ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

 
 
 
 

বিশেষ ব্যবস্থায় দেশে ঢুকেছে ২৫৭ ট্রাক ভারতীয় পেঁয়াজ

গ্লোবালটিভিবিডি ১১:১৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ০৫, ২০১৯

ফাইল ছবি

শুক্রবার বিশেষ ব্যবস্থায় হিলি ও সোনামসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে দেশে ঢুকেছে ২৫৭ ট্রাক ভারতীয় পেঁয়াজ। এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে মিয়ানমার থেকে ২০ ট্রাক পেঁয়াজ ঢুকেছে চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে। এছাড়া মিসরের পেঁয়াজের চালানও ঢাকায় পৌঁছেছে বলে জানা যায়।

তবে এরপরও খুচরা বাজারের চিত্র খুব একটা বদলায়নি। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে (খুচরা) শুক্রবার দেশি পেঁয়াজ বৃহস্পতিবারের মতোই বিক্রি হয়েছে ১০০-১১০ টাকায় (ভালোটা ১২০ টাকা), ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৯০-১০০ টাকায়, মিসরের পেঁয়াজ ৮০-৯০ টাকায়।

জানা গেছে, দিনাজপুর ও শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, হিলি স্থলবন্দরের ওপারে টানা ৫ দিন আটকে থাকার পর শুক্রবার দেশে ঢোকে পেঁয়াজবাহী ৫৭টি ট্রাক। এসব ট্রাকে ভারত থেকে ৯৪৬ টন পেঁয়াজ এলেও বন্দরে আটকে থাকায় বেশিরভাগ পেঁয়াজ নষ্ট হয়েছে বলে জানিয়েছেন হিলি বন্দরের আমদানিকারকরা।

অন্যদিকে ভারতের মহদিপুরে ৭ দিন আটকে থাকার পর এদিন পেঁয়াজবাহী ২০০টি ট্রাক সোনামসজিদ স্থলবন্দরে প্রবেশ করেছে। দুই স্থলবন্দর দিয়ে দেশে পেঁয়াজ আসায় কমেছে দাম। শুক্রবার হিলিবন্দরে প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয় ৫০ থেকে ৫২ টাকায়।

আমদানিকারক বাবলুর রহমান বলেন, ৫ দিন আটকে থাকায় গরমে বেশিরভাগ পোঁয়াজ নষ্ট হয়ে গেছে। গাড়ি বেয়ে পেঁয়াজ পচা পানি ঝরছে। গুদামে নিয়ে বাছাই করে তারপর এসব পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে সোনামসজিদ স্থলবন্দরের দায়িতরত্ব কাস্টমস পরিদর্শক বুলবুল জানিয়েছেন, ভারতের মহদিপুর স্থলবন্দরে ৭ দিন আটকে থাকা পেঁয়াজ ভর্তি ২০০ ট্রাক শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে সোনামসজিদ স্থলবন্দরে প্রবেশ করতে শুরু করে।

চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, চট্টগ্রামের পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমলেও খুচরায় দাম কমার কোনো লক্ষণ নেই। নগরীতে খুচরা বাজারে ভারতীয় বা মিয়ানমারের পেঁয়াজ ৮৫ থেকে ৯০ টাকায় বিক্রি হলেও উপজেলা পর্যায় ও প্রত্যন্ত এলাকায় পেঁয়াজ এখনও ১০০ টাকার বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।

এএইচ

 


oranjee