ঢাকা, বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

 
 
 
 

কেন্দ্রীয় কারাগারের সেই রক্তাক্ত কক্ষ

গ্লোবালটিভিবিডি ৭:১৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৩, ২০১৯

সংগৃহীত ছবি

আনিসুর রহমান : স্বাধীনতার মাত্র সাড়ে তিনবছরের মাথায় পরাজিত শক্তিরা ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট নির্মমভাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করে। জাতির এমন ক্রান্তিকালে মুজিবনগর সরকারের নেতৃত্ব দেন, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, এম মনসুর আলী ও এ এইচ এম কামারুজ্জামান এই চার নেতা। গড়ে তোলেন তৎকালীন অস্থায়ী মুজিবনগর সরকার।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ঠিক আড়াই মাস পরেই জাতীয় চার নেতাকে হত্যার নির্দেশ আসে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি খন্দকার মুশতাকের পক্ষ থেকে।

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর। তৎকালীন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে তিনটি কক্ষে বন্দী করা হয় মুজিবনগর সরকারের নেতৃত্বে থাকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চার ঘনিষ্ঠ সহচর রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এম মনসুর আলী ও ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী এ এইচ এম কামারুজ্জামান।

কারাগারের ভেতরে কতিপয় বিপথগামী সেনাদের বুলেট ঝাঁজরা করে দেয় জাতির এই চার নেতার প্রাণ। সেদিনের সেই নির্মমতার স্বাক্ষী হয়ে আছে বন্দীশালার রক্তাক্ত চার দেয়াল ও ব্যবহৃত আসবাবপত্র। জাতির চার এই সূর্যসন্তানকে হত্যার পর তাদের রক্তাক্ত নিথর দেহ এনে রাখা হয় এই স্থানে।

এদিকে দিবসটি উপলক্ষে সকালে পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে জাতীয় চার নেতা ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠন, বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। পরে জাতীয় চার নেতার শহীদস্থলে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে অংশ নেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এআর/এমএস


oranjee