ঢাকা, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৬ আশ্বিন ১৪২৬

 
 
 
 

মোহাম্মদ আশরাফুল ইসলামের ব্যতিক্রমি উদ্যোগ ‘রমজান’

গ্লোবালটিভিবিডি ২:৩২ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৪, ২০১৯

ঈদকে কেন্দ্র করে ঈদ সংখ্যার আয়োজন বাংলাদেশে সাহিত্যের বিশেষ এক সংযোজন। ঈদ সংখ্যা প্রকাশে ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠান উদ্যোগী হয়, প্রকাশ পায় নানা নামের ঈদ সংখ্যা। ঈদের আগেই আসে রোজা। রোজা নিয়েও হয় বিস্তর লেখালেখি। তার সবই ব্যক্তি পর্যায়ে বিচ্ছিন্নভাবে। রমজানকে কেন্দ্র করে এক মলাটবদ্ধ কাজ চোখে পড়ে না। অথচ মাসব্যাপী রমজানে একক ও পত্রপত্রিকায় বিস্তর লেখালেখি হয়।

এবার রমজান নিয়ে ভিন্ন রকম ভাবনায় এগিয়ে এসেছেন ইতিহাস গবেষক মোহাম্মদ আশরাফুল ইসলাম। তার নিরলস প্রচেষ্টায় বাংলাদেশে প্রকাশিত হয়েছে ব্যতিক্রমী এক সংকলন ‘রমজান’। এমন ভিন্নরকম আয়োজন আমাদের চোখে পড়ে খুব কম। নিঃসন্দেহে এটি একটি সাহসী উদ্যোগ এবং প্রশংসনীয় কাজ। ‘রমজান’ প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি তাতে তুলে ধরেছেন মধ্যযুগের কবিদের ইসলাম চর্চার ইতিহাস। সাহিত্যে রমজান চর্চার কথা তারই অবিচ্ছেদ্য অংশ। স্থান দিয়েছেন অনেকের কবিতা। অনেকের মধ্যে অন্যতম মধ্যযুগের কবি কঙ্কন মুকুন্দরাম চক্রবর্তী। তিনি লিখেছেন:

“রোজা নামাজ না করিয়া কেহ হইল গোলা।/ আসন করিয়া নাম ধরাইল জোলা।।

( মুসলমানদিগের শ্রেণী বিভাগ) মধ্যযুগের আরেক কবি শেখ মুত্তালিব তার কিতাব”

‘কিতাব কায়দানী’ তে লিখেছেন:

“ত্রিশ রোজা ত্রিশ নিয়ত কহিলাম পুনি/ একশত ত্রিশ ফর্জ লও যেন গুনি”/

সম্পাদক ‘রমজান’-এ মধ্যযুগের কবিদের দিয়েই শুরু করেছেন তার কাজ। এরপর গ্রন্থিত হয়েছে কবি শাহাদাৎ হোসেন'র কবিতা-

“দিক হতে দিগন্তের ধরণীর মর্মকেন্দ্র ঘন মুখরিয়া/ স্বাগতম রমজান, গীত কণ্ঠে উঠুক রণিয়া”

সমগ্র বাংলাদেশে অঘোষিতভাবে ঈদ সঙ্গীত হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম'র “ও মন/ রমজানেই রোজার শেষে/ এলো খুশীর ঈদ” গানটি। এছাড়াও তার রমজান বিষয়ক আরও অনেক রচনা আছে যার নমুনা স্বরূপ কয়েকটি সংযোজন করেছেন সম্পাদক এই সংকলনে।

আছে কবি গোলাম মোস্তফা, জসীমউদদীন, ফররুখ আহমদ, বেগম সুফিয়া কামাল, আল মাহমুদ, আল মুজাহিদী, আসাদ চৌধুরী, মুহম্মদ নুরুল হুদা, কাজী রোজী, সাজজাদ হোসাইন খান প্রমুখ প্রথিতযশা কবির রমজান নিয়ে লিখা কবিতা। সংকলনটিতে মধ্যযুগের কবি থেকে শুরু করে বাংলাদেশে প্রখ্যাত অনেক কবির কবিতা গ্রন্থিত হয়েছে। আছে আরও অনেক বিশিষ্টজনদের কবিতা। শতাধিক কবির কবিতা আছে এতে। এদের মধ্যেফরিদ আহ,দ দুলাল, কবি সুজাউদ্দিন কায়সার, মাহবুবুল হক, সৈয়দ মাজহারুল পারভেজ, আসলাম সানী, সালেম সুলেরী,  হাসান আলীম, শাহীন রেজা, মুহিবুর রহিম, মহিউদ্দিন আকবর, আতিক হেলাল, জাফর পাঠান,  আবেদ আলী মোল্লা, মৃধা আলাউদ্দিন, আমিন আল আসাদ, রেদওয়ানুল হক, তাজ ইসলাম, রহমান মাজিদ ছাড়াও সময়ের নবীনতম কবির কবিতাও আছে।

রোজা ইসলাম ধর্মের অন্যতম ফরজ ইবাদাত। অন্যান্য ধর্মের লোকজনও রোজার মত করে পালন করে তারা তাদের ধর্মীয় নির্দেশ। হিন্দুদের একাদশী, খ্রিস্টানদের ফাস্টিং বা রোজা, বৌদ্ধ, জৈন ধর্ম এবং বিজ্ঞান সম্মত অটোফেজির কথা উল্লেখ আছে এখানে। কবিতা ছাড়াও রোজা নিয়ে বিভিন্ন ধর্মের পরিভাষার সম্যক ধারণা দেয়া হয়েছে। বিশিষ্টজন থেকে শুরু করে নবীনতম কবির কবিতা একটি বিষয়কে কেন্দ্র করে আদায় করে নেয়া একজন সম্পাদকের অবশ্যই কৃতিত্ব এবং নিষ্ঠার কাজ।

মোহাম্মদ আশরাফুল ইসলাম সম্পাদিত ‘রমজান’ এ ধারার অনুসরণীয় প্রকাশনার মর্যাদা পাবে বলেই আমাদের বিশ্বাস। বাংলাদেশে, বাংলা ভাষায় ঈদসংখ্যার পাশাপাশি রমজান সংখ্যা, কোরবানী সংখ্যা, মহরম সংখ্যার চর্চা হতে পারে। সম্পাদক এই পথটিই দেখিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছেন। ঝকঝকে ছাপা, উন্নত কাগজের সংকলনটি সবার সংগ্রহে থাকুক এই প্রত্যাশা আমাদের।

রমজান
সম্পাদনা: মোহাম্মদ আশরাফুল ইসলাম।
প্রচ্ছদ: সায়মা সাদিয়া রবী।
মূল্য ২৫০ টাকা।
প্রকাশকাল: মে ২০১৯, রমজান ১৪৪০ হিজরি।

- তাজ ইসলাম


oranjee