ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

 
 
 
 

গ্লোবাল টিভির অনুসন্ধানী রিপোর্টে বেরিয়ে এলো কারওয়ানবাজারে মিরাজ হত্যার রহস্য

রেলে কাটা পড়ে নয়, হত্যা করা হয় গ্যারেজ মিস্ত্রি মিরাজকে

গ্লোবালটিভিবিডি ৬:৩৮ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০২, ২০১৯

ছেলে মিরাজের শোকে বারে-বারে মূর্ছা যাচ্ছেন মা রাহেলা

সংসারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ছেলে হিসেবে পরিবারের সবাইকে নিয়ে রাজধানীর মগবাজারে একসাথে বসবাস করতেন মিরাজ। প্রথমবারের মতো এবার ঈদে পশু কোরবানী দেয়ার কথা থাকলেও, ভাগ্যের চরম পরিহাস সে নিজেই কোরবানী হবে এমনটা কখনো ভাবতেও পারেননি নাইট গার্ডের চাকুরি করা মিরাজের বৃদ্ধ পিতা।

গত বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর কারওয়ান বাজার সংলগ্ন রেইল লাইন থেকে এক চোখ উপড়ে ফেলা ও পা থেতলানো রক্তাক্ত মুমূর্ষু অবস্থায় মিরাজকে স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজে ভর্তি করে। প্রায় এক সপ্তাহ মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে সকালে মারা যান গ্যারেজ মিস্ত্রি মিরাজ। এসময় গ্যারেজ মালিক মিরাজকে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ ওঠে।

এদিকে ছেলেকে হারিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন সন্তানহারা এক অসহায় বৃদ্ধ দম্পতি। ২০ বছর বয়সী ছেলে মিরাজের শোকে বারে-বারে মূর্ছা যাচ্ছেন মা রাহেলা।

মিরাজের মৃত্যুর অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ে গ্লোবাল টিভির অনুসন্ধানী দল ছুটে যায় কারওয়ান বাজারের গ্যারেজ মালিক ইদ্রিস আলীর কাছে। তিনি মিরাজকে হত্যার অভিযোগ প্রত্যাখান করে বলেন, প্রায় ৬ বছর যাবত তার গ্যারেজে কাজ করেন মিরাজ, আর ট্রেনে কাটা পড়েই নাকি মৃত্যু হয়েছে তার।

এদিকে মিরাজ হত্যার ঘটনাস্থলে গেলে এক পক্ষ প্রত্যক্ষদর্শী জানান, মাদক সেবন অবস্থায় রেলে কাটা পড়ে মিরাজের মৃত্যু হয়েছে। তবে ঠিক কখন মিরাজ রেলে কাটা পড়েছে তার সদউত্তর দিতে পারেনি।

এতে স্পষ্ট মিরাজের মৃত্যু ট্রেনে কাটা পড়েই হয়েছে। তবে চোখ উপড়ে ফেলার বিষয়টি নিয়ে সন্দেহের দানা বাঁধে গ্লোবাল টিভির অনুসন্দানী দলের। আরো একটু স্পষ্ট হতে সামনে এগুতেই বেরিয়ে আসে থলের বিড়াল। জানা যায় রনি নামের এক মাদক ব্যবসায়ীই মিরাজকে রড দিয়ে পিটিয়ে চোখ উপড়ে ফেলেছে ।

পরে পুলিশের সহযোগিতায় তৎক্ষণাত গ্রেফতার করা হয় ওই মাদক ব্যবসায়ী রনিকে।

এদিকে গ্লোবাল টিভির সহযোগিতায় মিরাজের হত্যাকারী দ্রুত গ্রেফতার হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। তারা মনে করেন, কাউকে হত্যা করে রেল লাইনে ফেলে দিয়ে খুব সহজেই ট্রেনে কাটা পড়ে মৃত্যু হয়েছে বলে চালিয়ে থাকে অপরাধীরা। তবে সঠিক অনুসন্ধানেই বেরিয়ে আসে কোন হত্যার প্রকৃত রহস্য। এসব ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে বলেও জানান তারা।

 

এমএস


oranjee