ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৫ কার্তিক ১৪২৬

 
 
 
 

টেকনোলজির আধিক্য গানকে নষ্ট করে: আশিকুজ্জামান টুলু

গ্লোবালটিভিবিডি ১:২৪ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৯, ২০১৮

ফাইল ছবি

যেটা আমি বলতে চেয়েছি তা হলো, আধিক্য বিষয়টা যেকোনো কিছুর ব্যাপারেই খারাপ। আমি নিজেও সবচাইতে লেটেস্ট টেকনোলোজি ইউজ করছি, রেকর্ডিং, মিক্সিং ও মাস্টারিংয়ের ক্ষেত্রে। এছাড়া উপায় নাই কারণ আমি নিজেও পিছিয়ে থাকতে চাই না, আমাকেও টেকনোলোজির সাথে যেতে হবে। এখন যদি আমি স্টুডার মাল্টিট্র্যাক মেশিন ইউজ করতে যাই তাহলে কতোটুকু যুক্তিযুক্ত হবে আমার অ্যাপ্লিকেশনে। হ্যাঁ, এখন যদি আমি এক্যুস্টিক সিম্ফনি রেকর্ড করতে যাই তাহলে ৩২ ট্র্যাক স্টুডার আমি ইউজ করবো। সব আসলে ডিপেন্ড করে অ্যাপ্লিকেশনের উপর। এখনও 35mm টেপ ইউজ হয় ৩২ ট্র্যাক স্টুডারে।

যাই হোক আমার ক্ষেত্রে খুব সাবধানে টেকনোলোজির মায়াজাল থেকে নিজেকে চালাকি করে সরিয়ে রাখি। ইচ্ছা করে অনেক কিছুকে ইউজ করি না বেশির ভাগ জিনিস অরগানিক রাখার জন্য। যেমন এখনও আমি বসে বসে ড্রাম প্যাটার্ন বানাই অনেক সময় ধরে, ঝাপিয়ে পড়ি না লুপের উপর। আমার কাছে হাজার হাজার লুপ আছে, তবুও ৯৫% ক্ষেত্রে নিজে বানাই প্যাটার্ন। তবলার জন্য এখনও আমাদের এখানকার রাজিব বা রনিকে ডাকি স্টুডিওতে বাজাতে, লুপ আছে আমার কাছে, তবুও খুবই কম ইউজ করি।

কীবোর্ড পুরা নিজে বাজাই ১০০%। অন্যের কীবোর্ড বাজানো নিতে খুব অপমান লাগে, নিজেকে ছোট লাগে। জানি অতো ভালো হয় না। হবেই বা কিভাবে, যেগুলি লুপে দেয়, ওইগুলিতো ওয়ার্ল্ডক্লাস কিবোরডিস্টের মাল আর আমি হইলাম ডাইল ভাত খাওয়া মাজুল কিবোর্ডিস্ট। তবুও খুব শান্তি লাগে যে শালা যা বাজাইছি, নিজে বাজাইছি, কোনো হালার মাল চুইশা অন্নের কাছে মিথ্যা সাজি নাই। যেমন ভোকাল নেয়ার সময় ৫০ বার কইরা টেক করি যতক্ষণ সুরে না হয় অথচ আমার কাছে সব মালই আছে কারসার দিয়া সুরে কইরা দেয়ার। এক্যুস্টিক গিটার নিজে বাজাই, মাঝে মাঝে বেজ গিটার দিয়া বেজ বাজাই।

উপরের স্টেপগুলো নিলে যেটা হবে তা হলো সাউন্ডে কিছুটা ভুল, কিছুটা আন কোয়ান্টাইজড, কিছুটা কাঁচা কাঁচা ব্যাপার, কিছুটা বেসুরা থেকে যাবে এবং এই আন রিফাইন্ড মিউজিক মানুষের কানে ভালো লাগবে কারণ মানুষের কান মেশিন না, তাই সেটাও শুনতে চায় একটু ন্যাচারাল শব্দ। আর চারিদিকে এতো মেশিন সাউন্ড শুনতে শুনতে মানুষের কান ক্লান্ত হয়ে গেছে, তাই এখন আবার সময় এসেছে একটু অরগানিক কিছু করার।

তবে আবার সেই এক কথা - it depends what I am doing. If I have to do EDM hiphop or trap, then I have to choose the other way. কিন্তু তাই বইলা খাটি বাংলা গানে হটাৎ কইরা EDM আইনা ঢুকাইয়া দিলে সাউন্ডতো মাজুল হইবোই হাহাহাহাহাহ। যতকিছু বলো না কেন, বাংলা গান একান্তই বাংলা গান, এইটা নিয়া ওয়েস্টার্ন করার জন্য বেশি গবেষণা করলেই এক পর্যায়ে মাজুল হইয়া যাইবো, ১০০% কনফার্ম। এইজন্য কথা আছে লেবু বেশি চিপলে তিতা হইয়া যায় তাই টেকনোলজির বাড়ি বেশি দিলে গানের বারটা বাইজা যায়।

আশিকুজ্জামান টুলু

লেখক: আশিকুজ্জামান টুলু, জনপ্রিয় ব্যান্ডশিল্পী ও সংগীত পরিচালক

এসএনএ


oranjee