ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯ | ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

 
 
 
 

হোমিও ঔষধে নরমাল ডেলিভারি সহজ হয় গর্ভবতীর

গ্লোবালটিভিবিডি ১২:০২ পূর্বাহ্ণ, মে ২৪, ২০১৯

ছবি-সংগৃহীত

গর্ভাবস্থায় চিন্তা শুধু একটাই,নরমাল ডেলিভারি হবে তো, নাকি সিজার করাতে হবে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থেকে শুরু করে হসপিটাল ব্যবসায়ী সবাই আজ সিজার করাতে ব্যতিব্যস্ত এর পিছনে অর্থনীতিক কারনই মুল বিষয় ৷ আর তাই সিজারিয়ান ডেলিভারি আজকের দিনে একটি কালচারে পরিনত হয়েছে ৷ যদি আপনার বড়সড় কোন জটিলতা না থাকে তবে গর্ভাবস্থায় কিছু নিয়মকানুন মেনে ও নিরাপদ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা গ্রহন করে স্বাভাবিক ডেলিভারির চেষ্টা করতে পারেন।

গ্রাম-বাংলা থেকে শুরু করে সর্বত্র আস্তা অর্জনে ভূমিকা রাখছে নরমাল ডেলিভারীতে হোমিওপ্যাথিক ঔষধ। অনেক মায়ের কষ্টকর ডেলিভারী থেকে মুক্তি মিলেছে হোমিওপ্যাথিক ঔষধের মাধ্যমে। হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা বিজ্ঞান প্রশংসাও কুঁড়িয়েছে যথেষ্ট। এই অর্জনও মাঝে মাঝে ডাক্তারের সামান্য ভুলের কারনে বিষাদময় হয়ে প্যাথির মান-হানি ঘটছে। যার জন্য হোমিওপ্যাথি দায়ী নয়। দায়ী শুধুমাত্র ডাক্তারের অদক্ষতা ও অজ্ঞতা।

নরমাল ডেলিভারীতে হোমিওপ্যাথিক ঔষধ দেয়ার আগে চিকিৎসকের করণীয়:

চিকিৎসকের প্রথম দায়িত্ব হলো গর্ভবতী মহিলা Risk Mother-এ পড়ে কি না সেটা নিশ্চিত হওয়া। গর্ভবতীর উচ্চতা যদি ৫ফিটের কম অথবা স্বাস্থ্যগত কোন জটিল সমস্যায় ভূগতে থাকে তাহলে তাকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে বিবেচনা করতে হবে। সে ক্ষেত্রে ঔষধ দেয়ার আগে বিবেচনা করতে হবে।এছাড়া Placenta জরায়ুর কোন অংশে implantation হয়েছে সেটা দেখতে হবে। Placenta যদি জরায়ুর anterior, posterior অথবা fundal অংশে implant থাকে তাহলে হোমিওপ্যাথিক ঔষধ বিবেচনা করা যাবে। Placenta previa, Placenta accreta অবস্থায় নরমাল ডেলিভারী করানো ঝুঁকিপূর্ণ। Placenta previa-য় ডেলিভারীর সময় বাচ্চা ডেলিভারীর পূর্বেই গর্ভফুল জরায়ু থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় বাচ্চার hypoxia দেখা দিবে এবং মৃতবাচ্চা প্রসব হতে পারে।

আর Placenta accrete-য় গর্ভফুল জরায়ুর দেয়ালে গভীরভাবে লেগে থাকে যার ফলে ডেলিভারীর পর অধিক রক্তক্ষরণ হয়ে মায়ের মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। এরপর দেখতে হবে amniotic fluid-এর পরিমান কতো-সাধারণত ২৮সপ্তাহের পরে ৪০০-৫০০মিলি amniotic fluid থাকা জরুরী। এর কম হলে নরমাল ডেলিভারীতে ঝুঁকি থাকে। বাচ্চার হার্টবিটও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। নরমাল ফিটাল হার্টবিট হলো ১২০-১৬০বিপিএম, এর কম থাকলে নরমাল ডেলিভারীর জন্য হোমিওপ্যাথিক ঔষধ দেয়া বিধেয় নয়।

Cephalo-Pelvic disproportion-এ মায়ের পেলভিসের চেয়ে বাচ্চার মাথা বড় থাকে যার ফলে ডেলিভারীর সময় বাচ্চার মাথায় আঘাত পেয়ে প্রতিবন্ধি হতে পারে এবং মায়ের VVF দেখা দিতে পারে সুতরাং এখানেও ঔষধ দেয়া অনুচিত। এসকল বিষয়গুলো আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্ট দেখে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এছাড়াও কিছু মেডিক্যাল রিলেটেড বিষয় বিবেচনা করে দেখতে হবে নরমাল ডেলিভারীর জন্য কতটা যুক্তিযুক্ত।

সকল বিষয় বিবেচনা করে যখন দেখা যাচ্ছে নরমাল ডেলিভারীতে বাচ্চা এবং মায়ের জন্য ঝুঁকির সম্ভাবনা নেই কিন্তু মায়ের মধ্যে কিছু অস্বাভাবিকতা আছে যা হোমিওপ্যাথিক ঔষধে সমাধানযোগ্য তখন লক্ষণ সংগ্রহ করতে হবে এবং প্রয়োজনীয় ঔষধটি ডেলিভারীর সময় গর্ভবতীকে খাওয়ানো যাবে।

লেখক: ডা. ইখতিয়ার উদ্দিন, হোমিও চিকিৎসক-ভাওয়াল হোমিও ক্লিনিক। টঙ্গী, গাজীপুর।

 

 


oranjee