ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

 
 
 
 

চট্টগ্রামের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের বিরুদ্ধে স্ত্রীর যৌতুকের মামলা

গ্লোবালটিভিবিডি ২:৩৭ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৩, ২০১৯

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের শিক্ষানবিস নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মাদ মাসুদুর রহমান রুবেলের বিরুদ্ধে যৌতুক আইনে মামলা করেছেন তার স্ত্রী ফারজানা খানম রিনি।

সোমবার (২ ডিসেম্বর) বিকেলে ঢাকা মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালতে মামলাটি করা হয়। এদিন বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে আদালত ২৯ জানুয়ারি আসামিকে হাজির হতে সমন জারি করেন।

মামলার বাদী আদালতে অভিযোগ করেন— তার স্বামী যৌতুক বাবদ ৫০ লাখ টাকা, একটি ফ্ল্যাট, একটি নতুন প্রাইভেট কার ও ৩০ ভরি সোনার অলঙ্কার দিতে বলেছেন। যৌতুক চেয়ে তিনি শারীরিক ও মানসিকভাবে একাধিকবার নির্যাতনও করেছেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী কাওসার আহম্মেদ জানান, যৌতুক আইনে ভিকটিম মামলা করেছেন। শুনানি শেষে বিচারক বিকেলে আসামির প্রতি সমন জারি করেন।

আদালতে জবানবন্দিতে বাদী বলেন, ‘রুবেলের সঙ্গে আমার দীর্ঘদিনের পরিচয় ছিল। এরপর আমরা আমাদের পরিবারকে না জানিয়ে চলতি বছরের ২০ সেপ্টেম্বর বিয়ে করি। কিন্তু বিয়ের কথা পরিবারের কাউকে না জানাতে রুবেল চাপ দিচ্ছিল। রুবেলের শর্ত ছিল যৌতুক দিতে হবে। তা না হলে আমার সঙ্গে সংসার করবে না বলেও হুমকি দেয়।’

বাদী বলেন, ‘আমার স্বামী আমার কাছে ৫০ লাখ টাকা যৌতুক দাবির পাশাপাশি ফ্ল্যাট-গাড়িও চেয়েছে। যৌতুক দিতে না চাওয়ায় রুবেল আরেকটি বিয়ে করবে বলে হুমকি দিয়েছে। তাই আমি এর বিচার চাই।’

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মাসুদুর রহমান রুবেল বলেন, ‘আমার স্ত্রী মামলা করেছে কি না জানি না। যদি সে যৌতুকের মামলা করে থাকে তবে তা সঠিক নয়।’

তিনি বলেন, ‘স্ত্রীর সঙ্গে আমার বনিবনা হচ্ছিল না। তাই আমি পারিবারিকভাবে বিষয়টি মীমাংসা করতে চেয়েছি। এরইমধ্যে আমি তাকে তালাকের নোটিশও দিয়েছি।’

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘রুবেলের স্ত্রী ফারজানা খানম রিনি আমাকে সমস্যার কথা জানিয়েছিল। এটি জানার পর আমি রুবেলকে সব দায়িত্ব থেকে বিরত রেখেছি এবং বলেছি পারিবারিকভাবে বিষয়টির মীমাংসা করতে। কিন্তু এখন বুঝতে পারছি, সে মীমাংসা করেনি।’

‘এখন রুবেলের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আইন অনুসারে যে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার আমি রুবেলের বিরুদ্ধে সেই ব্যবস্থা নেব। বিষয়টি মন্ত্রণালয়কে আমি লিখিতভাবে জানাবো’ বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক।

এমএইচএন/এমএস


oranjee

আরও খবর :