ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯ | ৬ আষাঢ় ১৪২৬

 
 
 
 

ব্রিস্টলে বৃষ্টির কারণে অনিশ্চয়তায় বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ

গ্লোবালটিভিবিডি ৩:১৭ অপরাহ্ণ, জুন ১১, ২০১৯

সংগৃহীত ছবি

ব্রিস্টলে বৃষ্টির কারণে বড় অনিশ্চয়তায় পড়েছে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ। নির্ধারিত সময়ে হয়নি টস। আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, দিনভর চলবে বৃষ্টি। অবশ্য আগেই জানা ছিল অতি নাটকীয় কিছু না ঘটলে যথাসময়ে শুরু করা যাবে না ম্যাচটি। 

স্থানীয় সময় ১০টায় ও বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে তিনটায় শুরু হওয়ার কথা ছিল ম্যাচটি। টস হওয়ার কথা আধা ঘণ্টা আগে। কিন্তু বৃষ্টির কারণে নির্ধারিত সময়ে কোনোটাই সম্ভব হচ্ছে না।

তবু ম্যাচ শুরুর আগপর্যন্ত আশায় বসেছিলেন কোটি ক্রিকেটভক্তরা। সবার প্রার্থনায় ছিল প্রকৃতির কাছ থেকে ভালো কোনো খবর পাওয়ার। তা হয়নি।

আইসিসির পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়েছে সকাল সাড়ে ১০টায় অর্থাৎ ম্যাচ শুরুর সময়টায় পিচ পরিদর্শনে যাবেন দুই আম্পায়ার রিচার্ড ইলিংওর্থ এবং রিচার্ড কেটেলব্রো। এরপর জানা যাবে কখন শুরু হবে ম্যাচ বা আদৌ মাঠে গড়াবে কি-না খেলা।

এদিকে ব্রিস্টলের কাউন্টি গ্রাউন্ডের বর্তমান আবহাওয়ার পরিস্থিতি হলো, বৃষ্টি নেই তবে বাতাস রয়েছে প্রচুর। আকাশে মেঘের উপস্থিতিও বেশ। যেকোনো সময় নেমে যেতে পারে ঝুম বৃষ্টি। তবু বাতাস থাকায় রয়েছে খানিক আশার আলো।

এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল নির্ধারিত সময়ে টিম হোটেল থেকেও বের হয়নি। পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী স্থানীয় সময় সকাল ৮টা ৪০ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টা ৪০ মিনিট) হোটেল ছেড়ে মাঠে যাওয়ার কথা ছিল মাশরাফি-সাকিবদের। তার বদলে স্থানীয় সময় বেলা ১০.৪০ মিনিটে টিম হোটেল থেকে রওনা হবে তারা।

এদিকে টানা বৃষ্টির কারণে স্থানীয় প্রবাসী বাঙালিদের উৎসাহে ভাটা চলে এসেছে। তাদের অনেকে ধরে নিয়েছেন মাঠেই গড়াবে না আজকের ম্যাচটি। হলেও দুপুরের পর কুড়ি-পঁচিশ ওভারের খেলা হতে পারে। কারণ আবহাওয়ার পূর্বাভাসে আগেই জানা গিয়েছিল সকাল ৯টা (বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টা) থেকেই বৃষ্টির সমূহ সম্ভাবনা।

আবহাওয়ার পূর্বাভাস শুরুতে ৮০ শতাংশ বৃষ্টির কথা বলা থাকলেও সেটা সকাল ১০টা থেকে বেড়ে যাবে ৯৯ শতাংশে। তবে দিন যত এগুবে বৃষ্টির সম্ভাবনা ততই কমবে বলে জানাচ্ছে স্থানীয় আবহাওয়া অধিদপ্তর। তবে যে সময় খেলাটা শুরু হবে অর্থাৎ সকাল সাড়ে ১০টার সময়েও বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে প্রায় ৯০ শতাংশ। ফলে খেলা মাঠে গড়ানো নিয়েই রয়েছে শঙ্কা।

এমএস


oranjee