ঢাকা, বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

 
 
 
 

এ কী করছেন সেলিব্রেটিরা!

গ্লোবালটিভিবিডি ৩:০০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৫, ২০১৯

ছবি সংগৃহীত

মুরাদ নূর: সৃষ্টির প্রতিটা প্রাণী তাদের বংশ বিস্তার করার জন্য সহবাস করেন। প্রাণীর জীবনের একমাত্র ব্যক্তিগত আনন্দতম বিষয় হলো সেক্স। সেই সেক্স একমাত্র মানুষই এটাকে শৈল্পিকতা নিয়ে সভ্যভাবে কার্যসাধন করেন। বাংলার ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, ধর্মীয় অনুভুতির দিক থেকে বাংলাদেশের মানুষজন এই জৈবিক চাহিদাটুকুু অত্যন্ত গোপনীয়তায় করে থাকেন। এমনটাই জেনে শুনে বুঝে আসছি বাঙ্গালী নর নারী আর ইতিহাসের কাছে।

সম্প্রতি তথাকথিত সেলিব্রিটি ফাহমী-মিথিলার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের গোপন ছবি সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল, এছাড়াও এমন বিভিন্ন পেশার মানুষের আপত্তিকর ছবি, ভিডিও প্রতিদিন কোনো না কোনো বিষয় লিড নিউজ হচ্ছে! এসবের কারনে মৌলিকতা নিয়ে বেঁচে থাকার চরম সমস্যাগুলো আড়াল হয়ে যাচ্ছে। নিউজ হয় না এমন ঘটনাও ঘটে অসংখ্য। কৌতুহল নিয়ে বেশ কয়েকটা ছবি চোখে পড়লো। আমাদের সাধারনের কাছে তাহসান মিথিলার চরম রোমান্টিক সম্পর্কের কারনেই কৌতুহল বেশি হলো। এই জুটির আলাদা হওয়ায় তখন বেশ কষ্টও পেয়েছি। তাদের সমাজ, দেশে আলোচিত সম্মানিত হয়ে বেঁচে থাকার যথেষ্ট গুণ ও যোগ্যতা ছিলো। কিসের লোভে! কিসের অভাবে তারা সম্পর্ক ধরে রাখতে পারলো না। তা আমার মতো অনেকেরই প্রশ্ন।

ভাইরাল ছবিতে দেখা যায় ব্যক্তিত্বহীনতার চরম রুপ। ইচ্ছেকৃত ভাবেই দুজন ছবিতে পোজ দেওয়া। ওয়াশরুমের কমোডে বসে অর্ধনগ্ন অবস্থায় মিথিলার স্টাইলিস্ট সেলফি। এবং ভিডিও কলেও দুজনের অর্ধনগ্ন ছবি। যা তারা ইচ্ছেকৃত ভাবেই করেছে বলে মনে হয়। তারা নাকি বাংলা সংস্কৃতি বয়ে বেড়ায়! তাদেরকে অনুকরণ করে বহু স্বপ্নবাজ তরুণ তরুণী। এদের গোপনীয়তা, অতি প্রয়োজন, ব্যক্তিত্ব কি এতোই শুণ্যের কোঠায়.?

বিভিন্ন ছবিগুলোতে দু'জন সেচ্ছায় ভিডিও করেছে এমনটাই প্রমানিত। প্রভা-রাজীব এর ভুল থেকে এরা নিশ্চয় শিক্ষা নেয়নি! আমার মাথায় আসে না মিথিলা তাহসানের কিসের অভাব ছিলো .? বিচ্ছেদের জন্য তাদের কি এমন প্রয়োজন? এ কেমন লোভ! কিসের লোভ! আদৌ কি এর ব্যাখ্যা তাদের জানা?

ভালোবাসা কোনো অন্যায় না। মানুষ প্রয়োজনে'ই সবকিছু করে। নিঃশ্বাসও প্রয়োজনে নেয়। দেখার বিষয় সে ভালোবাসা আপনার কেনো প্রয়োজন.? পর্যাপ্ত মজুদ থাকার পরও আপনার উদ্দেশ্যেহীন প্রয়োজনের গোপনীয়তা, সামাজিকতা, সভ্যতা, পবিত্রতার হুমকি হয় কিনা! একজন অশিক্ষিত রিক্সাওয়ালার প্রয়োজন আর ফাহমি-তাহসান-মিথিলা-প্রভা-অপুর্ব, এদের প্রয়োজন কি এক হবে.? মিথিলা ফাহমি ভালোবেসে কোনো অন্যায় করেনি। হয়তো তাদের প্রয়োজন ছিলো!! কিন্তু একবার কি তাদের ভাবা উচিত নয়, তারা কারা? সমাজে কেমন তাদের দায়িত্ব? আসলে প্রয়োজনটা কি! কেনো.? হয়তো এর যৌক্তিক কারন বের করার পড়াশুনা এদের কোনো কালেই ছিলো না।

শিক্ষিত, জনপ্রিয়, আইডল হওয়া মানুষের কর্ম কি এই.? একান্ত জৈবিক চাহিদা মনের মানুষের সাথে(বৈধ মানুষ), আত্মিক মানুষে সাথে তো এমনটা হবেই! এটা কি ভিডিও করার বিষয়.?? কাকে দেখাতে হয় গোপন! গোপন কি আসলে প্রকাশ করার বিষয়? তারা হয়তো জানেই না বাঙ্গালী ছেলেরা তার জামাই/বউ বা গার্লফ্রেন্ড/বয়ফ্রেন্ড এর উলঙ্গ শরীর জাতি দেখুক এমনটা চাইবে না। কি বুঝে তাদের এই মুহূর্ত ধারন? মাথায় ধরে না। এদের থেকে আমরা কি শিখবো! অথচ তাদের অসুস্থ, মানসিক ভঙ্গুর গুরু ভাইদের বদৌলতে চেয়ার আর ক্যামেরা দখল করে বসে আছে।

ধিক্কার জানাই অসুস্থ মানসিকতাকে। অযৌক্তিক স্বপ্নবাজরা নিপাত যাক। পার্সোনাল আর পাবলিক কখনোই এক করতে নেই। গোপন আজন্মকাল গোপন রাখাই ভালো। সৃষ্টিকর্তা খুশি থাকে। পৃথিবীও শান্ত থাকে।

.লেখক- মুরাদ নূর


oranjee