ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

 
 
 
 

ঢেলে সাজানো হচ্ছে ডিএমপিকে, শুরু হচ্ছে শুদ্ধি অভিযান

২৩ সহকারী কমিশনারকে বদলি, সাময়িক বরখাস্ত পুলিশের দুই সদস্য

গ্লোবালটিভিবিডি ২:৩৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯

মোয়াজ্জেম হোসেন নাননু : ঢেলে সাজানো হচ্ছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশকে (ডিএমপি)। একই সঙ্গে শুরু হচ্ছে শুদ্ধি অভিযান। এরই অংশ হিসেবে ক্যাসিনো কারবারে যুক্ত ১৯ নেপালি নাগরিককে পালাতে সহায়তার অভিযোগে পুলিশের দুই সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

বরখাস্তকৃতরা হচ্ছেন- রমনা থানার কনষ্টেবল দীপঙ্কর চাকমা ও ডিএমপির প্রতিরক্ষা বিভাগের এএসআই গোলাম হোসেন মিঠু। এর বাইরে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের এক কর্মকর্তাকে ঢাকার বাইরে বদলি করা হয়েছে। শনিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ডিএমপি’তে সহকারি পুলিশ কমিশনার পদমর্যাদার ২৩ কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকার ৫০ থানায় কর্মরত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের (ওসি) আমলনামা সংগ্রহ করছেন পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম। এর মধ্যে যেসব থানার অধীনে ক্যাসিনো কারবারসহ নানা অপকর্ম চলতো তাদের কয়েকজনকে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে যারা বছরের পর বছর ডিএমপিতে দায়িত্ব পালন করছেন তাদের ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) একাধিক শীর্ষ কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে এ ধরণের তথ্য পাওয়া গেছে।

আলাপকালে একাধিক কর্মকর্তা গ্লোবালটিভিবিডিকে বলেছেন, ঢাকার ৫০ থানার ওসির মধ্যে অন্তত ১৩ জনের বিরুদ্ধে বিরুপ তথ্য মিলেছে। কয়েকজন ওসির বিরুদ্ধে ক্যাসিনো বাণিজ্যের টাকার ভাগ নেয়ার তথ্যও পেয়েছে ডিএমপি সদর দপ্তর। ডিএমপির বেশ কয়েকটি থানার ওসির বিরুদ্ধে সেবাপ্রত্যাশী মানুষকে হয়রানিসহ নানা ধরণের দুর্নীতিতে জড়িত থাকার তথ্য পাওয়া গেছে। ওসির পদ থেকে এসব কর্মকর্তাদের সরিয়ে দেয়াসহ খুব শিগগিরই তাদেরকে ডিএমপির বাইরে বদলি এবং অন্যান্য প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে বলে ডিএমপির একাধিক শীর্ষ কর্মকর্তা আভাস দিয়েছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী গ্রেফতারকৃত সাবেক যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে জিজ্ঞাসাবাদে বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অবৈধ ক্যাসিনো থেকে নিয়মিত টাকা নেয়ার তথ্য পেয়েছে তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। এসব তথ্য যাচাই-বাছাইয়ের পর পর্যায়ক্রমে ডিএমপি সদর দফতর অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেবে বলে জানা গেছে।

এদিকে গত সপ্তাহে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরুর পরদিন (বৃহস্পতিবার) বিকালে পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তাদের সঙ্গে জরুরী বৈঠক করেন। সেখানে তিনি গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের কঠোর বার্তা দিয়ে বলেন, গোয়েন্দা পুলিশের কোনো সদস্য ঘুষ-দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত হলে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এসময় তিনি গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যদের সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে বলেন।

এর দু’দিন পর ক্যাসিনোবাণিজ্যে জড়িত ১৯ নেপালি নাগরিককে পালাতে সহায়তা করার অভিযোগে পুলিশের দুই সদস্যকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ দেন। এ ঘটনায় জড়িত বাকি সদস্যদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে বলে জানা গেছে। এদিকে গত ২৮ সেপ্টেম্বর (শনিবার) ডিএমপি’তে সহকারি পুলিশ কমিশনার পদমর্যাদার ২৩ কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে।
ডিএমপিকে ঢেলে সাজাতে এ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক কর্মকর্তা গ্লোবালটিভিবিডি কে জানিয়েছেন।

এমএইচএন/এমএস


oranjee