ঢাকা, মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

 
 
 
 

নদ-নদী রক্ষায় নিজ সচেতনতা জরুরি

গ্লোবালটিভিবিডি ৫:৩৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৯

সংগৃহীত ছবি

মুরাদ নূর : তিন ভাগ জল আর এক ভাগ স্থলে গঠিত আমাদের মানবদেহ। এমন হিসেবের উপর দাঁড়িয়ে আছে ভূমন্ডল। এমনকি বাংলাদেশ। আমরাই একমাত্র জাতি যাদের মানবদেহ, ধরণী ও দেশের জল স্থলের হিসেব এক৷ বিষয়টি সৌভাগ্য হলেও আজ আমাদের সচেতনতার অভাবে নদ-নদীর দূষণে দুর্ভাগ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বের সাথে সাথে আমাদের দেশীয় আকাশের প্রকৃতিও হুমকিতে আছে। প্রকৃতিপ্রেমী সচেতন সবাই এর পরিত্রাণ চায়। কিন্তু কিভাবে? হয়তো এমন অনেক কিভাবের উত্তরই আমরা জানি, মানি না। দেশের নদ-নদীকে সাক্ষী রেখে আমাদের সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সৃষ্টিশীলরা নদীকে কেন্দ্র করেই সৃষ্টি করেছে অসংখ্য সভ্যতা ও বাংলার ঐতিহ্য। বর্তমানের অস্থির যুগে সেই ঐতিহ্যের মায়া, পূর্বপুরুষদের দেখানো পথে হাঁটতে পারছি না আমরা তরুণরা। এ কার ব্যর্থতা ?

নদী অধিকার ফিরিয়ে আনতে সামাজিক সংগঠন নোঙর গত পনেরো বছর ধরে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। গত ১৯ সেপ্টেম্বর শুক্রবার তারই ধারাবাহিকতায় নৌ মন্ত্রণালয় ও বিআইডব্লিউটিএ'র সহযোগিতায় নোঙর আয়োজিত নদ-নদীর আইনি অধিকার ফিরিয়ে আনতে এক নান্দনিক ভাসমান সভার আয়োজন করেন। নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী, বিআইডব্লিউটিএ'র চেয়ারম্যান, নোঙর-এর চেয়ারম্যানসহ গণমাধ্যমকর্মী ও সচেতন প্রকৃতিপ্রেমীদের উপস্থিতিতে এক সফল সভার সমাপ্তি হয়৷ বক্তারা পরিচিত অনেক সমস্যা ও তার সমাধানের কথা তুলে ধরেন। সরকার, সামাজিক সংগঠনসহ নদীপ্রেমী আমরা এর সমাধান চাই। বাংলার সুশিক্ষিত সকল সন্তান নদী মায়ের মুক্তি চাই। নদী বাঁচলে প্রকৃতি বাঁচবে। প্রকৃতি বাঁচলে বাংলাদেশ বাঁচবে। বাংলাদেশ বাঁচলে স্বাধীনতা বাঁচবে। স্বাধীনতা বাঁচলে মায়ের সম্মান বাঁচবে। আদৌ কি আমরা এই উপলব্ধি করতে পারি? কবেই বা আমরা সন্তান হয়ে নদী মাকে নিরাপদ রাখতে পারবো? এ দ্বায় কার ? মায়ের না সন্তানের ? এখুনি সময় প্রশ্ন খুঁজে উত্তর বের করার। সঠিক সময়। উত্তম সময়।

উক্ত সভায় উপস্থিত থেকে আমি আমার ব্যক্তিগত উপলব্ধি থেকে যা বুঝলাম। তাতে মনে হলো এই সমস্যার ৯৫% সমাধান হয়ে যাবে কেবল নিজ সচেতনতায়। নদী দখল, দূষণসহ নদীর বিভিন্ন সমস্যা কিন্তু আমরাই সৃষ্টি করছি! তাহলে এর সমাধান কে করবে ? আপনার আমার একটু সচেতনতাই করতে পারে এই ভয়ংকর সমস্যার সমাধান। আসুন স্ব স্ব জায়গা থেকে কেবল নিজের কাজটি নিজে করি। নিজের মাকে নিজেই ভালো রাখি। এ দায়িত্ব, এ অধিকার আপনার আমার সকলের।

লেখক : সুরকার ও সংস্কৃতিকর্মী
muradnoorbdicon@gmail.com


oranjee