ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯ | ১৩ আষাঢ় ১৪২৬

 
 
 
 

অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা এড়াতে পৃথক সাইকেল লেনের কোনো বিকল্প নেই

গ্লোবালটিভিবিডি ১২:১৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০৪, ২০১৮

এ আই টুববুস / চোখের সামনে প্র‌তি‌নিয়ত তরতাজা মানুষগুলো লাশ হয়ে ফির‌ছে। রক্তাক্ত হচ্ছে আমাদের প্রিয়স্বজন ও পিচঢালা জনপথ। এত লাশ বহনে অপারগ হয়ে পড়েছে আমাদের সড়ক-মহাসড়ক। সব দুর্ঘটনাই দুঃখজনক।  আমাদের হৃদ‌য়ে কষ্ট দেয়। 
 
"একটি দুর্ঘটনা সারা জীব‌নের কান্না” ।
এমন শ্লোগা‌নে আমরা সবাই প‌রি‌চিত   বি‌শেষ কোন দূর্ঘটনায় নিরাপদ সড়ক আন্দোল‌নে আমরা সবাই সোচ্চার হই, প্রিন্ট, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া  রেডিও, এবং ইন্টারনেটে শুরু হয় কত কথার খই।
অ‌নে‌কে সংগঠন নানা ছুতোয়  মানববন্ধ‌ন ও গোল টে‌বিল বৈঠক আয়োজ‌ন ক‌রে থা‌কেন।ভাব সা‌বে যেন, আমরা সবাই মহারাজা
 
অ‌নেক কিছুর প‌রির্বতন ও সৃজনীলতা এসে‌ছে,  একমাত্র প‌রিবহন সেক্টর প্রত্যা‌শিত চা‌হিদা পূর‌ণে বরাবর ব্যর্থ হ‌য়ে‌ছে প্র‌তি‌টি সরকার। আমা‌দের দে‌শে অনেক উন্নয়ন হয়। সরকার আসে সরকার যায়। এক‌টি দূর্ঘটনা যেমন মর্মা‌ন্তিক তেম‌নি যানজ‌টে থম‌কে থাকাটাও এক মর্মা‌ন্তিক ভা‌বে  তি‌লে তি‌লে মানুষ‌কে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়।
আমাদের দৈনন্দিন জীবনের পথ যেন দৈনন্দিন বাধা গ্রস্ত কর‌ছে নাগ‌রিক উন্নয়নের স্বপ্ন ধারা। 
এর থে‌কে  প‌রিত্রান কি আমরা পাবে না?। নিরাপদ সড়ক আমরা আমা‌দের জাদুঘ‌রেও দেখ‌তে পাই না, বাস্তবতায় ক‌বে ফি‌রে পাব কে জা‌নে?
 
‌নিরাপদ আন্দোল‌ন কেবল সম‌য়ের দাবী নয়; আমা‌দের অধিকার।এ আন্দোল‌নের  পিছনে র‌য়ে‌ছে এক শোকগাধা, ঐতিহ্য ও মর্ম‌বেদনা। আমরা ঐতিহ্য ভু‌লে নিরাপদ সড়ক দিব‌সে কি দে‌খি?
 
দুঃখু জনক হ‌লে সত্য ‌যে এতো সড়ক উন্নয়ন হওয়া স‌ত্ত্বেও অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা রোধ করা  সম্ভব হ‌চ্ছে না । প্রতিনিয়ত গড়ে দৈনিক মানুষ মরছে ৬৪ জন।। ম‌নে প্রশ্ন জাগে এই মৃত্যুর জন্য কে দায়ী ? 
সড়ক নৈরাজ্য শেষ  কোথায়?
প্রশ্ন কি কেবল প্রশ্নে থে‌কে যা‌বে? কোন  সমাধন কি আমরা পাব না?
 
নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) সংগঠনের পরিসংখ্যানে মর্মান্তিক তথ্য জানানো হয়। ইলিয়াস কাঞ্চনের নেতৃত্বে পরিচালিত এ সংগঠনটি বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকা, টেলিভিশন চ্যানেল ও অনলাইন পোর্টালের তথ্যানুযায়ী এ পরিসংখ্যান তৈরি করেছে।
সংগঠনের পরিসংখ্যান প্রতিবেদনে দেখা গেছে, গত বছর জানুয়ারী থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট দুর্ঘটনার সংখ্যা প্রায় ৩৩৪৯ টি। ২০১৬ সালের তুলনায় ২০১৭ সালের সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যা ১০৩৩ টি বেশি। এই তথ্য শুধু মিড়িয়ায় প্রকাশিত তথ্যের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে। এছাড়াও আরও অনেক আঞ্চলিক তথ্য অপ্রকাশিত রয়েছে যা কোনো মিডিয়ায় উঠে আসেনি।
২০১৭ সালের সড়ক দুর্ঘটনার মধ্যে বাস,মিনিবাস, মাইক্রোবাস ও প্রাইভেট কার ইত্যাদি দুঘটনা ৯৬৩টি, পণ্যবাহী ট্রাক, মিনি ট্রাক, ইট/বালু/মাটি বহনকারী যানবাহন এর দুর্ঘটনা ঘটেছে ৯৪১ টি, মোটর সাইকেল এর দুর্ঘটনা ৭২০ টি, কাভার্ডভ্যান জাতীয় যানবাহন এর সংখ্যা ১০৭টি ও অন্যন্য (নসিমন, করিমন, ভটভটি, অটোবাইক, সিএনজি-অটোরিক্সা, ইজিবাইক, লেগুনা, টেম্পু, আলমসাধু, মহেন্দ্র, ইঞ্জিন চালিত রিক্সা ইত্যাদি অবৈধ যানবাহনের দুর্ঘটনা ঘটেছে ৬১৮ টি।২০১৭ সালে সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা ৫৬৪৫। ২০১৬ সালে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ৪১৪৪। গত বছরের তুলনায় এ বছর নিহতের সংখ্যা সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যুর হার প্রায় ২৭.৩৬ শতাংশ বেশি।২০১৭ সালে মোট ৩৩৪৯ টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭৯০৮ জন লোক আহত হয়েছে। যাদের মধ্যে প্রায় ১০% হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছে। ২০১৬ সালে ২৩১৬ টি সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হয়েছিল ৫২২৫ জন, এ বছর আহতের সংখ্যা ২৬৮৩ জন বেশি (৩১ ডিসেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত)। গত বছরের তুলনায় আহতের সংখ্যা এবার প্রায় ৩২.৭৯% বেশি বলে রির্পোটে পাওয়া যায়। অনেক ছোট ছোট দূর্ঘটনায় আহতদেরকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা করা হয় যা প্রত্রিকায়ও প্রকাশ হয় না। এদের মধ্যে অনেকেই আজীবনের জন্য পঙ্গুত্ব বরণ করে। যা এই প্রতিবেদনে তুলে ধরা সম্ভব হয়‌নি।
কিন্তু দুঃ‌খের বিষয়, সাইকেল আরোহী নিহতের প‌রিসংখ্যান কোথাও খু‌জে পাওয়া যায়নি। অথচ বিগত বছর গু‌লো‌তে আলাদা সাইকেল না থাকার কারণে অনেক সাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন।তবে, এর কোনো সঠিক প‌রিসংখ্যা‌নে নেই।
এ‌টি সাই‌ক্লিস্ট‌দের জন্য দূভার্গ্যজন হ‌লেও সত্য যে, সড়ক প‌থের আন্দোলন কেবল মটর যানবাহ‌ন ও গণপরিবহ‌নের দি‌কে ফোকাস হ‌চ্ছে  একটু বে‌শি,
তার কারণ খুজে বের করা এখন সম‌য়ের দাবী হ‌য়ে দা‌ঁড়ি‌য়ে‌ছে ।
অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা এখন ‌কেবল মটর যানবহ‌নে হ‌চ্ছে না, পথ চল‌তেও দুর্ঘটনার শিকার হ‌তে হয় পথচ‌ারি‌দের।  আমা‌দের ম‌নে রাখ‌তে হ‌বে, হাটার বিক‌ল্প প্রথম পথ চলার যানবহন বাই সাই‌কেল। সাই‌কেল এক‌টি নিরাপদ যানবাহন, সাই‌ক্লিং সমাজ পা‌রে অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা রোধ কর‌তে l
 
দেশে সাইকেল চালকদের নিরপত্তা নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া জরুরি হয়ে পড়েছে। মটর যানবহন বাই সাই‌কেল এক‌ত্রে চলাচল নিরাপদ নয় বিধায় উন্নত বি‌শ্বে  সাই‌ক্লিস্ট‌দের জন্য পৃথক লেন ও বি‌ভিন্ন সু‌যোগসু‌বিধা প্রদান করা হয়। আমা‌দের সড়ক সাইক্লিস্টদের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। ‌কোন ভা‌বেই নিরাপদ নয়। 
সাই‌ক্লিস্ট‌দের নিরাপত্তা স্বা‌র্থে জেলায় এবং শহর গু‌লো‌তে পৃথক সাইকেল লেন থাকা উচিত। এই আন্দোলন এখন সকলের মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে। এতে করে একদিকে স্বাস্থ্য ভাল থাকবে অন্যদিকে গ্যাস ও তেল অপচয়  রো‌ধে  পৃথক সাইকেল লেন বাংলাদেশের জন্য এখন খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে যানজটের ঢাকা শহরে পৃথক সাইকেল লেন আমাদের পথচলাকে অনেক দূর এগিয়ে নেবে অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা এড়াতে ও  পৃথক সাইকেল লেনের কোনো বিকল্প নেই।ছাত্র‌দের আন্দোল আজ স‌ত্যিকার দেশপ্রেমের প্রতিফলন ঘটি‌য়েছে।আমরা সাই‌ক্লিস্টরা কি পা‌রি না আমা‌দের অধিকারে এভা‌বে এগি‌য়ে ‌নি‌য়ে যে‌তে?
   
আ‌মিনুল ইসলাম টুববুস :
সভাপ‌তি
বাংলা‌দেশ সাই‌কেল লেন বাস্তবায়ন প‌রিষদ

oranjee