ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

 
 
 
 

ভ্যাপসা গরমে ভালো থাকার উপায়

গ্লোবালটিভিবিডি ৫:০৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১৯

অনুরূপ আইচ : কাশ্মীর নিয়ে ভারত পাকিস্তান গরম এখন। দুই দেশের ক্রিকেটার থেকে সিনেমার তারকারা পর্যন্ত এ নিয়ে বাগযুদ্ধে অবতীর্ণ। এর আঁচ পড়েছে বিশ্ব রাজনীতিতেও। এছাড়া ট্রাম্প, কিম কিংবা চীন, রাশিয়া, ইরানের লাগালাগির গরম তো লেগেই থাকে সংবাদ শিরোনাম হয়ে।

এতকিছুর ভিড়ে এখন অ্যামাজনের দাবানলের গরম ছড়াচ্ছে। আর বাংলাদেশজুড়ে এখন তালপাকা গরম পড়ছে। এর ভেতরে ডেঙ্গুর প্রকোপ কমছে না। ভাইরাস জ্বরসহ ডায়রিয়া তো যেন দেশ ছাড়ছেই না।

এসব থেকে মুক্তির প্রথম উপায় হলো- ইবাদত। ইসলাম ধর্মের অনুসারীরা নামাজের আগে যতবার অজু করছেন, তাতেই শরীর থেকে অনেকাংশে রোগ বিতাড়িত হয় পরিচ্ছন্নতার কল্যাণে ও স্রষ্টার রহমতে। সুস্থ ও ভালো থাকার জন্যে হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খৃষ্টান ধর্মের অনুসারীদের ক্ষেত্রেও প্রার্থনার বিকল্প নেই।

তাদেরকেও প্রার্থনার আগে পানির মাধ্যমে শুদ্ধ করতে হয় শরীরকে। কাজেই দেশের সকল মানুষ নিজের ধর্ম চর্চা সঠিকভাবে পালন করলে, এদেশ ও মানুষের প্রতি এমনিতেই স্রষ্টার রহমত বর্ষিত হবে। এতে করে ঘরে ঘরে রোগ-শোক, বিপদ-আপদ কিংবা অনেক সমস্যা ম্রিয়মাণ হবে।

এছাড়াও এই গরমে খাওয়া দাওয়ার ক্ষেত্রে নিউট্রিশিয়ান বা ডাক্তারের পরামর্শ নিন। যেমন এ সময়ে বিশেষ করে কম মশলাযুক্ত খাবার খান। যতটুকু সম্ভব খোলা জায়গায় বানানো ভাজাপোড়া খাবেন না। রাতের বেলায় ভুলেও শাক খাবেন না। সকালে যারা ভাত খেতে পছন্দ করেন তারা শাক খাবেন সকালে। রুটির সাথেও শাক খাওয়ার অভ্যেস করতে পারেন।

ভ্যাপসা গরমের সময় মশুরি ডাল এভয়ড করে মুগডাল খেলে গরম কম লাগবে। তবে যেকোনো পদের ডালের সাথে অবশ্যই পেপে বা লাউ মিশিয়ে রান্না করবেন। এতে পেট শান্তি থাকে। এসময় মাংস খাওয়া এড়িয়ে যেতে পারলে ভালো। না পারলে, গুড়া মরিচ কম দিয়ে মাংস রান্না করুন পেপে দিয়ে। এছাড়া পেপে, লাউ, বরবটি ও ক্যাপসিকাম দিয়ে মাংস স্লাইস করে রান্না করে খেতে পারেন চাইনিজ ভেজিটেবল।

পাঁচমিশেলী সবজি বা যেকোনো সবজি রান্না করুন অল্প মশলায়, খাওয়ার পরে শরীরে শান্তি লাগবে। মাছের তরকারি রান্নায়ও গুড়া মরিচের পরিমাণ কমিয়ে কাঁচা মরিচ ব্যবহার করে স্বাদ ঠিক রাখেন। এতে করে ডায়রিয়া থেকে মুক্ত থাকা যাবে। পাশাপাশি খাবারের আইটেমে টকযুক্ত ডাল বা টক মেশানো পদের আয়োজন রাখুন প্রতিদিন।

এই গরমের সময়ে লেবুর শরবত খান। তবে অবশ্যই শরীরের ঘাম শুকানো অবস্থায় খাবেন। জাম্বুরা চিবিয়ে খান। অথবা জুস বানিয়ে খান। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে।

নিজের ঘর ও বাড়ির আশপাশে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন। যাতে মশা বা অন্য পোকামাকড় আস্তানা গড়তে না পারে। মোটকথা, সচেতনতার বিকল্প নেই।

সবকিছুর পরেও আবারো মনে করিয়ে দিতে চাই, সৃষ্টিকর্তার চেয়ে বড় ডাক্তার নেই। তিনিই সর্বশক্তিমান। তার কাছেই রোগমুক্তি বা রোগ না হওয়ার জন্য রহমত চান। ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলুন। এতেই একমাত্র সকল সমস্যার দ্রুত সমাধান সম্ভব।

লেখক: নির্বাহী সম্পাদক, গ্লোবাল টিভি।

 


oranjee