ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯ | ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

 
 
 
 

গ্লোবাল টিভি অ্যাপস

বিষয় :

ঢাকা

  • বিভিন্ন পেশার মানুষের সাথে প্রধানমন্ত্রীর ইফতার
  • কবি হেলাল হাফিজ গুরুতর অসুস্থ
  • হাজারিবাগ বেড়িবাঁধে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২
  • বিএসটিআই’র পরীক্ষা ছাড়া ৫২ পণ্য বাজারজাত করা যাবে না
  • ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় পাসের হার ২০ দশমিক ৫৩ শতাংশ
  • ঈদে সারাদেশে নিরাপত্তা জোরদার করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • এসএ পরিবহনের পার্সেল থেকে ১ লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার

চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে অধিকাংশ সবজি

গ্লোবালটিভিবিডি ২:৪৭ অপরাহ্ণ, মে ১০, ২০১৯

সংগৃহীত ছবি

পবিত্র মাহে রমজান মাসে পেঁয়াজ, কাঁচা মরিচ, সবজি, মাছ ও মাংসের দাম নতুন করে না বাড়লেও আগের মতোই চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে অধিকাংশ সবজি।

শুক্রবার রাজধানীর মিরপুর, শেওড়াপাড়া, কাওরান বাজার, নিউ মার্কেটসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

মিরপুর শেওড়াপাড়া বাজার ঘুরে দেখা যায়, সিটি কর্পোরেশনের নিধারিত ৫২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে গরুর মাংস। যেখানে গত দুইদিন আগেও গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছিল ৫৭০ টাকা কেজি।

মাংসের দামের বিষয়ে জানতে চাইলে এক ব্যাবসায়ী জানান, ভ্রাম্যমাণ আদালতের ভয়ে তারা ৫২৫ টাকায় মাংস বিক্রি করছেন। তবে ঈদের আগেই দাম বেড়ে ৬০০ টাকা হয়ে যাবে।

এদিকে আগের মতোই ব্রয়লার মুরগির বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা কেজি। লাল লেয়ার মুরগি প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ১৯০ থেকে ২০০ টাকা, যা আগে ছিল ২২০ টাকা। আর প্রতিকেজি খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকা।

বিভিন্ন কাঁচা বাজার ঘুরে দেখা যায, গত কয়েক মাস ধরে সবজির দাম ক্রেতাদের নাগালের বাইরে আছে। বাজারে এখন বেশির ভাগ সবজি পাওয়া যাচ্ছে ৫০ থেকে ৮০ টাকা কেজিতে। বাজারে কাঁচা পেঁপে কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা, টমেটো ৪০ টাকা, শসা ১০ টাকা বেড়ে ৬০ টাকা, প্রতিকেজি পটল বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা, সজনে ডাটা ৮০ থেকে ১০০টাকা, বরবটি ৬০ টাকা, কচুর লতি ৫০ থেকে ৬০ টাকা, করলা ৬০ টাকা, শিম বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। প্রতি পিস লাউ বিক্রি হচ্ছে আকারভেদে ৬০ থেকে ৭০ টাকায়। প্রতিকেজি ধুন্দুল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, বেগুন মানভেদে ৬০ থেকে ৮০ টাকা, গাজর ৬০ থেকে ৮০ টাকা ও ঢেঁড়স ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া কাঁচা মরিচের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা।

দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা। আলু মানভেদে বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকা। রসুন বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১৩০ টাকা। খোলা চিনি ৫ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকা কেজি দরে এবং প্যাকেট ৬০ টাকা কেজি। এছাড়া আদার দামও কিছুটা বেড়েছে। আদা বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকা কেজি।

সবজির পাশাপাশি অপরিবর্তিত রয়েছে মাছের দামও। তেলাপিয়া মাছ বিক্রি হচ্ছে ১৬০-১৮০ টাকা কেজি। পাঙাশ বিক্রি হচ্ছে ১৫০-১৮০ টাকা কেজি। রুই ২৮০-৬০০, পাবদা ৬০০-৭০০, টেংরা ৫০০-৮০০, শিং ৫০০-৬০০ এবং চিতল বিক্রি হচ্ছে ৬০০-৮০০ টাকা কেজি।

এমএস


oranjee