ঢাকা, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

 
 
 
 

প্রসিকিউটর পদ হারিয়ে যা বললেন তুরিন আফরোজ

গ্লোবালটিভিবিডি ১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১২, ২০১৯

ছবি সংগৃহীত

আসামির সঙ্গে গোপন বৈঠকের ঘটনায় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর পদ থেকে তুরিন আফরোজকে অপসারণ করেছে সরকার। তবে এ ঘটনায় আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দেয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন তুরিন আফরোজ।

জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) ও পাসপোর্ট অধিদফতরের সাবেক মহাপরিচালক (ডিজি) মুহাম্মদ ওয়াহিদুল হকের বিরুদ্ধে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধ মামলা পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজ। গত বছর এপ্রিলে অভিযোগ ওঠে, মামলা পরিচালনার দায়িত্ব পাওয়ার পর ২০১৭ সালের নভেম্বরে ওয়াহিদুল হককে ফোন করে কথা বলেন তুরিন। পরে পরিচয় গোপন করে ঢাকার একটি হোটেলে তার সঙ্গে দেখাও করেন।

ওই অভিযোগ ওঠার পর প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে ওয়াহিদুল ও তুরিনের কথোপকথনের রেকর্ড ও বৈঠকের অডিও রেকর্ডসহ যাবতীয় তথ্যপ্রমাণ আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। এরপর ট্রাইব্যুনালের সব মামলা থেকে সরিয়ে দেয়া হয় তুরিনকে।

তুরিন সেসময় অভিযোগের বিষয়ে সরাসরি কোনো জবাব দেননি। ফেসবুক পোস্টে নিজেকে নির্দোষ দাবি করলেও ওই গোপন বৈঠকের কথা তিনি অস্বীকার করেননি।

এ ব্যাপারে তুরিন আফরোজ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘যে দায়িত্ব আমাকে দেয়া হয়েছিল, আমি একশভাগ সতততার সঙ্গে পালন করেছি। জ্ঞানত আমি এমন কিছু করিনি, যাতে আইন ভঙ্গ বা কোনোভাবে আস্থা ভঙ্গ করেছি। আমি শুনেছি এ বিষয়ে একটি তদন্ত কমিটি হবে, সেখানে নিদেনপক্ষে আমাকে আত্মপক্ষ সমর্থন দেয়ার জন্য ডাকা হবে। না ডেকেই একটা সিদ্ধান্ত দিয়ে দেয়া হল। তারপরও এ সিদ্ধান্ত আমি মেনে নিচ্ছি। মেনে নিতেই হবে।’

তবে, কয়েকেটি গণমাধ্যমে তুরিন এমন কথাও বলেছেন বলে খবর প্রকাশ পেয়েছে,‘আমি মুখ খুললে ট্রাইবুনালের অনেক কিছুই প্রশ্নবিদ্ধ হবে।’

তুরিনের কর্মকাণ্ড ফৌজদারি অপরাধ কি না জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমি তো এ রকম কথা বলতে পারব না, আমার এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য নেই।’

আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেয়া হয়েছিল কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তার সঙ্গে কথা হয়েছে। কিন্তু টেপ করা কথাবার্তা আমরা পেয়েছি এবং তার বিরুদ্ধে নালিশ হয়েছে। সার্বিক আলোচনা করার পর তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।’

এটা চলমান শুদ্ধি অভিযানের অংশ কি না- এ প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আশা করি, যে আইনজীবীরা এ কাজে নিয়োজিত আছেন, তারা তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে অত্যন্ত সজাগ। তাদের নতুন কোনো মেসেজ দিতে হবে বলে আমি মনে করি না।’

এএইচ


oranjee

আরও খবর :