ঢাকা, রবিবার, ২৫ আগস্ট ২০১৯ | ১০ ভাদ্র ১৪২৬

 
 
 
 

এবার ‘হটলাইন কমান্ডো’ নিয়ে আসছেন সোহেল তাজ

গ্লোবালটিভিবিডি ৪:২১ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৮, ২০১৯

এবার রিয়েলিটি শো ‘হটলাইন কমান্ডো’ নিয়ে আসছেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজ। এর মাধ্যমে বিভিন্ন সামাজিক সমস্যার সমাধান দেবেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে সোহেল তাজ এই পরিকল্পনার বিস্তারিত তুলে ধরেন।

সোহেল তাজ বলেন, ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার জন্য দরকার সোনার মানুষ, আর সোনার মানুষ তৈরি করতেই আমার এ উদ্যোগ। রাজনীতির বাইরে থেকেও মানুষের জন্য কিছু করার ইচ্ছা থেকে এই পদক্ষেপ আমার। বহুদিন ধরেই দেশের মানুষ শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য, জীবন-যাপনের অভ্যাস ও ধরন, সচেতনতা ও দায়িত্ববোধের বিষয়গুলো নিয়ে আমি ভাবছিলাম। সে ভাবনা থেকেই জন্ম লাইফ স্টাইল বিষয়ক রিয়েলিটি শো-হটলাইন কমান্ডো।

তিনি বলেন, হটলাইন কমান্ডো টিম নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে গিয়ে নানান শ্রেণি-পেশার মানুষের দরজায় কড়া নাড়বো। জানতে চাইবো, তাদের জীবন-যাপনের অভ্যাস ও ধরন, স্বাস্থ্যগত সমস্যার কথা, খাদ্যাভ্যাস, বাসস্থান, কর্মপরিবেশ ও নানা সমস্যার কথা। সোহেল তাজের টিমের বিশেষজ্ঞ সদস্যরা মানুষকে সচেতন করবেন এবং হাতে-কলমে সহায়তা করবেন জীবন-যাপনের সহজ ও কার্যকর পথ বেছে নিতে।

সোহেল তাজ বলেন, এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের ভেতরে যদি সচেতনতা বৃদ্ধি পায়, জীবনধারায় পরিবর্তন আসে, তাহলে আমাদের উদ্দেশ্য সফল হবে এবং আমরা ভবিষ্যতে আরও উৎসাহ পাবো। দেশকে ফিট রাখতে হলে দেশের মানুষকে ফিট থাকতে হবে।

এর আগে সংবাদ সম্মেলনের শুরুতেই তিনি প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে জানান, বাংলাদেশে প্রতিবছর অসংক্রামক রোগের কারণে প্রায় ৬০ ভাগ মানুষ মৃত্যুবরণ করেন, যার ১০০ ভাগ প্রতিরোধযোগ্য। কেবল জীবন অভ্যাস পরিবর্তনের মাধ্যমে এসব রোগ থেকে মুক্তি সম্ভব। এই মুক্তির পথগুলো আমরা খোঁজার চেষ্টা করবো।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার করবে টিভি চ্যানেল আরটিভি। সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া এই রিয়েলিটি শো ১৫ দিন অন্তর মঙ্গলবারে দেখানো হবে। এরই মধ্যে ১২ পর্বের অনুষ্ঠান প্রচারের প্রস্তুতিও নেওয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে হটলাইন কমান্ডোর টিম ছাড়াও আরটিভির সিইও আশিকুর রহমান, স্পন্সরের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন র‌্যাংগস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রোমো রউফ চৌধুরী ও মিতসুবিশির বিভাগীয় পরিচালক।

এএইচ/এমএস


oranjee

আরও খবর :