ঢাকা, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

 
 
 
 

মহাত্মা গান্ধীর ১৫০তম জন্মদিন আজ

গ্লোবালটিভিবিডি ৩:৫৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০২, ২০১৯

ফাইল ছবি

ভারতের জাতির জনক মহাত্মা গান্ধীর জন্মসার্ধশত আজ। নানা আয়োজনে বিশ্বজুড়ে দিনটিকে আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস হিসেবে পালন করা হচ্ছে।

গান্ধীজির দেড়শতম জন্মবার্ষিকীতে রাজঘাটে তার সমাধিতে শ্রদ্বা জানিয়েছেন, জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস, ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কবিন্দ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং রাজনৈতিক নেতারা।

তিনি বলেছিলেন জীবন নশ্বর, তাকে অমর করতে শেখো। তিনি বলেছিলেন, চোখের বদলে চোখ পৃথিবীকেই অন্ধ করে দেবে। তাই অহিংসাই পরম ধর্ম। মানবকল্যাণে এমনই ছিলো তার জীবনদর্শন। মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী। আপামরের কাছে তিনি বাপুজি। তার সত্যাগ্রহ আন্দোলনই ছিলো স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে কঠোর কণ্ঠ। নারী স্বাধীনতা, বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর সুসম্পর্ক, বর্ণ বৈষম্য-দারিদ্র্যদূরীকরণসহ নানা ক্ষেত্রে তার অবদান অস্বীকার্য। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ বন্ধে খোদ হিটলারকে চিঠি লিখেছিলেন বাপুজি।

লন্ডনে বার-অ্যাট-ল ডিগ্রি অর্জনের পর, ১৯১৪ সালে ভারতে ফিরে যুক্ত হন ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে। ১৯২১ সালে নেতৃত্ব দেন ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের। তার নেতৃত্বে ১৯৩০ সালে লবন করের বিরুদ্ধে ৪শ কিলোমিটার ডান্ডি কুচকাওয়াজই, ইংরেজ শাসকদের ভারত ছাড়ো আন্দোলনের সূত্রপাত ঘটায়।

১৮৬৯ সালের আজকের দিনে ভারতের গুজরাটের পরবন্দরে জন্ম মহাত্মা গান্ধীর। ২০০৭ সাল থেকে দিনটিকে আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস হিসেবে পালন করছে জাতিসংঘ।

ব্যাক্তির ভেতর ও বাহিরের স্বচ্ছতা ও পবিত্রতায় বিশ্বাসী ছিলেন মহাত্মা গান্ধী। তার পথ অনুসরণ করেই স্বচ্ছ ভারত মিশন শুরু করেছে ভারত। বিশ্বজুড়ে শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় স্মরণীয়-সার্বজনীন তিনি।

এমএস


oranjee