ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯ | ৯ ভাদ্র ১৪২৬

 
 
 
 

দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যা, দুর্ভোগে লাখো বানভাসী মানুষ

গ্লোবালটিভিবিডি ৪:৩৭ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৯, ২০১৯

সংগৃহীত ছবি

দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন অববাহিকায় বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে নদ-নদীর পানি। এদিকে, খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকটে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন পানিবন্দি লাখ লাখ মানুষ।

দেশের মধ্যাঞ্চলে দ্রুত বাড়ছে নদনদীর পানি। ফরিদপুরে পদ্মার পানি বেড়ে প্লাবিত হয়েছে নতুন নতুন এলাকা। এছাড়া, হঠাৎ করেই আড়িখাল নদীর ভাঙনে বিলীন হয়েছে সদরপুর উপজেলার ঢেউখালী, আমির খা কান্দি, জাজিরা কান্দি, বন্দখোলা, চরভদ্রাসন উপজেলার চরহরিরামপুর, হাজিগঞ্জ এলাকার অনেক বাড়িঘর।

বগুড়ায় যমুনা ও বাঙ্গালী নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে বইছে। জেলার সারিয়াকান্দি, ধুনট ও সোনাতলা উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের এক লাখেরও বেশি মানুষ পানিবন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন।

টাঙ্গাইলে যমুনা নদীর পানি বেড়ে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে বইছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ১৭০টি গ্রামের কয়েক লাখ মানুষ। জেলার ভুঁইয়াপুর তারাকান্দী যমুনা নদী রক্ষা বাঁধ ভেঙে গেছে। বাঁধ মেরামতে যোগ দিয়েছে সেনাবাহিনী।

সিরাজগঞ্জেও যমুনা নদীর পানি বাড়তে থাকায় প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে জেলার পাঁচ উপজেলার ৩৬টি ইউনিয়নের অন্তত দুই লাখ মানুষ।

ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, জিঞ্জিরামসহ উত্তরের বেশির ভাগ নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। সড়কে পানি ওঠায় নাগেশ্বরী, চিলমারী, ভুরুঙ্গামারী ও ফুলবাড়ী উপজেলার সাথে জেলা সদরের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বাড়তে থাকায় জামালপুরের বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। ৬১টি ইউনিয়নের অন্তত ৫ লাখ মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে পানিবাহিত রোগ। বন্ধ রয়েছে ৯৮৩ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

এদিকে, গাইবান্ধায় ব্রহ্মপুত্র ও ঘাঘট নদীর পানি বেড়ে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে বইছে। খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকটে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন লাখো বানভাসী মানুষ।

এমএস


oranjee