ঢাকা, সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

 
 
 
 

বিশ্বকাপ নিয়ে আগ্রহ কমে গেছে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের

অনুরূপ আইচ ১২:২৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৯, ২০১৯

বাংলাদেশের ক্রিকেট প্রেমীরা এখনও বিশ্বকাপের খোঁজ রাখবেন বা দেখবেন পরবর্তি খেলাগুলো। কিন্তু দেশের সাধারণ মানুষের মাঝে আর উত্তাপ ছড়াচ্ছে না বিশ্বকাপ।

যেন বাংলাদেশ দল ফিরে আসার পরে কার্যত শেষ হয়ে গেছে কোটি বাংলাদেশের বিশ্বকাপ।
বিশ্বকাপে বাংলাদেশের খেলা থাকলে দেশের প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে খেটে খাওয়া মানুষ কিংবা মসজিদের ইমাম অথবা মন্দিরের পূজারীও মনপ্রাণ দিয়ে জয় চাইতেন দেশের। সেই যে একটা টান, কিংবা পরাজয়ে অভিমান করে রাতে ভাত না খাওয়া, অথবা কষ্টে ঘুমাতে না পারা- সেই স্পৃহা আর বিশ্বকাপ নিয়ে নেই বাংলাদেশের ঘরে ঘরে।

যদিও বিশ্বকাপ এখনো শেষ হয়নি। আজকে সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে ভারত ও নিউজিল্যান্ড। এ নিয়েও যেন সাধারণ মানুষের ভাষ্য, আমাদের তো কোনো লাভ নেই।

আসলে এই অনুভুতিও অনেক বড় দেশপ্রেম। ক্রিকেটের মতো অনেক দিক দিয়ে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে বলেই মানুষের মাঝে দেশপ্রেম বা দেশের প্রতি টান বাড়ছে আগের তুলনায়।

তবে সেমিফাইনালে যেতে না পারলেও এবারের বিশ্বকাপে বাংলাদেশের অর্জন অনেক। বড় দলগুলোকে হারানোর সামর্থ্য আরো ভালভাবে দেখিয়েছে বাংলাদেশ। বিশ্বের তাবৎ ক্রিকেট প্রেমী এবং বিশ্বখ্যাত ধারাভাষ্যকারদের মুখেও অকুণ্ঠ প্রশংসা ঝরেছে। বাংলাদেশের বড় শক্তি যে দর্শক, তারা ইংল্যান্ডের গ্যালারিগুলোকে বাংলাদেশের হোমগ্রাউন্ডে পরিণত করেছিল।

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অর্জন বিশ্বকাপের মতো আসরে একটি জয়ের আশাকে পেছনে ফেলে ধারাবাহিক জয়ের মানসিকতা ধারণ করা। বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি রান তাড়া করে জেতার রেকর্ডটি এখন বাংলাদেশের। ব্যক্তিগত রেকর্ডের ক্ষেত্রে সাকিবের কৃতৃত্বকে শুধু বলতে হয় অসাধারণ। বিশ্বকাপের ইতিহাসে ভারতের যুবরাজের পর দ্বিতীয় ক্রিকেটার হিসেবে পাঁচ উইকেট ও সেঞ্চুরি করেছেন।

বাংলাদেশের বোলিংয়ে বিস্ময় বালক মোস্তাফিজুর রহমান পরপর দুই ম্যাচে পাঁচ উইকেট যেমন নিয়েছেন তেমনি ওয়ানডেতে চতুর্থ দ্রুততম বোলার হিসেবে ১০০ উইকেটের মাইলফলক ছুঁয়েছেন। এছাড়া মুশফিকুর রহিম, তামিম, মাহমুদুল্লাহ’র মতো সিনিয়র ক্রিকেটারদের পাশাপাশি সাইফুদ্দিন, মিরাজ, মোসাদ্দেক, লিটন দাসের মতো তরুণ ক্রিকেটাররা তাদের প্রতিভা দেখিয়েছেন। বাংলাদেশের ক্রিকেটের অগ্রগতির পথে এবারের বিশ্বকাপটি হয়ে থাকবে স্বপ্নের এক বিশ্বকাপ। তাই হতাশার কিছুই নেই। এই ক্রিকেট দিয়েই এগিয়ে যাবে বংলাদেশ।



oranjee