ঢাকা, শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৫ আশ্বিন ১৪২৬

 
 
 
 

সড়কে ও পরিবহনে শৃঙ্খলা নেই: ওবায়দুল কাদের

গ্লোবালটিভিবিডি ৩:৫১ অপরাহ্ণ, জুন ০৩, ২০১৯

সংগৃহীত ছবি

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘পরিবহনেও শৃঙ্খলা নেই, সড়কেও শৃঙ্খলা নেই। আমাদের এখন সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে শৃঙ্খলা।’

সোমবার (৩ জুন) সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যুতে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘এ দেশে সততার সাথে কাজ করা একটা চ্যালেঞ্জ। সত্য কথা আমরা খুব কম লোকই বলি। রাজনীতিতে সৎ মানুষের সংখ্যা খুব বেশি নেই। আমরা সবাই সৎ হলে দেশের চেহারাটা বদলে যেত। আমাদের এখানে অবকাঠামোগত উন্নয়ন আশাতিরিক্ত হয়েছে। কিন্তু ডিসিপ্লিনের অভাবে এর সুফল আমরা জনগণের কাছে পৌঁছাতে পারিনি। এখানে শৃঙ্খলা হচ্ছে বড় সঙ্কট। পরিবহনেও শৃঙ্খলা নেই এবং সড়কেও শৃঙ্খলা নেই। আমাদের এখন সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে শৃঙ্খলা।’

মন্ত্রী বলেন, ‘শৃঙ্খলার সঙ্কট যদি আমরা কাটাতে পারি, তাহলে এ দেশে যোগাযোগ ব্যবস্থায় অনেক স্বস্তি আসবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘ঈদযাত্রা এর আগে এত স্বস্তিদায়ক হয়নি। কোথাও থেকে বড় ধরনের যানজটের খবর পাইনি। আজকে একটু চাপ বাড়বে গার্মেন্টস ছুটির পর বিকেলে। বৃষ্টি-বাদল হলে যানবাহনের ধীর গতি হতে পারে। এমনটাই সবাই বিশ্বাস করেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম ৪ ঘণ্টায় যাচ্ছে। আমরা বহুদিন পর স্বস্তির জায়গায় এসেছি। এই স্বস্তিদায়ক যাত্রা আগামী দিনেও রাখতে চাই। শুধু ঈদ কেন, সারা বছরই রাস্তায় স্বস্তি থাকবে, এটাই জনগণ আশা করে।’

চিকিৎসকদের বারণ সত্ত্বেও দুটি বাস টার্মিনাল পরিদর্শন করেছেন জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘অতিরিক্ত ভাড়ার অভিযোগ আছে। মালিকরা একটা বিষয় বলার চেষ্টা করেছে, আসার পথে তারা খালি আসে। আমি বলেছি, আপনারা ঈদের সময়টায় আয়ের বিষয়টি একটা সংযমের সাথে করবেন।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সব কথায় কাজ হয়? এমন হলে তো বাংলাদেশ এতদিনে সোনার বাংলা হয়ে যেতে। সব কথায়ও কাজ হয় না, আবার সব সত্য কথাও আমরা বলি না। এখানে বিপদে পড়ে জনগণ, অশান্তির কারণ তারা (জনগণ) সৃষ্টি করে না, আমরা প্রভাবশালীরাই সৃষ্টি করি।’

তিনি বলেন, ‘টোকিও শহরের রাস্তা আমাদের চেয়ে প্রশস্ত নয়। তারপরও সেখানে শৃঙ্খলা এমন যে দুর্ঘটনাও হয় না, যানজটও হয় না। আমাদের এখানে রাস্তায় যানজটের সঙ্গে জনজটও হয়ে যায়। এখানে জলজট, জনজট ও যানজট- তিনটি মিলিমিশে একাকার। এটা ঢাকা ও চট্টগ্রাম শহরের যানজট সমস্যাকে অসহনীয় করে তুলছে।’

তিনি বলেন, ‘শুধুমাত্র লিপ সার্ভিস দিয়ে আমরা দিস্তার পর দিস্তা কাগজ আমরা লিখেছি। রিপোর্ট করেছি, তদন্ত কমিটি করেছি। কিন্তু সমস্যার সমাধান...যতটা রেজাল্ট আসার কথা সেই রেজাল্ট আসেনি। ....মানুষকে লিপ সার্ভিস দিয়ে আর কতকাল খুশি রাখা যাবে? মানুষ সত্যিকার অর্থে বাস্তব সমাধান চায়।’

কাদের বলেন, ‘বিমানবন্দর থেকে গাজীপুর বাস র্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পটি এত দুর্ভোগের সৃষ্টি করেছে যে আমি যদি আগে বুঝতাম তবে এই প্রকল্পটির বিকল্প চিন্তা করতাম।’

তিনি বলেন, রাজনীতিতে যাতে সামাজিক সম্পর্ক ও সৌজন্যবোধ বজায় থাকে সেই উদ্যোগ আগামীতে আওয়ামী লীগ নেবে।

এএইচ/এমএস


oranjee