ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৯ | ১১ মাঘ ১৪২৫

 
 
 
 

গ্লোবাল টিভি অ্যাপস

বিষয় :

ঢাকা

  • সোমবার দেখা যাবে ‘সুপার ব্লাড মুন’
  • একটি নারকেলের মালার দাম ১৩০০ টাকা!
  • ব্রাজিলের আকাশে মাকড়সা বৃষ্টি!
  • চলন্ত প্লেনে ঢুকলো ময়না পাখি!
  • ২০১৯ সালের ক্যালেন্ডার হুবহু ১৮৯৫ সালের মতো!
  • ৩৯ জনকে সাক্ষী রেখে হলোগ্রামকেই বিয়ে করলেন তিনি!
  • ব্রিটিশ রানী ৫০ বছর ধরে ব্যবহার করছেন একই হ্যান্ডব্যাগ!

দশ বছর চেতনাহীন নারীর বাচ্চা নিয়ে তুলকালাম

গ্লোবালটিভিবিডি ৪:৩৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ০৯, ২০১৯

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি কেয়ার হোমে এক দশকেরও বেশি সময় চেতনাহীন অবস্থায় থাকা এক রোগীর বাচ্চা হওয়ার ঘটনায় শুরু হয়েছে প্রবল হৈচৈ। এই ঘটনার জেরে ঐ কেয়ার হোমটির প্রধান নির্বাহী পদত্যাগ করেছেন।

যৌন নিপীড়নের অভিযোগ পুলিশ তদন্তও শুরু করেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্যের ফিনিক্স শহরের কাছে। সেখানে হাসিয়েন্দা হেলথ কেয়ারের একটি ক্লিনিকে ঐ নারী এক দশকেরও বেশি সময় ধরে চেতনাহীন অবস্থায় ছিলেন এবং তাকে সার্বক্ষণিক সেবা দিতে হতো। কিন্তু ওই নারী গত ২৯ ডিসেম্বরে একটি সন্তান জন্মদান করেন। রোগীর পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

সেখানকার স্থানীয় এক চ্যানেল কেএইচ-ও টিভি তার সংবাদে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সূত্রকে উদ্ধৃত করে বলেছে, ‘আমি যেটা শুনছি তা হলো হঠাৎ করেই ওই রোগী গোঙাতে থাকেন এবং কেউ বুঝতে পারছিলেন যে তিনি কেন গোঙাচ্ছিলেন।’
তবে, বাচ্চার জন্ম হওয়ার আগ পর্যন্তও স্টাফদের মধ্যে কেউ বুঝতেই পারেন নি যে মহিলা অন্তঃসত্ত্বা।

অচেতন রোগীর প্রসব যন্ত্রণা শুরু হলে হাসপাতাল কর্মীরা হতবাক হয়ে পড়েন।

কেয়ার হোমের মালিক কোম্পানির নির্বাহী ভাইস প্রেসিডেন্ট গ্যারি অরম্যান বলেন, ‘এই ভয়াবহ ঘটনার পুরোটা না জানা পর্যন্ত আমরা থেমে থাকবো না।’

নিউইয়র্ক টাইমস খবর দিচ্ছে যে, ঐ কেয়ার হোম সম্পর্কে কিছু নতুন অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অভিযোগে বলা হচ্ছে, 'ভিজিটেটভি স্টেটে' থাকা এসব জ্ঞানহীন রোগীদের পোশাক পরিবর্তন বা তাদের গোসল করানো সময় তাদের নগ্ন করে রাখা হতো এবং কোন ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষা করা হতো না।

এই ঘটনায় ফিনিক্স পুলিশের একজন মুখপাত্র বিস্তারিত তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানান এবং বলেন যে এই ঘটনা নিয়ে তাদের তদন্ত চলছে।

ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর কেয়ার হোমের কিছু নিয়মকানুনে পরিবর্তন আনা হয়েছে।

এখন কেয়ার হোম কর্মী কোন নারী রোগীর ঘরে ঢুকতে চাইলে তাকে একজন নারী সহকর্মীকে সঙ্গে রাখতে হবে।

হাসিয়েন্দা হেলথ কেয়ার তার ওয়েবসাইটে বলে থাকে, কঠিন অসুখে পড়া রোগী এবং দুর্বল নারী, শিশু, টিনএজার ও তরুণদের তারা সেবা দিয়ে থাকে।

এএইচ/এমএস


oranjee