিয়ে আমেরিকায় উদ্বেগ

গ্লোবালটিভিবিডি ১০:৫১ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ০৬, ২০১৯

ছবি সংগৃহীত

টিকটক এমন একটি জনপ্রিয় ভিডিও অ্যাপ্লিকেশন যা সাধারন মানুষকে সামাজিক মিডিয়ায় ভাইরাল বা তারকায় পরিণত করে। সম্প্রতি আমেরিকার কয়েকজন আইনপ্রণেতা টিকটক ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য নিয়ে অ্যাপটি কী করছে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে । পাশাপাশি এই অ্যাপ্লিকেশনটি জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি বলে তারা উদ্বেগ প্রকাশ করছে। চীন এই অ্যাপ ব্যবহারকারীদের তথ্য দেখছে বা এটি চীনা সার্ভারে সংরক্ষণ করা হচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে।

আমেরিকায় ২৬ মিলিয়নেরও বেশি টিকটক ব্যবহারকারী রয়েছে, যাদের বেশিরভাগই কিশোর এবং যুবক। বর্তমানে সেখানে বিনামূল্যে অ্যাপ ডাউনলোডের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে এই টিকটক। এবিসি নিউজের খবরে প্রকাশ, টিকটক আমেরিকার জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক ইস্যুতে তদন্তের আওতায় রয়েছে। কারণ, চীনের সাথে এই অ্যাপ্লিকেশনটির জড়িত থাকার বিষয়টি আমেরিকার জন্য হুমকির কারণ হতে পারে।

২০১৭ সালে বেইজিং ভিত্তিক সংস্থা বাইটড্যান্স মার্কিন সামাজিক মিডিয়া মিউজিক্যালি নামক অ্যাপটি কিনে নেয়। এরপর এটি তাদের টিকটক অ্যাপ্লিকেশনে একীভূত করে নেয় এবং ক্যালিফোর্নিয়ায় টিকটকের সদর দফতর খুলে বসে। বর্তমানে বেশ কয়েকজন সিনেটর সেই ব্যবসায়িক চুক্তি এবং সংস্থাটি কীভাবে আমেরিকান ব্যবহারকারীদের ডেটা ব্যবহার করছে তা নিয়ে প্রশ্ন উত্থাপন করছেন।

এ বিষয়ে মার্কিন সিনেটর মার্কো রুবিও শুক্রবার টুইট করে বলেছেন, "চীনের কোনও সংস্থার মালিকানাধীন যে প্ল্যাটফর্ম আমেরিকানদের প্রচুর পরিমাণে তথ্য সংগ্রহ করে তা আমাদের দেশের জন্য সম্ভাব্য গুরুতর হুমকি।"এর আগে রাশিয়া ফেসবুকের মাধ্যমে মার্কিন নির্বাচনকে সমঝোতা করার চেষ্টা করেছিল । যে কারণে মার্কিন সিনেটররা উদ্বেগ প্রকাশ করছেন যে টিকটক বিদেশী কারসাজির লক্ষ্য হতে পারে।

এদিকে টিকটক এক বিবৃতিতে বলেছে, “আমরা আমেরিকায় টিকটকের সব ডেটা সংরক্ষণ করি, যার ব্যাকআপের জন্য সিঙ্গাপুরে আমাদের আলাদা সার্ভার আছে । আসলে আমাদের ডেটা সেন্টারগুলো চীনের বাইরে অবস্থিত এবং এগুলোর কোনটিই চীনের আইনের কাছে দায়বদ্ধ নয়। আমরা চীনসহ কোনও বিদেশী সরকার দ্বারা প্রভাবিত হই না।“

প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যে কোনও অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করা ভেবেচিন্তে করার মত একটি বিষয়, সেটা যতই জনপ্রিয় হোক না কেন। বেশিরভাগ আপ্লিকেশনই সুনির্দিষ্ট বিজ্ঞাপন পাঠানোর জন্য তথ্য সংগ্রহ করছে। অ্যাপ ইনস্টল করার পর এটি ব্যবহারকারীর অবস্থান সম্পর্কে বিশদ তথ্য সংগ্রহ করতে পারে। তারা বলছেন, আপনি ঠিক জানেন না যে বেশিরভাগ অ্যাপ্লিকেশনের সাথে আপনি যা শেয়ার করছেন সেসব তথ্য আপনার কী ধরনের পরিণতি ডেকে আনতে পারে।

এবিসি নিউজ অবলম্বনে: জাবীহ্ উল্লাহ।

এমজে/আরকে

 


oranjee