ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

 
 
 
 

দেশে বেআইনী ও অবৈধভাবে চিকিৎসা প্রদান করছেন বিদেশি চিকিৎসকরা

গ্লোবালটিভিবিডি ৯:২৮ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০১, ২০১৯

ছবি গ্লোবাল টিভি

আনিসুর রহমান : ‘নি:সন্তান দম্পতিদের জন্য সুখবর! ফ্রি কন্সালটেশানের সুযোগ! কোলকাতার ইনফারটিলিটি অ্যান্ড আই-ভি-এফ স্পেশালিস্ট ডা. সুপর্ণা ব্যাণার্জির সুচিকিৎসায় ১৫ বছর ধরে নিঃসন্তান পরিবারের ঘরে সন্তান জন্ম দিতে সক্ষম হয়েছে...। ফি মাত্র ১,৫০০ টাকা।’

যদিও বিজ্ঞাপনটিতে শুরুতে বলা হয়েছে, ফ্রি কন্সালটেশানের সুযোগ! তবে ফি-এর অর্থ কি দাঁড়ালো..? বিষয়টি ‘ফাউন্ডেশন ফর ডক্টর সেফটি অ্যান্ড রাইটস (এফডিএসআর)’ নামের সংগঠনটির নজরে আসতেই বিজ্ঞাপনটিতে দেওয়া মুঠোফোন নাম্বারে রোগী সেজে যোগাযোগ করে সংগঠনটির এক নারী সদস্য।

মুঠোফোনের এ আলাপচারিতায় কোলকাতার ডাক্তারের চিকিৎসা ও পরামর্শে নিঃসন্তান দম্পতির ঘরে সন্তান জন্ম নেওয়ার অনেক উজ্জ্বল উদাহরণ শোনানো হয়। যা শুনে যে কেউই হয়তো আকৃষ্ট হবেন। তাই বিষয়টি আরো স্পষ্ট হতে বিজ্ঞাপনে দেওয়া ঠিকানায় রাজধানীর বনানীর ফোরসাইট প্রিনেটাল ক্লিনিকে হাজির হয় গ্লোবাল টিভির অনুসন্ধানী দল ও এফডিএসআরের কর্তা-ব্যাক্তিরা। কিন্তু দরজার কাছে এসেই থমকে যেতে হয়। ক্লিনিকটি বন্ধ। আবারো বিজ্ঞাপনে দেওয়া সেই মুঠোফোন নাম্বারে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়।

এতে বোঝা যায়, আগে থেকে ফি এর টাকা বিকাশ না করায় কনফারমেশন হয়নি রোগীর। তাই এবার পাঁচজন রোগীর ফি একসাথে জমা দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করতে থাকে গ্লোবাল টিভির অনুসন্ধানী দল। দীর্ঘ দুই ঘণ্টার অপেক্ষার পর অবশেষে মুঠোফোনে কথা বলা ফোরসাইট প্রিনেটাল ক্লিনিকের সেই ব্যক্তির দেখা পাওয়া যায়। জানা যায়, তার নাম নূরুল ইসলাম। কিন্তু এফডিএসআরের কর্তাব্যক্তি ও গ্লোবাল টিভি অনুসন্ধানী দলের পরিচয় পেয়ে পালিয়ে যাওয়া চেষ্টা ও ক্লিনিকটির দরজা না খোলার বাহানা দেখান তিনি।

এর পরপরই বনানীর ওই ক্লিনিকে কয়েকজন নি:সন্তান দম্পতি আসেন। তারাও আবার এসেছেন বিজ্ঞাপন দেখে। ছোট আয়তনের একটি ফ্ল্যাটের ভেতরে ওই দৃশ্য দেখে মনেই হয় না এটি একটি ক্লিনিক।

পরে নূরুল ইসলাম নামের সেই ব্যক্তিকে অনেক অনুরোধ করার পরেও ক্লিনিকটির কর্তাব্যক্তি এমনকি কোন চিকিৎসককেও এফডিএসআরের কর্তাব্যক্তিদের সামনে আনেননি।

নূরুল ইসলাম জানান, ডা. লুবনা তার এই ক্লিনিকে বিদেশি চিকিৎসক দিয়ে অনেক বছর ধরেই চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন। তবে এবার বিদেশি চিকিৎসকের জন্য সরকারি ও বিএমএন্ডডিসির অনুমোদন নেয়ার চেষ্টা করছেন তারা।

ফোরসাইট প্রিনেটাল ক্লিনিক সম্পূর্ণ বেআইনীভাবে বিদেশি চিকিৎসক দিয়ে চিকিৎসা কার্যক্রম চালাচ্ছেন ও সরকারকে কর ফাঁকি দিচ্ছেন বলে জানান ফাউন্ডেশন ফর ডক্টর সেফটি অ্যান্ড রাইটস (এফডিএসআর)র মহাসচিব ও উপদেষ্টা ডা. আব্দুন নূর তুষার।

যদিও বাংলাদেশ মেডিকেল এ- ডেন্টাল কাউন্সিল এর বিজ্ঞপ্তিতে স্পষ্ট বলা হয়েছে, দেশে বিএমএন্ডডিসির অনুমতি ছাড়া বিদেশি চিকিৎসকদের চিকিৎসা প্রদান সম্পূর্ণ বেআইনী ও অবৈধ। এরপরও বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান, বিএমএন্ডডিসি ও দেশের প্রচলিত আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে বিদেশি চিকিৎসকদের ব্যবহার করছেন। আর তাদের আইনের আওতায় আনতে ফাউন্ডেশন ফর ডক্টর সেফটি অ্যান্ড রাইটস-এফডিএসআর-এর সদস্যরা তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে বলেও জানান তিনি।

এআর/এমএস


oranjee